Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

হ্যান্ড স

নির্মাণকাজ তথা কাঠের কাজে এই হস্তচালিত যন্ত্রটির ব্যবহার সর্বাধিক। প্রয়োজনীয় সাইজে কাঠকে কাটার জন্য এটি ব্যবহার করা হয়। একটি হাত করাতের প্রধান অংশগুলো নিম্নরূপ:

ক. হাতল (Handle)

খ. ব্লেড বা ফলক (Blade)

গ. টো (Toe)

ঘ. হিল (Heel)

ঙ. টিথ (Teeth)

বিভিন্ন কাজের উপযোগী বিভিন্ন করাতের আকার-আকৃতিও ভিন্ন ভিন্ন রকমের। নিম্নে কয়েকটি করাতের বর্ণনা দেওয়া হলো।

ক. ছে-করাত (Cross Cut Saw) : কাঠ বা বাঁশে আড়াআড়ি আটকে এ করাত ব্যবহৃত হয়। এটা লম্বায় ৪৫.৭ সে.মি. থেকে ৯৪.৮ সে.মি. হয়ে থাকে। এর দাঁতগুলো অক্ষের সাথে ৬০ থেকে ৭০ ডিগ্রি কোণে অবস্থান করে এবং কাটার সময় করাত কাঠের সাথে ৪৫ ডিগ্রি কোণে কাত করে কাটতে হয়। দাঁতের সামনের দিক ছুরির মতো। সামনের দিকে ঠেসে কাঠ কাটতে হয়। দাঁতগুলোকে ডানে বামে বাঁকিয়ে দেওয়া হয় এবং একে সাংগাল বলে।

চিত্র  : ক্রস কাট স।

খ. হাত করাত (Rip or Hand Saw) : এ করাত লম্বায় প্রায় ৬০ সে.মি. হয়। এটি দ্বারা কাঠের সাথে ৬০ ডিগ্রি কোণ করে কাটতে হয়। এর প্রতি সেন্টিমিটারে ২ থেকে ৩টি করে দাঁত থাকে। এ করাত হাতলের দিক হতে অগ্রভাগের দিকে ক্রমশ সরু হয়। দাঁতগুলো দাঁতের সামনের সরলরেখার সাথে লম্বভাবে বিন্যস্ত থাকে। আঁশ বরাবর কাঠ কাটতে এ করাত ব্যবহৃত হয়। ছে-করাতের মতো এরও সাংগাল দেওয়ার ব্যবস্থা থাকে।

চিত্র  : হাত করাত।

গ. আল করাত (Back or Tenon Saw) : এ করাত লম্বায় প্রায় ২৫ থেকে ৩০ সে.মি.। এর প্রতি সেমি. তে ৬টি করে দাঁত থাকে। আল করাতের বে্লডের উপরে হাতল থেকে অগ্রভাগ পর্যন্ত উপরে মোটা ভারী লোহার পাত লাগানো থাকে। কোণ কাটার জন্য এ করাত ব্যবহার করা হয। কাঠ কাটার সময় আটকে গেলে এর ব্লেড মোম দ্বারা ঘষে নিলে কাজ করা সহজ হয়।

চিত্র  : আল করাত।

ঘ. বাঁক করাত (Compass Saw) : একে সরু করাতও বলে। কাঠের ভিতর যখন অন্য করাত দ্বারা কাটা যায় না তখন বাঁক করাত ব্যবহার করা হয়। এ করাত লম্বায় প্রায় ৪৫ সে.মি. হয়। প্রতি সে.মিতে ৪ থেকে ৫টি দাঁত থাকে।

চিত্র  : বাঁক করাত ।

ঙ. ফিংগে করাত (Dovetail Saw) : এ করাত ফিংগে জোড় তৈরি করতে এবং সরু কাজে ব্যবহার করা হয়।

চ. গাছ করাত (Pit Saw) : আমাদের দেশে গ্রামেগঞ্জে এ করাত কাঠ, গাছের লগ বা গুঁড়ি কাটতে এবং চেরাই করতে ব্যবহৃত হয়। এটি লম্বায় ১.৮ মিটার বা তার বেশি হয়। হাতলের কাছে প্রস্থে প্রায় ৩০ সে. মি এবং অগ্রভাগে প্রায় ১৫ সে. মি হয়। এ করাত দিয়ে গাছ কাটতে অন্তত তিনজন লাগে। একজন হাতলের দিকে এবং অন্য দুইজন অগ্রভাগে থাকে। মাচার উপর কাঠ রেখে কাটার সময় নিচের দুইজন টান দিলে কাঠ কাটে। উপরের জন শুধু করাত টেনে উপরের দিকে তোলে। বিদ্যুৎ চালিত করাত কলের ব্যাপক প্রচলনের ফলে এর ব্যবহার ক্রমশ কমে আসছে।

ছ. চাবি করাত (Keyhole Saw) : কাঠের মধ্যে তালা-চাবির খাঁজ কাটতে এ করাত ব্যবহার হয়। এ জন্য এ করাতের নাম চাবি করাত। কাঠের ভিতরে ও দ্রুত বক্রভাবে খাঁজ বা ছিদ্র কাটতে এ করাত ব্যবহৃত হয়।

চিত্র : চাবি করাত।

জ. সার্কুলার স বা গোলাকৃতি করাত : গোলাকৃতি স ব্লেডকে বৈদ্যুতিক শক্তির সাহায্যে ঘুরিয়ে কম সময়ে এবং কম শ্রমে অধিক পরিমাণে কাঠ কাটা যায়। সার্কুলার স মেশিন বিভিন্ন প্রকার হয়ে থাকে।

ক. বেঞ্চ সার্কুলার (Bench Type Circular Saw)

খ. পোর্টেবল সার্কুলার (Portable Circular Saw)

নির্মাণ ক্ষেত্রে কাজের জায়গায় বা সাইটে পোর্টেবল সার্কুলার স সহজেই বহন করে নিয়ে যাওয়া যায়।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *