Card image cap
টাইলস এর এস্টিমেট
engr.tushar - 24 Nov 2016
টাইলস এর এস্টিমেট ১০০ এসএফটি নাকি সিএফটি হবে টাইলস এর এস্টিমেট ১০০ ....... ইউনিটে কি পরিমান মালামাল লাগে.... এবং কিভাবে বের করে একটু জানাবেন

Card image cap
রাজউক ইমারত নির্মাণ বিধিমালা - ২০০৮ পর্ব-৫
engr.tushar - 22 Nov 2016

(৫৪) রাস্তা ও ফুটপাথ :

১) ইমারতের নকশা অনুমোদনের ক্ষেএে নুন্যতম ৬ (ছয়) মিটার প্রশস্ত রাস্তা (ফুটপাথসহ) থাকিতে হইবে, তবে ইহা বিধি ৪৮(৩/৪/৫) ও ৫১(৯/১০) অনুযায়ী প্রাপ্য FAR এর জন্য প্রযোজ্য নহে।
২) অনুমোদিত ডিটেইলড এরিয়া প্ল্যানের অন্তভূক্ত কোন রাস্তা যদি ৬(ছয়) মিটারের (ফুটপাথসহ) কম প্রশস্ত হয় তাহা হইলে নতুন উন্নয়ন প্রকল্প, পরিবর্তন এবং পরিবর্ধনের আবেদনের সময় রাস্তার প্রস্থ ৬ (ছয়) মিটার করিবার জন্য প্রয়োজনীয় জমির অর্ধেক (উভয় দিকে সমপরিমাণ) সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের নিকট লিখিতভাবে হস্তান্তর করিবার অঙ্গীকার করিতে হইবে এবং এই হস্তান্তর প্রক্রিয়া সম্পন্ন হইবার পূর্বে ইমারত নির্মাণ অনুমোদনের জন্য আবেদন করা যাইবে, তবে আবেদন অনুমোদিত হইলেও এই হস্তান্তর প্রক্রিয়া সম্পন্ন না করা পর্যন্ত নির্মাণ কাজ শুরু করা যাইবে না ।
৩) রাস্তার জন্য জমির প্রযোজ্য অংশ হস্তান্তরের অঙ্গীকার করিবার পর প্রযোজ্য হ্রাসকৃত প্লটের আকারের উপর ভিওি করিয়া প্লটের FAR, প্রয়োজনীয় সেটব্যাক এবং সর্বোচ্চ ভূমি আচ্ছাদন হিসাব করিতে হইবে ।
৪) প্লট সংলগ্ন রাস্তাসমূহ ৬ (ছয়) মিটার পর্যন্ত প্রশস্ত করিবার ক্ষেএে যেই সকল দিকে রাস্তার জন্য জমি ছাড়িতে হইবে, সেই সকল দিকের জন্য রাস্তাসংলগ্ন জমি প্রতি ০.৩ মিটার করিয়া ছাড়িয়া দেওয়ার জন্য ০.০৫ করিয়া সর্বোচ্চ ০.২ পর্যন্ত FAR সুবিধা পাওয়া যাইবে এবং উক্ত FAR মূল FAR এর সহিত অতিরিক্ত হিসাবে যোগ করা যাইবে ।
৫) কতৃপক্ষের চাহিদা অনুযায়ী রাস্তা ৬ (ছয়) মিটারের বেশী প্রশস্ত করিবার জন্য অতিরিক্ত জমি ছাড়িয়া দিতে হইলেও শুধুমাএ রাস্তা ৬ (ছয়) মিটার পর্যন্ত প্রশস্ত করিবার জন্য ছাড়িয়া দেওয়া জমির FAR সুবিধা (প্রতিদিকের রাস্তার জন্য জমি ছাড়ার ক্ষেএে সর্বোচ্চ ০.২ পর্যন্ত FAR) পাওয়া যাইবে এবং মূল FAR হিসাব করিবার ক্ষেএে প্রস্তাবিত রাস্তার প্রশস্ততা বিবেচনা করা হইবে ও অতিরিক্ত FAR মূল FAR এর সহিত যোগ করা হইবে ।
৬) বেসরকারী প্রতিষ্ঠান কতৃক উন্নয়নকৃত হাউজিং এলাকা বা কমপ্লেক্সে আভ্যন্তরীণ রাস্তাসমূহের নুন্যতম প্রস্থ বেসরকারী আবাসিক প্রকল্পের ভূমি উন্নয়ন বিধিমালা-২০০৪ অথবা এতদসংক্রান্ত অন্যকোন বিধিমালার বিধানানুযায়ী হইতে হইবে এবং আবাসিক প্রকল্পের রাস্তা ৭.৬২ মি. এর চাইতে সর হইলে এবং উক্ত প্রকল্প অনুমোদিত হইয়া থাকিলেও ইমারতের নকশা অনুমোদনের সময় উহার প্রস্থ সঠিকভাবে সংশোধন করিয়া লইতে হইবে ।
৭) সারণী-৩ এ বিশেষিত হয় নাই এইরূপ জমির FAR নির্ধারণের জন্য রাস্তার প্রশস্ততা ৬ (ছয়) মিটার বা ততোধিক হইলে FAR এর মান ও ভূমি আচ্ছাদন হিসাব করিবার ক্ষেএে রাস্তার প্রস্থের ভিওিতে প্রাপ্য সর্বোচ্চ FAR, অথবা জমির পরিমাণের ভিওিতে প্রাপ্য FAR, দুইটির মধ্যে যেটি কম তাহাই প্রযোজ্য হইবে এবং উক্তরূপে নির্ণিত FAR এর মান যে ছকে প্রদর্শিত সেই ছকের সংশ্লিষ্ট ভূমি আচ্ছাদন প্রযোজ্য হইবে, তবে সারণী-৩ এর ছকে প্রদর্শিত রাস্তার চাইতে অধিক প্রশস্ত রাস্তার ক্ষেএে রাস্তার অতিরিক্ত প্রশস্ততার জন্য বিধি ৫১(১১) অনুযায়ী রাস্তার জন্য প্রাপ্য অতিরিক্ত FAR প্রযোজ্য হইবে।
৮) সকল নতুন সংযোগ সড়কের ক্ষেএে ফুটপাথের ব্যবস্থা থাকিতে হইবে ।
৯) প্লটের সন্মুখে সংলগ্ন রাস্তায় ফুটপাথ বর্তমান না থাকিলে কতৃপক্ষ আদেশ করিলে আবেদনকারীকে উহা তৈরী ও রক্ষণাবেক্ষন করিতে হইবে এবং সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ এই ব্যবস্থার জন্য প্রয়োজনীয় প্রণালী এবং পরিমাপ প্রদান করিবে ।

(৫৫) কিনারা সরলীকরণ:

১) অপরিকল্পিত এলাকাসমূহের ক্ষেএে দুই রাস্তার সংযোগস্থলে অবস্থিত প্লটের সীমানা দেয়াল বা বেড়ার কিনারা বর্তুলাকার, অথবা কিনারা হইতে নির্দিষ্ট দূরত্বে ও উচ্চতায় বিন্যস্ত হইতে হইবে যাহা রাস্তায় চলাচলকারীর নিরাপওার জন্য পর্যাপ্ত হইবে ।
২) অপরিকল্পিত এলাকাসমূহের ক্ষেএে দুই রাস্তার সংযোগস্থলের ব্যাসার্ধ রাস্তার প্রস্থ এবং ট্রাফিক প্যাটার্নের উপর নির্ভরশীল হইবে এবং এই কারণে কোণার জমির অংশের ১.৫ মিটার x ১.৫ মিটার পরিসরবিশিষ্ট জায়গা ভূমিতে ও উপরে খালি রাখিতে হইবে এবং কোন নির্মাণ কার্য করা যাইবে না।

(৫৬) গাড়ী পার্কিং ব্যবস্থা :
১) বিভিন্ন ধরনের গাড়ী পার্কিং পরিসর ও গাড়ী ঘুরাইবার ব্যাসার্ধ নিন্মবর্ণিত ছক অনুযায়ী হইবে :

গাড়ীর ধরণ পার্কিং প্রস্থ (মিটার)  পার্কিং দৈর্ঘ্য (মিটার) গাড়ী ঘুরাইবার আভ্যন্তরীণ ব্যাসার্ধ (মিটার) বহিঃ ব্যাসার্ধ (মিটার)
সাধারণ গাড়ী(প্রতিটির জন্য) ২.৪ ৪.৬ ……… ………
বাস ও ট্রাক(প্রতিটির জন্য) ৩.৬ ১০.০ ৮.৭ ১২.৮
মাল্টি এক্সেল ট্রাক/লম্বা ট্রেলার (প্রতিটির জন্য) ৩.৬ ১৮.০ ৬.৯ ১৩.৮
২-চাকার মটরবাইক (প্রতিটির জন্য) ১.০ ২.০ ……… ………

২) সাধারণ গাড়ীর ড্রাইভওয়ের মাপ বিভিন্ন ধরণের পার্কিং এর জন্য নিন্মবর্ণিত ছক অনুযায়ী হইবে :

পার্কিং একমুখী ট্রাফিকএকদিকে যাবে একমুখী ট্রাফিকদুইদিকে যাবে দুইমুখী ট্রাফিক 
O ডিগ্রী ৩.৫ মি. ৪.০ মি. ৪.২৫ মি.
৪৫ ডিগ্রী ৪.০ মি. ৪.০ মি. ৪.২৫ মি.
৯০ ডিগ্রী ৪.২৫ মি. ৪.২৫ মি. ৪.২৫ মি.

