FAR এবং MGC আবাসিক বাড়ি এবং হোটেল এর জন্য

সারণী-৩ (ক)
ইমারতের জন্য রাস্তার স্বাভাবিক প্রস্থ, ফোর এরিয়া অনুপাত (FAR) এবং সর্বোচ্চ ভুমি আচ্ছাদন (MGC) ঃ
[Type: A (A১-A৫)আবাসিক বাড়ী ও হোটেল

 

প্লটের পরিমান
ব:মি: বা উহার নীচে

ইমারতের শ্রেণী- A৪) [১] 
(আবাসিক বাড়ি)

ইমারতের শ্রেণী- (A৫) [২]
(আবাসিক হোটেল)

ট্যাগ

সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং

সংজ্ঞা:

ডিজাইন, কনস্ট্রাকশন এবং রক্ষণাবেক্ষন এর প্রকৌশলী বিজ্ঞান।
প্রকৌশল জ্ঞান এর মা বলা হয়। সবচেয়ে পুরান, বড় এবং সকল প্রকৌশল জ্ঞানের সমন্বয়।

এর ভাগগুলি নিচে দেয়া হলো:

ড্যাম্প

সংজ্ঞা :

দেয়াল, ফ্লোর,ছাদ  ইত্যাদি দিয়ে বিল্ডিং এর মধ্যে পানি প্রবেশ করা এবং ভেজা ভেজা ভাব থাককে  ড্যাম্প বলে।

বিল্ডিং এর উপর এর প্রভাব:

  1. কাঠ নষ্ট করে

  2. ধাতুতে মরিচা ধরায়

  3. ইলেক্ট্রিক তার এর ইনসুলেশন নষ্ট করে

  4. কার্পেট ও আসবাবপত্র ক্ষয় হয়

  5. ওয়াল এবং মেঝেতে দাগ পড়ে

রঙ এর গঠন তন্ত্র

রঙ

ধাতু, কাঠ আথবা প্লাসটার কে রক্ষা করার জন্য রঙ ব্যাবহার করা হয়। সৌন্দর্য্য বৃদ্ধির জন্যও এটি ব্যাবহার করা হয়।

রঙ এর গঠন তন্ত্র

তৈল রঙ এর মৌলিক উপাদান :

কখন এবং কিভাবে রং করতে হয়

ধাপগুলো নিচে দেওয়া হল

১। সিলিং বা ছাদের তলা

আলোক উৎস থেকে শুরু করতে হবে, যেমন জানালা।

২। দেওয়াল

সিলিং একটি লাইন দিয়ে বাগ করতে হবে। তারপর উপর থেকে ১ বর্গ মিটার এলাকা উপর-নিচ করে রং করতে হবে।

৩। জানালা

ফ্রেম এর আগে শার্শি রং করতে হবে। প্রয়োজনে কাঁচ ঢেকে দিতে হবে।

৪।  দরজা

ফ্রেম আগে রং করতে হবে।

ট্যাগ

বার্নিশ, প্লাস্টার এবং ডিস্টেম্পার

বার্নিশ

এটি স্বচ্ছ তরল, যা রঙ এর মতই প্রতিরোধক হিসাবে কাজ করে। রঙ এবং বার্ণিশ এর মধ্যে পার্থক্য হলো, বার্ণিশ এর বস্তুর আসল রং দেখায় (যেই বস্তুর উপর দেয়া হয় এবং অনেক সময় কিছুটা পরিবর্তন ও চকচকে হয়)।

সাধারণত রঙ এর মধ্যে যেই উপাদান থাকে, বার্ণিশ এও একই উপাদান থাকে।

বার্ণিশ সাধারণত কাঠে ব্যাবহার করা হয়। সুকবা তৈল , রজন এবং থিনার দিয়ে তৈরি।

ভাল রঙ এর বৈশিষ্ট্য

১ টেকসই :

অবহাওয়ার কারণে রঙ এর বৈশিষ্ট ঠিক থাকবে। যেমন এর রঙ,  মসৃনতা এবং জীবনকাল দীর্ঘ সময় ধরে ঠিক থাকবে।

২ ছড়ানোর বা ঢাকার ক্ষমতা :

রঙ সব জয়গাই সমান ভাবে ছড়াবে। 

৩ পরিস্কার করার ব্যবস্থা :

পরিস্কার করার ক্ষমতা থাকবে। পরিস্কার করার সময় এর গুণাগুণ ঠিক থাকবে।

৪ পরিবেশ বান্ধব :

পরিবেশ বান্ধব হতে হবে যেন এর ব্যাবহার এ পরিবেশ এর কোনও ক্ষতি না হয়

৫ সৌন্দর্য্য :

অবশ্যই দেখতে সুন্দর হতে হবে। এর ব্যাবহার এর কারণে যেন দেখতে খারাপ না লাগে 

৬ বাস্তবিক এবং সাশ্রয়ী হতে হবে :

দাম অবশ্যই কম হতে হবে এবং ব্যাবহার উপযোগী হতে হবে।

ডাবলি রি-ইনফোর্সমেন্ট ডিজাইন পদ্ধতি

১ম ধাপ:

সিংলী বীম হিসাবে , চওড়া (b)ও উচ্চতা (h) অনুযায়ী Mu বের করতে হবে। যেখানে রড এর অনুপাত ধরতে হবে কোড অনুযায়ী সর্বোচ্চ যা আসে। মনে  ρ = ρmax 

Mu = Ø As fy (d - a/2)

a = As fy / 0.85 fc' b

যদি মূল এই Mu প্রয়োজনীয় দরকারী মোমেন্ট থেকে কম হয় তাহলে ডাবলী হিসাবে ডিজাইন করতে হবে।

২য়  ধাপ:

অতিরিক্ত মোমেন্ট বের করতে হবে-

ট্যাগ

আর সি সি (Reinforced cement concrete)

কংক্রিট ভঙ্গুর এবং চাপ বল অনেক। কিন্তু এর টন শক্তি খুব দুর্বল। যেহেতু টান বল দুর্বল তাই শক্তি বাড়ানো এবং টান শক্তি বৃদ্ধির জন্য এর ভেতরে স্টিল দেওয়া হয়। বন্ধন শক্তিশালী করার জন্য স্টিল এ প্রয়োজনীয় ডিফর্মেশন থাকতে হবে।  এই রিইনফরসমেনট বার দেওয়ার কারণে একে আর সি সি বলে। 

এর সুবিধা

  • তুলনামূলক এতে চাপ শক্তি বেশি থাকে

  • স্টিল এর চেয়ে ভাল আগুন প্রতিরোধক

  • রক্ষণাবেক্ষণ খরচ খুব কম এবং অনেকদিন টেকসই

  • বাঁধ, পিআর ও ফুটিং এ আর সি সি সবচেয়ে সস্তা

সি.বি.আর (ক্যালিফোর্নিয়া বিয়ারিং রেশিও) টেষ্ট

সংজ্ঞা:

মাটির ভার বহন ক্ষমতা জানার জন্য এই পরীক্ষা করা হয়। ক্যালিফোর্নিয়া হাইওয়ে ডিপার্টমেন্ট এই পদ্ধতি আবিস্কার করে। এটি স্ট্যান্ডার্ড উপাদান ও সাইটের উপাদানের মধ্য নির্দিষ্ট আকারের পিষ্টন ঢোকাতে প্রয়োজনীয় বলের অনুপাত। এটি শতকরা আকারে প্রকাশ করা হয়। রাস্তা নির্মাণের জন্য মাটির ক্ষমতা জানার জন্য এই পরীক্ষা। প্রাকৃতিক বা কমপ্যাক্টেড মাটিতে এই পরিক্ষা করা হয়।

ব্যবহুত যন্ত্রপাতি:

ট্যাগ