রাজউক ইমারত নির্মাণ বিধিমালা - ২০০৮ পর্ব-২

(১৩) নির্মাণ অনুমোদনপএ : ১)কোন ব্যক্তি বা সরকারী বা বেসরকারী সংস্থা নতুন ভবন বা অবকাঠামো নির্মাণ করিতে বা বিদ্যমান ভবন বা অবকাঠামো পরিবর্তন, পরিবর্ধন বা সংযোজন করিতে ইচ্ছুক হইলে আইন অনুযায়ী নির্মাণ অনুমোদনপএ গ্রহণ করিতে হইবে । ২) উপ-বিধি (১) এ বর্ণিত নির্মাণ অনুমোদনপএের জন্য উপ-বিধি (৪) হইতে (১২) এ বর্ণিত প্রয়োজনীয় দলিলাদী এবং সংশ্লিষ্ট নকশা সমূহের ৮ (আট) প্রস্থ এবং নির্ধারিত ফি সহ নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০১) এর মাধ্যমে আবেদন করিতে হইবে। ৩) আবেদনকারী এবং বিধি ৪১ এর আওতায় প্রণীত তালিকা মোতাবেক যথাযথ যোগ্যতাসম্পন্ন কারিগরী ব্যক্তিবর্গ নকশায় অমুদ্রিত স্বাক্ষর প্রদান করিবে এবং কারিগরী ব্যক্তিবর্গকে তাহাদের পেশাজীবি সংগঠনের সদস্য নম্বর ও রেজিস্ট্রেশন নম্বর নকশা ও দলিলাদির নির্ধারিত স্থানে উল্লেখ করিতে হইবে । ৪) নির্মাণ অনুমোদনপএের জন্য আবেদনপএের সহিত নিন্মলিখিত দলিলাদি (A3 বা A4 আকারের কাগজে) নকশাসহ সংযুক্ত করিয়া উপস্থাপন করিতে হইবে, যথা : (ক) প্রযোজ্য ক্ষেএে ভূমি ব্যবহার ছাড়পএ এবং বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএের অনুলিপি; (খ) পরিশিষ্ট-৪ অনুযায়ী নির্ধারিত ফি প্রদানের রশীদ; (গ) প্রস্তাবিত উন্নয়নের ভূমি ও ভবনাদিতে আবেদনকারীর বৈধ মালিকানার প্রমাণস্বরূপ দলিলাদির সত্যায়িত অনুলিপি; (ঘ) বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএের নির্দেশ মোতাবেক প্রযোজ্য ক্ষেএে যোগ্যতাসম্পন্ন কারিগরী ব্যক্তি কতৃক প্রদও মৃওিকা পরীক্ষা (Soil Test) প্রতিবেদন; (ঙ) এ্যাপার্টমেন্ট ভবনের ক্ষেএে তলাওয়ারী আবাস-ইউনিটের সর্বমোট সংখ্যা; (চ) প্লটের ক্ষেএফল, FAR এর হিসাব, ভূমি আচ্ছাদন, সেট ব্যাক স্থানের পরিমাপ এবং মোট তলার সংখ্যা; (ছ) গভীর ভিওি, পাইলিং, বেজমেন্ট বা ভূগর্ভস্থ তলা নির্মাণের জন্য প্রযোজ্য ক্ষেএে নির্ধারিত ছক (সংযুক্তি-৩০১) এর মাধ্যমে আবেদনকারী স্বাক্ষরিত প্রদও ক্ষতিপূরণ মুচলেকা; এবং (জ) প্রকল্পে নিয়োজিত স্থপতির অভিজ্ঞতার প্রমানস্বরূপ সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানে কারিগরি ব্যক্তি হিসাবে তালিকাভূক্ত সার্টিফিকেট এর অনুলিপি । (৫) আন্তর্জাতিক A সিরিজের (A0 হইতে A4 সাইজ) কাগজে মেট্রিক মাপে সকল নকশা প্রণয়ন করিতে হইবে, যাহা নিন্মরূপ : A0 ১১৮৮ এম.এম x ৮৪১ এম.এম A1 ৮৪১ এম.এম x ৫৯৪ এম.এম A2 ৫৯৪ এম.এম x ৪২০ এম.এম A3 ৪২০ এম.এম x ২৯৭ এম.এম A4 ২৯৭ এম.এম x ২১০ এম.এম (৬) নকশাসমূহে নিন্মলিখিত তথ্য সন্নিবেশিত থাকিতে হইবে, যথা : (ক) নকশার টাইটেলসহ আবেদনকারীর নাম, ঠিকানা, টেলিফোন নম্বর (যদি থাকে) ও অমুদ্রিত স্বাক্ষর; (খ) প্রযোজ্য ক্ষেএে সংশ্লিষ্ট পরিকল্পনাবিদ, স্থপতি বা প্রকৌশলীর নাম, ঠিকানা, টেলিফোন নম্বর (যদি থাকে) ও অমুদ্রিত স্বাক্ষরসহ স্ব স্ব পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানের সদস্যপদ নম্বর ও রেজিস্ট্রেশন নম্বর; (গ) সরকার কতৃক পরিকল্পিত ও উন্নয়নকৃত ভূমি বা প্লটের ক্ষেএে প্লট বা হোল্ডিং এর বরাদ্দ গ্রহীতার নাম ও ঠিকানা, রাস্তা ও এলাকার নাম এবং বেসরকারী প্রতিষ্ঠান কতৃক উন্নয়নকৃত এলাকার প্লটের ক্ষেএে প্লট বা হোল্ডিং এর মালিকের নাম ও ঠিকানা, রাস্তা এবং এলাকার নামসহ লে-আউট নকশা অনুমোদনের রেফারেন্স নম্বর ও তারিখ; (ঘ) ব্যক্তি বা অন্যান্য ক্ষেএে হোল্ডিং নম্বর, রাস্তা ও এলাকার নামসহ প্রযোজ্য ক্ষেএে ভূমি ব্যবহার ছাড়পএের রেফারেন্স নম্বর ও তারিখ; (ঙ) নির্মাণের উদ্দেশ্য ও প্রস্তাবিত ব্যবহার এবং (চ) মৌজার নাম এবং সি.এস./আর.এস./এস.এ. দাগ নম্বর বা প্লট নম্বরসহ সাইট যে থানার অন্তর্গত, তাহার নাম । (৭) সাইট প্ল্যান বা এলাকা নকশা অনূন্য ১ : ৪০০০ স্কেলে অঙ্কিত হইবে এবং উহাতে নিন্মলিখিত তথ্য থাকিতে হইবে, যথা: (ক) সাইট যে মৌজায় অবস্থিত, সাইটের অবস্থানসহ উহার সি.এস. ম্যাপ এবং প্রয়োজনীয় ক্ষেএে আর.এস. বা এস.এ. ম্যাপের অংশবিশেষ অথবা সরকার বা অনুমোদিত বেসরকারী প্রতিষ্ঠান কতৃক উন্নয়নকৃত প্রকল্পের ক্ষেএে সাইটের অবস্থানসহ প্রকল্প এলাকা নকশার অংশবিশেষ; এবং (খ) সাইটের দাগ বা প্লট এবং পার্শ্ববর্তী দাগ বা প্লটসমূহের অবস্থান নির্দেশক । (৮) লে-আউট নকশা ১ : ২০০ স্কেলে অঙ্কিত হইতে হইবে এবং ইহাতে নিন্মলিখিত তথ্য থাকিতে হইবে, যথা : (ক) সাইটের প্রতি দিকের সীমানা ও পরিমাপ; (খ) প্রযোজ্য ক্ষেএে, সাইটে বিদ্যমান ভবনসমূহের পরিসীমা, বহিঃর্ভাগের পরিমাপ, উচ্চতা, তলার সংখ্যা এবং রক্ষিত আবশ্যিক উন্মুক্ত স্থানের পরিমাপ; (গ) প্রযোজ্য ক্ষেএে, সাইটে প্রস্তাবিত ও বিদ্যমান ভবন বা কাঠামো, জলাশয়, উদ্যান, অন্যান্য ভূ-নৈসর্গিক এলাকা, নীচু ভূমি, উন্মুক্ত প্রান্তর, বনাঞ্চল ইত্যাদির অবস্থান; (ঘ) এলাকা ও সড়কের নাম; (ঙ) সন্নিহিত সড়ক সমূহের দৃষ্টে সাইট বা প্লটের দিক নির্দেশ, সাইটের সংলগ্ন রাস্তার প্রস্থ এবং ব্যক্তি মালিকানাধীন বা নিজস্ব রাস্তার ক্ষেএে সম্পূর্ণ রাস্তার দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ; (চ) রাস্তা হইতে সাইটে প্রবেশ ও নির্গমনের গেইটের অবস্থান; (ছ) প্রস্তাবিত ও বিদ্যমান ভবন সমূহের চারিদিকে পানি প্রবাহের দিক নির্দেশনা সহ নর্দমার (যদি থাকে) অবস্থান; (জ) ভূগর্ভস্থ জলাধার, সেপটিক ট্যাংক এবং সোক পিট, পয়ঃনিষ্কাশন লাইনের সহিত সংযোগের অবস্থান (যদি থাকে); এবং (ঝ) সাইটের মধ্যে আবর্জনা সংগ্রহ স্থলের অবস্থান । (৯) একাধিক ইমারত এবং অন্যান্য অবকাঠামো ও স্থাপনাবিশিষ্ট বৃহৎ প্রকল্পের ক্ষেএে উপযুক্ত স্কেলে একটি কী-প্ল্যান প্রস্তুত করিতে হইবে যাহাতে সকল ইমারত বা অবকাঠামোর অবস্থান ও পরিসীমা, রাস্তার লে-আউট, সকল ভূদৃশ্য এবং ভৌগোলিক উপাদান, যথা : বৃক্ষ, পাহাড়, পুকুর বা জলাধার, ভূমি খনন বা ভরাটের স্থান ইত্যাদি প্রদর্শিত থাকিবে । (১০) ভূ-গর্ভস্থ ও মেজানাইন ফ্লোরসহ ইমারতের সকল তলার ফ্লোর প্ল্যান ১ : ১০০ স্কেলের মাপে প্রণয়ন করিতে হইবে এবং ইহাতে নিন্মলিখিত বিষয়সমূহ সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ থাকিতে হইবে, যথা : (ক) দরজা ও জানালার অবস্থান সহ সকল কক্ষ ও পরিসরের পরিমাপ, আকৃতি, অবস্থান এবং ব্যবহার; (খ) সিঁড়িঘরসহ প্রযোজ্য ক্ষেএে লিফটকোর, এসকেলেটর, রেম্প, জরুরী নির্গমন সিঁড়ির অবস্থান ও পরিমাপ; (গ) ছাদের পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা, টেরাস (Terrace) (যদি থাকে), লিফট মেশিন রুম (প্রযোজ্য ক্ষেএে), সিঁড়িঘরের ছাদ, ছাদের স্থায়ী জলাধার (যদি থাকে) এবং পানির আউটলেট প্রদর্শনপূর্বক প্রণীত ছাদের নকশা; (ঘ) প্রবেশ, নির্গমন, ড্রাইভওয়ে ও পার্কিং এর স্থান প্রদর্শনপূর্বক পার্কিং প্ল্যান এবং নিরাপওা পোস্ট এর অবস্থান; (ঙ) প্রযোজ্য ক্ষেএে বৈদ্যুতিক ও যান্ত্রিক কক্ষের অবস্থান; এবং (চ) একাধিক ইমারত বা স্থাপনাবিশিষ্ট কমপ্লেক্সের ক্ষেএে যানবাহন ও পথচারী প্রবেশ, গাড়ী হইতে অবরোহণ, আরোহণ ও যান চলাচলের স্থান । (১১) গুরুত্বপূর্ণ অংশের পরিমাপসহ কমপক্ষে দুইটি সেকশন (লম্বালম্বি ও আড়াআড়ি) ১ : ১০০ স্কেলের মাপে প্রণয়ন করিতে হইবে যাহার মধ্যে অন্তত একটি সিঁড়িঘরকে ছেদ করিবে এবং ছেদ চিএে নিন্মলিখিত বিষয়গুলি প্রদর্শন করিতে হইবে, যথা : (ক) মেজানাইনসহ (প্রযোজ্য ক্ষেএে) প্রতি তলার উচ্চতা, কাড় (Loft), উপরিস্থ জলাধার (যদি থাকে), লিফট মেশিন রুম (যদি থাকে), প্যারাপেট এর উচ্চতা, বিদ্যমান ভূমি, সড়ক ও ফুটপাথের প্রেক্ষিতে ভবনের সর্ব্বোচ্চ উচ্চতা; (খ) দেওয়াল হইতে বর্হিঃভাগ প্রসারিত বিভিন্ন অংশের পরিমাপ (ব্যালকনি, সানশেড ইত্যাদি); এবং (গ) ভূমিতলের বিদ্যমান ও প্রস্তাবিত লেভেল । (১২) ইমারতের সর্ব্বোচ্চ উচ্চতা ও গুরুত্বপূর্ণ পরিমাপসহ সকল দিকের উন্নতি (Elevations) চিএ ১ : ১০০ স্কেলে প্রণয়ন করিতে হইবে । (১৪) নির্মাণ অনুমোদনপএ আবেদনের নিষ্পওি : ১) কতৃপক্ষের নিকট ইমারত নির্মাণের আবেদনপএটি অসম্পূর্ণ বা ক্রুটিপূর্ণ চিহ্নিত হইলে আবেদনপএ প্রাপ্তির ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে প্রয়োজনীয় তথ্য ও দলিলাদি সরবরাহের জন্য কতৃপক্ষ লিখিতভাবে আবেদনকারীকে অনুরোধ জানাইবে । ২) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী তথ্য ও দলিলাদি সরবরাহের অনুরোধ সম্বলিত পএ প্রাপ্তির তারিখ হইতে ৩০ (এিশ) দিনের মধ্যে আবেদনকারীকে প্রয়োজনীয় তথ্য ও দলিলাদি কতৃপক্ষের নিকট সরবরাহ করিতে হইবে এবং উক্ত সময়ের মধ্যে তাহা সরবরাহ করিতে ব্যর্থ হইলে উক্ত আবেদন বাতিল বলিয়া গণ্য হইবে । ৩) কতৃপক্ষ আবেদন প্রাপ্তির ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) দিনের মধ্যে অথবা নতুন তথ্য ও দলিলাদি সরবরাহ করা হইলে উহা প্রাপ্তির তারিখ হইতে ৩০ (এিশ) দিনের মধ্যে নিয়ম অনুযায়ী প্রস্তাবিত উন্নয়ন প্রকল্পটি শর্তহীন অথবা শর্তসাপেক্ষে নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০২) এর মাধ্যমে অনুমোদন প্রদান করিবে । ৪) উপ-বিধি (৩) এর বিধান অনুযায়ী আবেদনপএ অনুমোদিত হইলে আবেদনকারী কতৃপক্ষের নিকট হইতে স্বাক্ষর ও সীলযুক্ত ৪ (চার) ফর্দ অনুমোদিত নকশা ও দলিলাদি প্রাপ্তির অধিকারী হইবে । ৫) আবেদনপএ প্রত্যাখান করা হইলে কতৃপক্ষ ইহার কারণ প্রদর্শনপূর্বক নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০৩) এর মাধ্যমে আবেদনকারীকে অবহিত করিবে । ৬) উপ-বিধি (৫) অনুযায়ী আবেদন প্রত্যাখান করা হইলে আবেদনকারী আইনের ১৫ ধারা অনুযায়ী নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০৪) এর মাধ্যমে নগর উন্নয়ন কমিটির নিকট আপিল আবেদন করিতে পারিবে । ৭) উপ-বিধি (৬) এর অধীন আপিল নিষ্পওির জন্য নগর উন্নয়ন কমিটি প্রয়োজনে একটি আপিল সাব-কমিটি গঠন করিবে এবং আপিল সাব-কমিটি আবেদন প্রাপ্তির ৩০ (এিশ) দিনের মধ্যে কতৃপক্ষের নিকট আবেদন অনুমোদন অথবা প্রত্যাখানের সিদ্ধান্ত প্রদান করিবে । ৮) উপ-বিধি (৭) অনুযায়ী আপিল আবেদন গৃহীত হইলে কতৃপক্ষ নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০৫) এর মাধ্যমে অনুমোদন বা আপিল আবেদন গৃহীত না হইলে কতৃপক্ষ নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০৬) এর মাধ্যমে প্রত্যাখান করিবে । (১৫) নির্মাণ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আবেদনকারীর দায়িত্ব ও কর্তব্য : ১) ইমারত নির্মাণে অনুমোদনপ্রাপ্ত আবেদনকারী কোন অবস্থাতেই অনুমোদিত নকশা ও দলিলাদির পরিপন্থী কোন কাজ করিবেন না । ২) প্রকল্প নির্মাণ কাজ বিধি ৪৩ এ উল্লেখিত সারণী-১ এর বর্ণনা মোতাবেক কারিগরী দক্ষ ব্যক্তিবর্গ দ্বারা তও্বাবধান করাইতে হইবে । ৩) কাজ শুরু করিবার অন্তত ১৫ (পনের) দিন পূর্বে নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০৭) এর মাধ্যমে কতৃপক্ষকে লিখিতভাবে কাজ শুরু করিবার অথবা স্থগিত কাজ পুনরায় শুরু করিবার ইচ্ছা জানাইয়া নোটিশ প্রদান করিতে হইবে যাহাতে নির্মাণ কাজের সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গের প্রত্যয়ন বা সম্মতি স্বাক্ষরও থাকিতে হইবে । ৪) প্রকল্পে নিয়োজিত কোন কারিগরী ব্যক্তিকে নতুন নিয়োগ অথবা পরিবর্তন সম্পর্কে নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০৮) এর মাধ্যমে কতৃপক্ষকে ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে লিখিতভাবে জানাইতে হইবে এবং কারিগরী ব্যক্তি পরিবর্তনের ক্ষেএে নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত কারিগরী ব্যক্তির দায়িত্ব গ্রহণ না করা এবং তাহার সম্মতি কতৃপক্ষকে না জানানো পর্যন্ত নির্মাণ কাজ স্থগিত থাকিবে । ৫) আবেদনকারীকে নিশ্চিত করিতে হইবে যেন : (ক) সকল ধরনের উন্নয়ন ও নির্মাণ কাজ কারিগরী দক্ষ ব্যক্তি দ্বারা যাহাদের বিবরণ পূর্বেই কতৃপক্ষের নিকট প্রদান করা হইয়াছে তাহাদের তও্বাবধানে সম্পন্ন হয়; (খ) কোন কারণবশতঃ নিয়োগপ্রাপ্ত কারিগরী দক্ষ ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গের কাজ বন্ধ হইয়া গেলে, তাহা ১৫ (পনের) দিনের মধ্যেই কতৃপক্ষকে অবহিত করা হয়; এবং (গ) কারিগরী দক্ষ ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গের নতুন নিয়োগ এবং এই সম্পর্কে কতৃপক্ষকে অবহিত না করা পর্যন্ত নির্মাণ কাজ স্থগিত থাকে । ৬) ইমারতের বর্ধিতকরণ, পরিবর্তন অথবা স্থগিত বা অসম্পূর্ণ কাজ সম্পাদনসহ যে কোন নির্মাণ কাজ শুরু করিবার পূর্বে আবেদনকারীকে অবশ্যই : (ক) নিশ্চিত হইতে হইবে যে, নির্মাণ প্রকল্পের সকল প্রয়োজনীয় নকশা অনুমোদনপ্রাপ্ত এবং অনুমোদিত সময়সীমার মধ্যে রহিয়াছে এবং অনুমোদিত নকশার কপি সাইটে সহজে দৃশ্যমান স্থানে প্রদর্শন করিতে হইবে; (খ) বিধি ৪৩ এ উল্লেখিত সারণী-১ অনুসারে অনুমোদিত কারিগরী ব্যক্তি দ্বারা প্রয়োজনীয় হিসাব-নিকাশসহ সকল কাঠামোগত, বৈদ্যুতিক এবং যান্ত্রিক ডিজাইন ও ড্রয়িং প্রস্তুত করা নিশ্চিত করিতে হইবে; এবং (গ) যথাযথ নিয়মে প্রকল্পের স্থাপতিক, কাঠামো, বৈদ্যুতিক ও যান্ত্রিক ডিজাইন এবং তও্বাবধান (যাহা প্রযোজ্য) করিবার দায়িত্বপ্রাপ্ত সকল কারিগরী ব্যক্তিগণের নাম-ঠিকানাসহ তাহাদের সম্মতি কতৃপক্ষের গোচরে আনিতে হইবে । (৭) ইমারতের পিন্থ পর্যায় পর্যন্ত কাজ সম্পূর্ণ হইলে উহা আবেদনকারীকে নিয়োজিত কারিগরী ব্যক্তিবর্গের প্রতিবেদন সহ নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০৯ ও ফরম-৩১০) এর মাধ্যমে কতৃপক্ষকে অবহিত করিতে হইবে । (৮) পিন্থ লেভেল পর্যন্ত নির্মাণ সম্পন্নকরণ অবহিত হওয়ার পর কতৃপক্ষ তাহা পরিদর্শনের ব্যবস্থা করিবে এবং ৭ (সাত) দিনের মধ্যে পিন্থস্তর নির্মাণ কাজ অগ্রসরের জন্য নির্ধারিত ছক (ফরম-৩১১) এর মাধ্যমে সম্মতি অথবা কারণসহ নির্ধারিত ছক (ফরম-৩১২) এর মাধ্যমে অসম্মতি প্রদান করিবে, অন্যথায় নির্মাণকাজ চলিতে থাকিবে । (১৬) কারিগরী ব্যক্তির দায়িত্ব ও কর্তব্য : ১) ইমারতের নকশা প্রনয়ন ও নির্মাণ তদারকীতে নিযুক্ত কোন কারিগরী ব্যক্তির ইমারত বা প্রকল্পের সহিত তাহার সংশ্লিষ্টতার মেয়াদ নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ হইবার আগেই ছেদ হইয়া গেলে বিষয়টি ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে নির্ধারিত ছক (ফরম-৩১৩) এর মাধ্যমে আংশিক কাজ তদারকীর প্রত্যয়নপএ সহ কতৃপক্ষকে অবহিত করিতে হইবে । ২) নির্মাণ কাজ আংশিক বা পূর্ণ সমাপনান্তে বসবাস বা ব্যবহার সনদ গ্রহণের জন্য নির্মাণ সমাপ্তি সনদ প্রদান করা পর্যন্ত সাধারনভাবে একজন কারিগরী ব্যক্তির দায়িত্বের সংশ্লিষ্টতা থাকিবে । ৩) এই বিধিমালার আওতায় ইমারতের সহিত দায়িত্বপ্রাপ্ত কারিগরী ব্যক্তির গাফিলতি হিসাবে গণ্য হইবে, যদি তিনি কোন যুক্তিসঙ্গত কারণ ছাড়াই : (ক) নির্ধারিত ডিজাইন ও স্পেসিফিকেশনের সহিত যুক্ত এমন কোন প্রয়োজনীয় তথ্য ও বিবরণ সম্পর্কে ভুল তথ্য প্রদান করেন বা গোপন রাখেন; এবং (খ) কাঠামো নকশা (Structural Design), অগ্নি-নির্বাপক অথবা অন্যান্য নিরাপওা ব্যবস্থা সম্পর্কে ভুল তথ্য পরিবেশন করেন কিংবা এড়াইয়া যান । (১৭) নির্মাণ সংশ্লিষ্ট নিরাপওা ও তদারকী : ১) নির্মাণ স্থলে এবং তাহার চারিপাশে প্রয়োজনীয় এবং যথোপযুক্ত নিরাপওা ব্যবস্থা থাকিতে হইবে । ২) যদি নির্মাণ কাজ কোন রাস্তায় বা স্থানে জনসাধারণের জন্য বাধা, বিপওি অথবা অসুবিধা সৃষ্টি করে, তাহা হইলে আবেদনকারী কতৃক উক্ত স্থানে অস্থায়ী ঘের, জীবনরক্ষাকারী বাধা (Shield) এবং বিকল্প চলাচল পথ তৈরি করিয়া জনসাধারণের নিরাপওা নিশ্চিত করিতে হইবে । ৩) নির্মাণ প্রকল্পের দ্রব্যাদি ও জিনিসপএ জনপথে কিংবা ফুটপাথে রাখিয়া জনসাধারণের চলাচলে অসুবিধা সৃষ্টি করা যাইবে না । ৪) আবাসিক এলাকায় সন্ধ্যা ৬টা হইতে সকাল ৬টা পর্যন্ত কোন যন্ত্রপাতি ব্যবহার বা নির্মাণ পদ্ধতির মাধ্যমে নির্মাণ সাইট বা প্রকল্প স্থলে বিরক্তিকর কোন আওয়াজ বা পরিস্থিতির সৃষ্টি করা যাইবে না এবং দিন-রাএির কোন সময়ই সাইটে পাথর বা খোয়া ভাঙ্গানো মেশিন ব্যবহার করা যাইবে না । ৫) যখন এবং যেমন প্রয়োজন হইবে এই নিয়ম অনুযায়ী আবেদনকারী কতৃপক্ষের পরিদর্শনে কারিগরী দক্ষ ব্যক্তি দ্বারা এবং এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য, ড্রইং ও অন্যান্য কাগজপএ সরবরাহ করিয়া এবং স্ব-খরচে পরীক্ষা করিয়া সহায়তা প্রদান করিবে । (১৮) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ (Occupancy Certificate) : ১) ইমারত আংশিক বা সম্পূর্ণ নির্মাণ সম্পন্ন হইবার পর ইহার ব্যবহার বা বসবাসের জন্য বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ গ্রহণ করিতে হইবে । ২) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ গ্রহণের জন্য আবেদন পএের সহিত নিন্মলিখিত দলিল বা নকশাদি কতৃপক্ষের সংরক্ষণের জন্য দাখিল করিতে হইবে, যথা : (ক) সমাপ্তি প্রতিবেদন (Completion Report); (খ) কতৃপক্ষ কতৃক অনুমোদিত স্থাপত্য নকশার ভিওিতে নির্মিত ইমারতের নির্মাণ নকশা (As-built Architectural Drawing); (গ) ইমারতের কাঠামো নকশা (Structural Design); এবং (ঘ) ইমারত সেবা (Building Services) সংক্রান্ত সকল নকশা । ৩) উপ-বিধি (২) এ উল্লিখিত সকল নকশার ডিজাইন পর্যাপ্ততা (Design Adequacy) ও উপযুক্ততার যাবতীয় দায়িত্বভার নকশার সহিত সংশ্লিষ্ট পেশাজীবিদের (স্থপতি বা প্রকৌশলী) উপর বর্তাইবে । (১৯) সমাপ্তি প্রতিবেদন : ১) নির্মাণ প্রকল্পের আংশিক অথবা সম্পূর্ণ কাজের উপর আবেদনকারী নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০১) এর মাধ্যমে একটি সমাপ্তি প্রতিবেদন দাখিল করিবেন এবং কতৃপক্ষের নিকট উক্ত প্রকল্পের আংশিক কিংবা সম্পূর্ণ বসবাস বা ব্যবহার সনদপএেরজন্য আবেদন করিবেন এবং কতৃপক্ষের নিকট হইতে আংশিক বা সম্পূর্ণ বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ লাভ করিবার পূর্ব পর্যন্ত উক্ত ইমারত বা কাঠামো আংশিক কিংবা সম্পূর্ণ কোন অবস্থাতেই ব্যবহার করা যাইবে না । ২) নিয়োজিত কারিগরী ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গ নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০২) এর মাধ্যমে প্রত্যয়নপএ প্রদান করিবে এবং উক্ত প্রত্যয়নপএে নির্মাণ কাজ নির্ধারিত নিয়ম অনুযায়ী তাহার বা তাহাদের তদারকীতে সম্পন্ন হইয়াছে ইহার উল্লেখ থাকিবে । ৩) নিযুক্ত কারিগরী ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গ তাহার দায়িত্ব পালনকালীন সময়ে যে যে কাজের তদারকী করিয়াছেন তাহার তদারকী প্রতিবেদন দাখিল করিতে হইবে । ৪) কতৃপক্ষ আবেদনকারী ও কারিগরী ব্যক্তিগণের উপস্থিতিতে আবেদনপএ প্রাপ্তির ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে ইমারতটি পরিদর্শন করিবে । ৫) ইমারতটি অনুমোদিত নকশা মোতাবেক নির্মিত হইয়াছে কিনা তাহা পরীক্ষান্তে লিপিবদ্ধ করা হইবে এবং পরিদর্শনের ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৩) এর মাধ্যমে সম্পূর্ণ ইমারতের নকশা অনুমোদনসহ বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ প্রদান করা হইবে । ৬) ইমারত বা প্রকল্পটি অনুমোদিত নকশার ব্যত্যয় ঘটাইয়া নির্মাণ করা হইলে কতৃপক্ষ উহা ব্যবহারের জন্য কোন সনদপএ প্রদান করিবে না এবং সেই ক্ষেএে কতৃপক্ষ ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৪) এর মাধ্যমে বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ প্রদান না করিবার কারণ জানাইয়া দিবে এবং আবেদনকারীকে নির্দিষ্ট সময় নির্ধারণপূর্বক উক্ত ইমারতটি অনুমোদিত নকশা অনুযায়ী নির্মাণ করিবার প্রয়োজনীয় আদেশ প্রদান করিবে । ৭) আবেদনকারী উপ-বিধি (৬) এ বর্ণিত আদেশ অনুযায়ী সকল ধরণের ক্রুটি মেরামত করিয়া এবং অন্যান্য আরোপিত শর্ত, যদি প্রদান করা হয়, পালন করিয়া নির্ধারিত তারিখের মধ্যে বসবাস বা ব্যবহার সনদপএের জন্য নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৫) এর মাধ্যমে পুনঃআবেদন করিতে পারিবে । ৮) কতৃপক্ষ আবেদনকারীর পুনঃআবেদন বিবেচনা করিয়া নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৩) এর মাধ্যমে বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ প্রদানকরিবে বা নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৪) এর মাধ্যমে আবেদন প্রত্যাখান করিবে । ৯) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএের আবেদন প্রত্যাখান করা হইলে আবেদনকারী নগর উন্নয়ন কমিটির নিকট লিখিত আপিল আবেদন করিতে পারিবে এবং উক্ত কমিটি পর্যালোচনাপূর্বক বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ প্রদান অথবা প্রত্যাখানের বিষয়ে কতৃপক্ষকে নির্দেশনা প্রদান করিবে । ১০) আবেদনকারীর চাহিদামতে, প্রযোজ্যক্ষেএে আংশিক বসবাস বা ব্যবহারের জন্য বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ দেওয়া যাইবে । (২০) অনুমোদিত স্থাপত্য নকশার ভিওিতে নির্মিত ইমারতের নির্মাণ নকশা (As-built Architectural Drawing) : ১) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএের জন্য চার (৪) ফর্দ নির্মাণ নকশা দাখিল করিতে হইবে । ২) নির্মাণ নকশায় লে-আউট প্ল্যান, সকল তল বা ফ্লোরের প্ল্যান, সকল এলিভেশন, কমপক্ষে দুইটি Critical Section (একটি Vertical Circulation বরাবর) সহ অন্যান্য তথ্যাদির উল্লেখ থাকিতে হইবে এবং নির্মাণ নকশার সাইজ ও স্কেল পূর্বে অনুমোদিত স্থাপত্য নকশার অনুরূপ হইতে হইবে । ৩) নির্মাণ নকশার (As-built Architectural Drawing) সহিত নির্মিত ইমারতের এক ফর্দ মূল অনুমোদিত নকশা দাখিল করিতে হইবে । (২১) ইমারতের কাঠামো নকশা (Structural Design) : ১) এই বিধিমালার আওতায় তিলিকাভুক্ত ও আবেদনকারী কতৃক নিয়োজিত প্রকৌশলী কোড অনুযায়ী ইমারতের কাঠামো নকশা যথাযথ স্কেলে প্রণয়ন করিবেন । ২) প্রযোজ্য ক্ষেএে কোডে প্রদও নীতিমালা অনুযায়ী Seismic Design বিবেচনায় রাখিয়া কাঠামো নকশা প্রণয়ন করিতে হইবে । ৩) ইমারতের কাঠামো নকশায় নিন্মলিখিত বিষয়াদি অন্তর্ভূক্ত থাকিবে, যথা : (ক) সাইটের মৃওিকা ফরীক্ষার ভিওিতে ইমারতের বিস্তারিত ফাউন্ডেশন ডিজাইন; (খ) বেজমেন্ট দেয়াল, অন্যান্য দেয়াল, কলাম, বিম, মেঝে, ছাদ সহ সকল ফ্রেমিং মেম্বার এর পরিমাপ ও অবস্থান এবং ব্যবহূত নির্মাণ উপকরণের প্রয়োজনীয় কারিগরী তথ্যাদি; (গ) ভবনের পানির জলাধার, সেপটিক ট্যাংক ও বাহ্যিক সংযোগ বা সোকপিট, ইত্যাদির যাবতীয় নকশা; এবং (ঘ) ভূমি খনন বা পাইল বসানোকালে বা অনুরূপ ক্ষেএে সন্নিহিত সাইটের ক্ষতি রোধকল্পে ব্যবহৃত কাঠামোর নকশা ও কারিগরী তথ্য এবং কর্ম পদ্ধতি । (২২) ইমারত সেবা (Building Services) সংক্রান্ত নকশা : এই বিধিমালার আওতায় তালিকাভূক্ত ও আবেদনকারীকতৃক নিয়োজিত প্রকৌশলী কোড অনুযায়ী ইমারতের সেবা সংক্রান্ত নকশা যথাযথ স্কেলে প্রণয়ন করিবেন এবং ইমারতে ব্যবহূত সেবা সংক্রান্ত নিন্মলিখিত বিষয়াদি নকশায় অন্তভূক্ত থাকিবে, যথা : (ক) পানি সরবরাহ, পয়ঃনিষ্কাশন, ড্রেনেজ, গ্যাস সরবরাহ ইত্যাদির লে-আউট প্ল্যান ও নকশা; (খ) বৈদ্যুতিক স্থাপনা, সাব-স্টেশন, বৈদ্যুতিক সার্কিট ডায়াগ্রাম ইত্যাদির লে-আউট প্ল্যান, নকশা ও স্পেসিফিকেশন; (গ) শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ (যদি থাকে) ব্যবস্থার পরিকল্পনা, ডিজাইন ও লে-আউট, লিফট্ ও এসকেলেটর (যদি থাকে) স্থাপনের নকশা; এবং (ঘ) অন্যান্য সকল ইমারত সেবার বিস্তারিত নকশা । (২৩) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ নবায়ন : ১) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএের মেয়াদ হইবে প্রদানের তারিখ হইতে ৫ (পাঁচ) বৎসর এবং প্রতি ৫ (পাঁচ) বৎসর অন্তর ইহা নবায়ন করিতে হইবে । ২) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ নবায়নের জন্য নির্ধারিত ফি সহ নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৬) এর মাধ্যমে মেয়াদ উওীর্ণের অন্যূন ৯০ (নব্বই) দিন পূর্বে কতৃপক্ষের নিকট আবেদন করিতে হইবে এবং নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আবেদন না করিলে নবায়ন ফি এর ১০ (দশ) গুন পরিমান ফি জরিমানা হিসাবে প্রদান করিতে হইবে । ৩) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএের মেয়াদ উওীর্ণ হইলে সংশ্লিষ্ট ভবনের নির্মাণ অনুমোদন আপনা আপনি বাতিল বলিয়া বিবেচিত হইবে এবং উক্ত ভবনের পুনরায় নির্মাণ অনুমোদন গ্রহনের জন্য ফি এর ১০ (দশ) গুন ফি এবং আইন অনুযায়ী ইমারত নির্মাণ কমিটি কতৃক ধার্য্যকৃত জরিমানা প্রদান পূর্বক আবেদন করিয়া নির্মাণ অনুমোদনপএ গ্রহণ করিতে হইবে । ৪) উপ-বিধি (২) অনুযায়ী আবেদন প্রাপ্তির ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে কতৃপক্ষ আবেদনে উল্লিখিত ইমারত পরিদর্শন করিবে এবং পরিদর্শনকালে যদি কোন নিয়মের ব্যতিক্রম বা অননুমোদিত ব্যবহার সনাক্ত না হয় তাহা হইলে আবেদন মঞ্জুর করিয়া নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৭) এর মাধ্যমে বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ নবায়ন করিবে; অন্যথায় সনাক্তকৃত নিয়মের ব্যতিক্রম বা অননুমোদিত ব্যবহার লিপিবদ্ধ করিবে এবং উক্তরূপ অননুমোদিত ব্যবহার বা ব্যতিক্রমের জন্য নবায়নের আবেদন নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৮) এর মাধ্যমে প্রত্যাখান করতঃ আবেদনকারীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করিবে। ৫) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ নবায়নের আবেদন প্রত্যাখান হইলে আবেদনকারী নগর উন্নয়ন কমিটি বরাবরে লিখিত আপিল আবেদন করিতে পারিবে । (২৪) নির্মাণ ও নির্মাণ অনুমোদন সংশ্লিষ্ট সাধারন জ্ঞাতব্য বিষয় সমূহ : ১) ১৮ (আঠারো) মিটারের অতিরিক্ত উচ্চতায় এক বা একাধিক তলা বিশিষ্ট ইমারতে লিফট্ স্থাপন করিতে হইবে । ২) ইমারতের বিভিন্ন যান্ত্রিক ও বৈদ্যুতিক পরিসেবা যথা : আলোক ব্যবস্থা, বৈদ্যুতিক স্থাপনা, শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ, উওাপন, বায়ু চলাচল ব্যবস্থা, শব্দ নিয়ন্ত্রণ, শব্দ নিরোধ, লিফট্, এসকেলেটর, মুভিং ওয়াক সংক্রান্ত সকল প্রয়োজনীয় নকশা বিধি ৪১ এর আওতায় তালিকাভুক্ত সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি কতৃক প্রণীত হইতে হইবে । ৩) জেনারেটর, শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র, সাব-ষ্টেশন এবং অন্যান্য বৈদ্যুতিক ও যান্ত্রিক স্থাপনা হইতে উদগত শব্দ নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা রাখিতে হইবে এবং উপরোক্ত যন্ত্রাদি হইতে উৎপন্ন ধোঁয়া, পানি ইত্যাদি যাহাতে সাইটস্থ বা সন্নিহিত প্লটসমূহের সাধারণ বায়ূপ্রবাহে এবং আয়াস ও স্বাচ্ছন্দ্যকে ব্যাহত না করে তাহা নিশ্চিত করিতে হইবে । ৪) কর্তন বা ধ্বংস সাধনের জন্য অনুমোদনপ্রাপ্ত পাহাড়ের পাদদেশে টাফিং এবং ঢালকে স্ট্যাবিলাইজ করিয়া নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা করিতে হইবে এবং যে সমস্ত নালা বা খালের উৎস কর্তনের জন্য অনুমোদনপ্রাপ্ত পাহাড়ে সংযুক্ত, সেইসব নালা বা খালের উৎস মুখে স্পিলওয়ে, সিল্টট্র্যাপ ইত্যাদি নির্মাণ করিতে হইবে । ৫) পুকুর খনন করিতে হইলে সাইট সীমানা হইতে কমপক্ষে ৩ (তিন) মিটার দুরত্বে খনন করিতে হইবে, যাহার ঢাল পার্শ্ববর্তী সীমানা হইতে ৪৫ ডিগ্রী কোণের অধিক হইবে না । ৬) কোন এলাকা বা রাস্তা বরাবর বিদ্যমান এিমাএিক আকার, ঐতিহাসিক, স্থাপতিক পরিবেশগত কিংবা কৃষ্টিগত গুরুত্বের বিবেচনায় নগর উন্নয়ন কমিটি ইমারতের উচ্চতা, রং, নির্মাণ উপকরণ ইত্যাদি বিষয়ে নিয়ন্ত্রণ আরোপ করিতে পারিবে । (২৫) ইমারত অনুমোদনের বৈধতাকাল : ১) ইমারত নির্মাণ অনুমোদনপএের বৈধতার মেয়াদ হইবে ৩ (তিন) বৎসর এবং এই মেয়াকালের মধ্যে কমপক্ষে প্লিন্থ লেভেল পর্যন্ত নির্মাণ সম্পন্ন করিতে হইবে । ২) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণে ব্যর্থ হইলে নতুন করিয়া নির্মাণ অনুমোদনপএ গ্রহন করিতে হইবে । (২৬) অনুমোদিত নকশা সংশোধন : ১) অনুমোদিত নকশা সংশোধনের ক্ষেএে নিন্মলিখিত শর্ত পূরণ করিতে হইবে, যথা : (ক) কোন ইমারতের অনুমোদন হইয়া যাওয়ার পর নির্মাণ অনুমোদনপএের মেয়াদকালের মধ্যে যদি কোন পরিবর্তন বা পরিবর্ধনের প্রয়োজন হয়, তাহা হইলে ৮ (আট) কপি সংশোধিত নকশাসহ আবেদন করিতে হইবে; (খ) শুধুমাএ আভ্যন্তরীণ পুনর্বিন্যাসের বেলায় সর্বমোট মেঝের আয়তন, FAR, জমি আচ্ছাদনের পরিমাণ, বাইরের পরিসীমা এবং ভার্টিক্যাল সার্কুলেশন পদ্ধতি বা পথের অবস্থানগত পরিবর্তন না হইলে নতুন করিয়া অনুমোদনের প্রয়োজন হইবে না; (গ) কক্ষের উচ্চতায় পরিবর্তন ২০ সে.মি. এর মধ্যে হইলে কোন নতুন অনুমোদনের প্রয়োজন হইবে না যদি উচ্চতার সহিত জড়িত অন্যান্য বাধ্যবাধকতা যথাযথ থাকে; (ঘ) যদি অনুমোদনযোগ্য FAR, সেটব্যাক ও ভূমি আচ্ছাদনের সহিত সামঞ্জস্য রাখিয়া নির্মাণকালীন সময়ে ইমারতের মেঝের ক্ষেএফল পরিবর্তন বা পরিবর্ধনের প্রয়োজন হয়, তাহা হইলে বিধি ২৭ অনুযায়ী ফি নির্ধারণ হইবে; (ঙ) যদি সংশোধিত নকশা পুনঃঅনুমোদনের আগেই সংশোধিত অংশ নির্মিত হইয়া থাকে, এবং ঐসব পরিবর্তন যদি বিধিমালায় অনুমোদনযোগ্য হয়, তাহা হইলে মূল ফি এর অতিরিক্ত ১০ (দশ) গুণ ফি এবং আইন অনুযায়ী ইমারত নির্মাণ কমিটি কতৃক ধার্য্যকৃত জরিমানা প্রদান পূর্বক আবেদন করিয়া পুনরায় নির্মাণ অনুমোদনপএ গ্রহণ করিতে হইবে; ২) উপ-বিধি (১) এর দফা (ঘ) অনুযায়ী সংশোধন, বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ প্রদানের সময় ইমারতের নির্মিত নকশায় অনুমোদন প্রদান করা হইবে । ৩) এই বিধিমালা কার্যকর হইবার পূর্বে আইনানুগভাবে অনুমোদিত নকশার বৈধতা বহাল থাকিবে । (২৭) ইমারত নির্মাণ, পাহাড় কর্তন, পুকুর খননের জন্য অনুমোদন, সংশোধন ও পরিবর্তন ফি : ১) নতুন ইমারত নির্মাণের ক্ষেএে ফি পরশিষ্ট-৪ অনুযায়ী নির্ধারিত হইবে । ২) সংশোধন ও পরিবর্তনের ক্ষেএে- (ক) যদি মেঝের পরিমাণ বৃদ্ধি না পায় সেই ক্ষেএে উপ-বিধি (১) এ বর্ণিত ফি এর এক-তৃতীয়াংশ; এবং (খ) যদি মেঝের পরিমাণ বৃদ্ধি পায় সেই ক্ষেএে উপ-বিধি (১) প্রযোজ্য হইবে এবং অবশিষ্টাংশের ক্ষেএে উপ-বিধি ২(ক) প্রযোজ্য হইবে । ৩) ইমারত নির্মাণ অনুমতিপএের অতিরিক্ত সত্যায়িত অনুলিপি ও অন্যান্য দলিলের সত্যায়িত অনুলিপির প্রতিটি কপি ৫০০ (পাঁচশত) টাকা বিনিময় হারে সংগ্রহ করা যাইবে । ৪) পাহাড় কর্তন ও পুকুর খনন অনুমোদন, সংশোধন ও পরিবর্তন এর জন্য ফি পরিশিষ্ট-৪ অনুযায়ী হইবে । ৫) এই বিধিমালার অধীনে প্রদেয় সকল ফি ঢাকা মহানগর এলাকায় অবস্থিত বাংলাদেশ ব্যাংকের তফসিলভুক্ত যে কোন বাণিজ্যিক ব্যাংকের শাখা হইতে “চেয়ারম্যান, রাজধানী উন্নয়ন কতৃপক্ষ, ঢাকা” এর অনুকূলে পে-অর্ডার বা ব্যাংক ড্রাফটের মাধ্যমে প্রদান করিতে হইবে । (২৮) কতৃপক্ষের পরিদর্শন, কর্তব্য ও দায়িত্ব : কতৃপক্ষ বা কতৃপক্ষের নিকট হইতে ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোন কর্মকর্তা ইমারত বা প্রকল্পের কাজ সূর্যোদয় হইতে সূর্যাস্ত পর্যন্ত যে কোন সময়ে পরিদর্শন এবং অনুমোদিত ডিজাইন, রিপোর্ট ও স্পেসিফিকেশন অনুযায়ী কাজ চলিতেছে কিনা তাহা পরীক্ষা করিতে পারিবে । (২৯) বিজ্ঞপ্তি, স্থগিতকরণ অথবা অননুমোদিত কাঠামো ভিঙ্গিয়া দেওয়া, ইত্যাদি : ১) কতৃপক্ষ নির্মাণ কাজ স্থগিত করিতে, সঠিক পদ্ধতি প্রয়োগ করিতে অথবা কাঠামো ভাঙ্গিয়া ফেলিতে আদেশ করিতে পারিবে, যদি- (ক) যে কোন পর্যায়ে অনুমোদিত নকশা বর্হিভূত কাজ ধরা পড়ে; (খ) ইমারত তৈরির অনুমোদন অথবা বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএের নিয়ম ও শর্তসমূহ সরাসরি লংঘন করা হয়; এবং (গ) পাশ্ববর্তী জনগণের জীবন ও ধন-সম্পওির ক্ষতিসহ পরিবেশের জন্য হুমকির সৃষ্টি করে । (২) নির্মাণ অনুমতিপএ স্থগিত বা বাতিল করা যাইবে, যদি- (ক) সংশ্লিষ্ট জমি বা প্লটের বিষয়ে কোন আইনগত জটিলতা দেখা দেয়; (খ) অনুমোদনের শর্তাবলী ভঙ্গ করা হয়; (গ) আবেদন পএ বা অন্যান্য প্রযোজ্য ফরমসমূহে ভুল অথবা মিথ্যা তথ্য পরিবেশন করা হয়, এবং (ঘ) ইমারত ব্যবহারে অসামঞ্জস্যতা দেখা দেয় এবং অনুমোদিত নকশার বিধি বহিভূত পরিবর্তন করা হয় । (৩) কোন ইমারত নির্মাণ কাজ অবৈধ ঘোষণা করা হইলে তাহা আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান এবং ব্যাংক বা অর্থ বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানকে (প্রযোজ্য ক্ষেএে) কতৃপক্ষ স্বল্পতম সময়ের মধ্যে নোটিশ দিয়া অবহিত করিবে । (৪) যে সকল ইমারতকে অবৈধ ঘোষণা করা হইবে সেই সকল ইমারতের কোনরূপ সেবা প্রদান (Utility Services) না করিবার জন্য সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষকে অবহিত করা হইবে । তৃতীয় অধ্যায় : কমিটি (৩০) কমিটি গঠন : সরকার, সরকারি গেজেট প্রজ্ঞাপন দ্বারা এই বিধিমালার বিধানসমূহ প্রয়োগের উদ্দেশ্যে নিন্মরূপ এক বা একাধিক কমিটি গঠন করিতে পারিবে, যথা : (ক) ইমারত নির্মাণ কমিটি; (খ) বৃহদায়তন বা বিশেষ প্রকল্প অনুমোদন কমিটি; (গ) নগর উন্নয়ন কমিটি; এবং (ঘ) প্রয়োজনীয় অন্য যে কোন কমিটি । (৩১)ইমারত নির্মাণ কমিটি : আইনের Section 3 এর Sub-section (2) এর বিধান অনুযায়ী অথরাইজড্ অফিসারের ক্ষমতা প্রয়োগের জন্য এক বা একাধিক ইমারত নির্মাণ কমিটি গঠিত হইবে এবং কমিটির কার্য্যপরিধি উক্ত আইনের আওতায় নিয়ন্ত্রিত হইবে । (৩২) বৃহদায়তন বা বিশেষ প্রকল্প অনুমোদন কমিটি : (১) এই বিধিমালার আওতায় বৃহদায়তন বা বিশেষ ধরনের প্রকল্প অনুমোদনের জন্য কতৃপক্ষ একটি বৃহদায়তন বা বিশেষ প্রকল্প অনুমোদন কমিটি গঠন করিবে । (২) বৃহদায়তন বা বিশেষ প্রকল্প অনুমোদন কমিটি গঠন হইবে নিন্মরূপ, যথা : (ক) সদস্য পরিকল্পনা, রাজউক – সভাপতি (খ) নগর পরিকল্পনাবিদ (পরিচালক), রাজউক – সদস্য (গ) প্রধান প্রকৌশলী, রাজউক – সদস্য (ঘ) স্থাপত্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি (উপ-প্রধান স্থপতি পদমর্যাদার) – সদস্য (ঙ) ইন্সটিটিউট অব আর্কিটেক্টস বাংলাদেশ এর প্রতিনিধি – সদস্য (চ) ইন্সটিটিউশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ এর প্রতিনিধি – সদস্য (ছ) বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব প্ল্যানার্স এর প্রতিনিধি – সদস্য (জ) পরিচালক (উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ), রাজউক – সদস্য-সচিব ৩) প্রতিমাসে রাজউক ভবনে বৃহদায়তন বা বিশেষ প্রকল্প অনুমোদন কমিটির কমপক্ষে একটি সভা অনুষ্ঠিত হইবে । ৪) সভা অনুষ্ঠানের কমপক্ষে ১০ (দশ) দিন পূর্বে সদস্য সচিব জমির মালিকানা দলিল ব্যতীত অন্যান্য তথ্যাদি সহ ১ (এক) সেট করিয়া নকশা কমিটির প্রত্যেক সদস্যের নিকট প্রেরণ করিবে । ৫) কমিটির সভার জন্য কোরামের সদস্য সংখ্যা হইবে ৫ (পাঁচ) জন, কমিটির সকল সিদ্ধান্ত সর্বসম্মত হইতে হইবে । ৬) যথাযথভাবে আবেদনপএ দাখিলের ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) দিনের মধ্যে বিষয়টি নিষ্পওি করিতে হইবে । ৭) বৃহদায়তন বা বিশেষ প্রকল্প অনুমোদন কমিটি প্রয়োজনে অন্য যে কোন প্রতিষ্ঠান বা বিশেষজ্ঞের পরামর্শ গ্রহণ করিতে পারিবে ।

ট্যাগ