ওয়ালটনের ইউপিভিসি দরজা-জানালা বিক্রি শুরু

ইউপিভিসি (প্লাস্টিক) দরজা-জানালা তৈরি করছে ওয়ালটন। আধুনিক প্রযুক্তিতে তৈরি এ পণ্য আগুন, তাপ ও শব্দ প্রতিরোধক। মূল্য সাশ্রয়ী হওয়ায় দামও অনেকটাই সাশ্রয়ী।

ওয়ালটন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ইউপিভিসি (আনপ্লাস্টিসাইজড পলিভিনাইল ক্লোরাইড) জানালা-দরজা তৈরির জন্য গাজীপুরের চন্দ্রায় ওয়ালটন মাইক্রোটেক ইন্ডাস্ট্রিজে স্থাপন করা হয়েছে অত্যাধুনিক মেশিনারিজ। এসব মেশিনারিজ থেকে একদিকে ডাই-মোল্ড তৈরি হচ্ছে, অন্যদিকে তৈরি হচ্ছে উন্নতমানের দরজা-জানালা।

ওয়ালটনের প্রকৌশলী আতিকুর রহমান জানান, উন্নত বিশ্বে কাঠ ও অ্যালুমিনিয়াম ফেব্রিকেশনের বিকল্প হিসেবে ইউপিভিসি’র ব্যবহার বাড়ছে। কাঠের তুলনায় এটি হাজারগুণ ভালো, টেকসই এবং সাশ্রয়ী।

তিনি আরও জানান, ইউপিভিসি পানি, সূর্যের তাপ সহনীয় এবং নমনীয় (ফ্লেক্সিবিলিটি) করে তৈরি। উচ্চ প্রযুক্তির ল্যাবরেটরিতে এর কোয়ালিটি চেক করা হয়। এটি শব্দ প্রতিরোধী এবং ৪০ ডেসিবল পর্যন্ত শব্দ প্রতিরোধে সক্ষম, যা ঘুমের জন্য প্রতিরোধী ক্ষমতা ৩০ ডেসিবলের চেয়ে বেশি।

ওয়ালটনের বিপণন বিভাগের নির্বাহী পরিচালক এমদাদুল হক সরকার জানান, যুগোপযোগী প্রযুক্তি দেশে আসা প্রয়োজন। সময়ের সঙ্গে তাল মেলাতে ইউপিভিসি’র ব্যবহার যৌক্তিক। বিশেষ করে যেসব কক্ষে এয়ার কন্ডিশনার চলে, সেখানে এর মাধ্যমে বিদ্যুৎ সাশ্রয় হয়। মাঝখানে দুই স্তরের গ্লাস থাকায় এটি তাপ ও শব্দ অপরিবাহী। ফলে বাইরের গরম বা শব্দ ভেতরে প্রবেশ করতে পারে না। আবার ভেতরের ঠাণ্ডাও বাইরে যেতে পারে না।

ওয়ালটনের কর্মকর্তারা জানান, ওয়ালটনের ইউপিভিসি নিজে জ্বলে না। ফলে এটি অগ্নিনিরোধক, আগুন ছড়াতে পারে না। বড় অগ্নিকাণ্ড থেকে ভবনকে রক্ষা করে। পানিতে দীর্ঘদিন অটুট থাকে। এর উপর থেকে কার্যকরভাবে পানি সরে যায়। অভ্যন্তরীণ নিষ্কাশন পদ্ধতি উন্নতমানের। যে কোনো মাত্রার বাতাস প্রতিরোধী। ঝড়ো বাতাসেও সম্পূর্ণ অটুট থাকে। সুউচ্চ অট্টালিকা এবং সমুদ্র তীরবর্তী ঘরবাড়িতে ব্যবহারের উপযোগী। ফলে ঘর থাকে ধুলাবালিমুক্ত ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন।

এছাড়া ইউপিভিসি দরজা ও জানালা সীসামুক্ত পাউডার দিয়ে তৈরি, ফলে এটি পরিবেশবান্ধব। এতে ফাটল ধরে না, ফোসকা পড়ে না, বেঁকে যায় না। রক্ষণাবেক্ষণেও ঝামেলা নেই। সহজে আগুনে গলে না। মরিচা প্রতিরোধী। কাঠের ফ্রেমের মতো পচনশীল নয়, অ্যাসিড এবং ক্ষারজাতীয় দূষণ থেকে মুক্ত। কৃত্রিম রঙের প্রলেপ নেই। তাই রঙ উঠে যাওয়ার ভয় নেই।
 
প্রাথমিকভাবে ওয়ালটন প্লাজাগুলোতে এর স্যাম্পল পাওয়া যাবে। পরে ডিলার বা ডিস্ট্রিবিউটরদের মাধ্যমে বিপণন কার্যক্রম চলবে। ক্রেতারা অর্ডার দিলে বর্তমানে প্রয়োজনীয় সাইজ ও চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ করা হচ্ছে।

১৮ জুলাই থেকে ২০ জুলাই পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ফার্নিচার মেলায় স্টল নিয়েছে ওয়ালটন। সেখানে এসব পণ্য প্রদর্শিত হচ্ছে।

উল্লেখ্য, ওয়ালটন মাইক্রোটেকে প্রস্তুতকৃত ইউপিভিসি দরজা ও জানালা তৈরিতে ব্যবহৃত হচ্ছে বিশ্বের সেরা কাঁচামাল। এগুলো আসছে যুক্তরাষ্ট্র এবং সুইজারল্যান্ড থেকে।

সংশ্লিষ্টদের মতে, বাড়িঘরে আধুনিকতার ছোঁয়া দিতে ইউপিভিসি দরজা-জানালার ব্যবহার বাড়ছে। গত কয়েক বছরে অ্যালুমিনিয়ামের দাম বেড়ে গেছে। অ্যালুমিনিয়ামের বেশকিছু অসুবিধাও আছে, যা ইউপিভিসিতে নেই। ফলে বাংলাদেশে এর ভবিষ্যত উজ্জ্বল।

আগামী কয়েক বছরে এর ব্যাপক ব্যবহার শুরু হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। বর্তমানে আবাসন ব্যবসার সঙ্গে যারা জড়িত, তারা এটি ব্যবহার করছেন। দিন দিন চাহিদা এবং বাজার পরিধিও বাড়ছে।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *