Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

Tag: material

টিম্বার, পর্ব-২

টিম্বার ও কাঠের মধ্যে পার্থক্য মূলত পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন ভাবে টিম্বার এবং কাঠকে বোঝানো হয়। কখনও কখনও দুটো এক অর্থে ব্যবহৃত হয়। তবে প্রকৌশল শিক্ষায় দু’টোকে একটু আলাদাভাবে দেখা হয়। নিম্নে এদের পার্থক্য দেওয়া হলো- টিম্বার কাঠ টিম্বারের তিন প্রকার অর্থ পাওয়া যায়। যথা- গাছের বা কাঠের প্রাপ্তি স্থানকে টিম্বার হিসেবে ধরা হয়। যে

কাঠ , পর্ব-২

বিভিন্ন প্রকার টিম্বারের ব্যবহারিক ক্ষেত্র কাঠের নাম ব্যবহারিক ক্ষেত্র সেগুন ঘরবাড়ির দরজা-জানালা, রেলগাড়ির বগি, জাহাজের পাটাতন ও আসবাবপত্র তৈরির কাজে। গর্জন ঘরবাড়ি, রেলের স্লিপার, ইনটেরিয়র ডেকোরেশনের কাজে। সুন্দরী পাইল, খুঁটি, বৈদ্যুতিক পোল, নৌকা তৈরির কাজে। শাল সেতু, স্লিপার, পাইল, ঘরবাড়ি ও জাহাজ নির্মাণের তৈরির কাজে।। কাঁঠাল দরজা-জানালা ও আসবাবপত্র তৈরির কাজে। গজারি ঘরের খুঁটি, পাইল,

টিম্বার, পর্ব-১

অনেক প্রাচীনকাল থেকে মানুষ বিভিন্ন প্রয়োজনে কাঠ ব্যবহার করে আসছে। কাঠ দিয়ে ঘর নির্মাণ থেকে শুরু করে সমুদ্রের জাহাজ পর্যন্ত নির্মাণ করা হতো। বর্তমানকালেও কাঠ নির্মাণকাজের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। এ অধ্যায়ে টিম্বার সম্বন্ধে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো। টিম্বার বৃক্ষ হতে গৃহ নির্মাণ, আসবাবপত্র তৈরী বা অন্যান্য প্রকৌশলগত কাজের উপযোগী যে কাঠ সংগ্রহ করা হয়

লোহা, পর্ব-২

রডের নম্বর ও আকার বাংলাদেশে বর্তমানে নিম্ন বর্ণিত রডগুলো বাজারে পাওয়া যায়। বার নম্বর রডের ব্যাস (মিমি) বার নম্বর রডের ব্যাস (মিমি) # ২ ৬ # ৭ ২২ # ৩ ১০ # ৮ ২৫ # ৪ ১২ # ৯ ২৮ # ৫ ১৬ # ১০ ৩২ # ৬ ২০ # ১১ ৩৫ ৩ সুতা বা

লোহা , পর্ব-১

লোহা (Iron) বর্তমান বিশ্বে বহুল ব্যবহৃত একটি নির্মাণ সামগ্রী হলো লোহা। শক্তি, ওজন, কাঠিন্যের মাত্রা, ঘাতসহতা ইত্যাদি গুণাবলী বিবেচনায় এর ব্যবহার যুক্তিসঙ্গত। দালানের কাঠামো, জাহাজের কাঠামো, ট্রাস, রেল সড়ক, শিল্পকারখানা, যন্ত্রপাতি, মেশিনারিজ, কংক্রিট রি-ইনফোর্সমেন্ট ইত্যদি ক্ষেত্রে লোহার ব্যবহার ব্যপক। লোহা খনিজ পদার্থ। এটি আকরিক থেকে পাওয়া যায়। এ অধ্যায়ে এম. এস. রড সম্বন্ধে বিস্তারিত আলোচনা

চুন ( লাইম )

বিভিন্ন নির্মাণ সামগ্রীতে চুন কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহৃত হয়। তাছাড়া দেয়ালের চুনকাম করতেও চুন ব্যবহৃত হয়ে থাকে। সিমেন্ট মসলার মতো চুন মিশ্রিত করেও চুর্ণক মসলা তৈরি করা যায়। সিমেন্ট তৈরিতে বিশেষ করে কম্পোজিট সিমেন্টে চুন একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। চুন সিমেন্টের প্রয়োজনীয় ক্যালসিয়াম সিলিকেট ও ক্যালসিয়াম আ্যালুমিনেট তৈরি করে। এতে চুনের পরিমাণ কম হলে সিমেন্টের শক্তি

সিমেন্ট, পর্ব – ১

নির্মাণ কাজে সিমেন্ট একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। বর্তমান যুগে উন্নতমানের অবকাঠামো নির্মাণের পেছনে যে জোড়ক পদার্থটির ভূমিকা সবচেয়ে বেশী তার নাম সিমেন্ট। এ জোড়ক পদার্থটির উপযোগীতা এত বেশী এবং ব্যবহার এত ব্যপক যে এর আবিষ্কার না হলে নির্মাণের ক্ষেত্রে মানব সভ্যতার বর্তমান পূর্ণতা প্রাপ্তি অসম্পূর্ণ থেকে যেত। বাংলাদেশে বর্তমানে প্রচুর সিমেন্ট কারখানা রয়েছে। বিদেশ থেকে আমদানিকৃত

পানি

পান করার উপযোগী যে কোনো পানি কংক্রিট তৈরির কাজে উপযুক্ত। তবে কোনো কোনো পানি পান না করা গেলেও নির্মাণকাজে ব্যবহার করা যায়। পানিতে অতিরিক্ত অপদ্রব্য শুধু জমাট বাঁধার সময় এবং কংক্রিটের শক্তি কমায় না বরং স্থায়িত্ব, রডে মরিচা ইত্যাদি সমস্যা দেখা দেয়। তাই নির্মাণকাজের জন্য পানির নির্বাচনও গুরুত্বপূর্ণ। ৪.১ নির্মান কাজে পানির ব্যবহার কংক্রিট তৈরী

পাথর

পাথর (Stone) আমাদের দেশে প্রাপ্ত পাথর সাধারণত রাস্তা তৈরি এবং স্টোন চিপস হিসেবে নির্মাণকাজে ব্যবহার হয়ে থাকে। সৌন্দর্যের জন্য যে পাথর ব্যবহৃত হয় তা বেশির ভাগ বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানিকৃত। এ অধ্যায়ে পাথর সম্পর্কে আলোচনা করা হলো। ৩.১ পাথর পাথর সাধারণ ভূ-ত্বক ও এর রূপান্তর বিশেষ। বহুবিধ খনিজ পদার্থের জটিল রাসায়নিক যৌগ হলো পাথর। পৃথিবী

বালি, পর্ব – ২

মোটা ও চিকন বালির পার্থক্য মোটা বালি চিকন বালি ৪ নং চালুনিতে চাললে কোনো অবশিষ্ট থাকবে না। ১৬ নং চালুনিতে চাললে কোনো অবশিষ্ট থাকবে না। সূক্ষ্মতার গুনাঙ্ক (F.M) ২.০০ এর বেশি। সূক্ষ্মতার গুনাংক (F.M) ১.৫ এর কম। কংক্রিটে ব্যবহার করা হয়। আস্তরের কাজে ব্যবহার করা হয়। বালির ব্যবহার বালি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নির্মাণসামগ্রী। নিচে বালির ব্যবহার