নোট:
(ক) পাশাপাশি দুই বা ততোধিক সাধারণ গাড়ী পার্কিং এর ক্ষেএে পার্কিং এর বাধামুক্ত প্রস্থ প্রতি গাড়ীর জন্য ২.৩ মিটার প্রস্থ ধরিয়া ইহার গুনিতক হারে হিসাব করিতে হইবে ।
(খ) বাস ও ট্রাক, মাল্টি এক্সেল ট্রাক/লম্বা ট্রেলারের ড্রাইভওয়ের মাপ নির্ধারণের জন্য গাড়ী ঘুরাইবার আভ্যন্তরীণ ও বহিঃ ব্যাসার্ধের পরিমাপ বিবেচনা করিতে হইবে ।
(গ) সাধারণ গাড়ী ও ২-চাকার মটরবাইকের ক্ষেএে ঘুরাইবার আভ্যন্তরীণ ও বহিঃ ব্যাসার্ধের পরিমাপের উল্লেখের প্রয়োজন নাই।

৩) সাধারণ গাড়ির প্রবেশ ও নির্গমন পথ এক হইলেও পার্কিং এর প্রবেশপথের বাধামুক্ত প্রস্থ ৩ মিটারের কম হইবে না এবং এই প্রস্থের মধ্যে কোন ফুটপাথ বা অন্য কোন বাধা থাকিবে না, তবে উহা বিধি ৫১ (১০) এর বিধানানুযায়ী প্রযোজ্য রাস্তা সংলগ্ন প্লটের জন্য বিবেচিত হইবেনা।
৪) বাস ও ট্রাকের পৃথক প্রবেশ ও নির্গমন পথের প্রস্থ নূন্যতম ৪.২৫ মিটার ও একক প্রবেশ ও নির্গমন পথের ক্ষেএে ৬ মিটার হইবে।
৫) বৃহদায়তন প্রকল্প বা ইমারত অনুমোদনের জন্য দাখিলকৃত নকশাসমূহের ক্ষেএে নূন্যতম প্রয়োজনীয় পার্কিং স্থান নির্ণিত সারণী-৪ অনুযায়ী হইবে :

সারণী-৪
বিভিন্ন শ্রেণীর ভবনের জন্য নূন্যতম প্রয়োজনীয় পার্কিং স্থান

ভবনের ব্যবহার/বসবাসের ধরণ (Occupancy) নূন্যতম প্রয়োজনীয় পার্কিং ব্যবস্থা (Minimum Parking Requirements)
আবাসিক ভবন (Occupancy Type-A) একই পরিবার ভিওিক/রেঃ হাউজ/২০০ বঃমিঃ বেশী নয় এমন গ্রস ক্ষেএফল বিশিষ্ট অর্ধ বিচ্ছিন্ন (semidetached) আবাসিক ভবন ১টি কার পার্কিং
একই পরিবার ভিওিক/রেঃ হাউজ/২০০ বঃমিঃ উর্ধ্বে গ্রস ক্ষেএফল বিশিষ্ট অর্ধ বিচ্ছিন্ন (semidetached) আবাসিক ভবন ২টি কার পার্কিং
একাধিক পরিবার (Multi-family) ভিওিক আবাসিক ভবননের ক্ষেএে ২০০ বঃমিঃ এর অধিক গ্রস এরিয়া বিশিষ্ট ফ্ল্যাট প্রতি ইউনিটের জন্য ১টি কার পার্কিং
১৪০ বঃমিঃ উর্ধ্ব হইতে ২০০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়া বিশিষ্ট ফ্ল্যাট প্রতি ৩টি ইউনিটের জন্য ২টি কার পার্কিং
৯০ বঃমিঃ উর্ধ্ব হইতে ১৪০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়া বিশিষ্ট ফ্ল্যাট প্রতি ২টি ইউনিটের জন্য ১টি কার পার্কিং
৬০ বঃমিঃ উর্ধ্ব হইতে ৯০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়া বিশিষ্ট ফ্ল্যাট প্রতি ৪টি ইউনিটের জন্য ১টি কার পার্কিং
৬০ বঃমিঃ পর্যন্ত গ্রস এরিয়া বিশিষ্ট ফ্ল্যাট প্রতি ৮টি ইউনিটের জন্য ১টি কার পার্কিং
৯০ বঃমিঃ পর্যন্ত গ্রস এরিয়ার ফ্ল্যাট (কার পার্কিং এর জন্য অতিরিক্ত) প্রতি ৫টি ইউনিটের জন্য ১টি মোটর সাইকেল পার্কিং
হোটেল (স্টার শ্রেণীভুক্ত) প্রতি ৫টি গেষ্ট রুমের জন্য ১টি কার পার্কিং
হোটেল (অন্যান্য শ্রেণীভুক্ত) প্রতি ২০০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়ার জন্য ১টি কার পার্কিং
অন্যান্য প্রতি ৩০০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়ার জন্য ১টি কার পার্কিং
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (Occupancy Type-B) কিন্টারগার্ঢেন, প্রাথমিক বিদ্যালয়, উচ্চ বিদ্যালয়, মহা বিদ্যালয়, সহায়ক(Tertiary) শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, বিশ্ববদ্যালয় এবং অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতি ২০০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়ার জন্য ১টি কার পার্কিং। স্কুল চওরের মধ্যে রাস্তার সমান্তরালে নীচ তলায় বাধামুক্ত ৪.২৫মিঃ প্রশস্ত ও ২৫মিঃ দৈর্ঘ্য ড্রপিং রে থাকিতে হইবে (সবার জন্য উন্মুক্ত) ২৫মিঃ কম দীর্ঘ মুখ বিশিষ্ট প্লটের জন্য প্লটের সম্পূর্ণ সন্মুখভাগ বাধামুক্ত ৪.২৫মিঃ প্রস্থ বিশিষ্ট ড্রপিং রে থাকিতে হইবে।
প্রাতিষ্ঠানিক (Occupancy Type-C) প্রতি ২০০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়ার জন্য ১টি কার পার্কিং
স্বাস্থ সেবা (Occupancy Type-D)হাসপাতাল, ক্লিনিক প্রতি ৫টি বেডের জন্য ১টি কার পার্কিং
চিকিৎসা গবেষণাগার প্রতি ১০০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়ার জন্য ১টি কার পার্কিং
অন্যান্য (চিকিৎসা বর্হিববভাগ, দলগত প্রাকটিস ইত্যাদি) প্রতি ২০০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়ার জন্য ১টি কার পার্কিং
ভবনের ব্যবহার/বসবাসের ধরণ (Occupancy) নূন্যতম প্রয়োজনীয় পার্কিং ব্যবস্থা (Minimum Parking Requirements)
সমাবেশ (Occupancy Type-E) সিনেমা প্রতি ৪০টি সিটের জন্য ১টি কার পার্কিং
থিয়েটার , অডিটোরিয়াম প্রতি ২০টি সিটের জন্য ১টি কার পার্কিং
বিবাহ/পার্টি সেন্টার প্রতি ১০০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়ার জন্য ১টি কার পার্কিং
ধর্মীয় স্থাপনা ৩০০ বঃমিঃ পর্যন্ত কমপক্ষে ১টি কার পার্কিং
৩০০ বঃমিঃ এর উর্ধ্বে প্রতি ১০০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়ার জন্য ১টি কার পার্কিং
অন্যান্য প্রতি ২০০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়ার জন্য ১টি কার পার্কিং
বাণিজ্যিক স্থাপনা (Occupancy Type-F) দোকান, ডিপার্টমেন্ট স্টোর প্রতি ২০০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়ার জন্য ১টি কার পার্কিং
রেষ্টুরেন্ট প্রতি ১০০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়ার জন্য ১টি কার পার্কিং
অফিস প্রতি ২০০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়ার জন্য ১টি কার পার্কিং
অন্যান্য প্রতি ২০০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়ার জন্য ১টি কার পার্কিং
শিল্প স্থাপনা (Occupancy Type-G)ষ্টোরেজ বিল্ডিং (Occupancy Type-H)   সকল স্থাপনার ক্ষেএে লোডিং আনলোডিং রে ব্যাতিতকমপক্ষে ১টি ট্রাক ও ১টি কার পার্কিং থাকিতে হইবে ।শিল্প স্থাপনা ও ষ্টোরেজ বিল্ডিং-এ প্রশাসনিক, বিক্রয় ইত্যাদি দপ্তর থাকিলে শুধু ঐ অংশের ক্ষেএে প্রতি ২০০ বঃমিঃ গ্রস এরিয়ার জন্য ১টি কার পার্কিং থাকিতে হইবে ।
নোট: ·        মিশ্র ব্যবহারের ক্ষেএে পার্কিং স্পেসের পরিমাণ ভবনের প্রতি তলার ব্যবহারের ধরণকে ভিওি ধরিয়া হিসাব করিতে হইবে । উক্ত ব্যবহারের ভিওিতে নির্ধারিত পার্কিং চাহিদার যোগফল মিশ্র ব্যবহারের মোট পার্কিং চাহিদা বলিয়া গণ্য হইবে ।·        একাধিক টাইপের ফ্ল্যাটের ক্ষেএে আলাদাভাবে প্রতিটি ফ্ল্যাটের জন্য প্রয়োজনীয় পার্কিং চাহিদার যোগফল মোট পার্কিং চাহিদা হিসেবে গণ্য হইবে ।·        পার্কিং স্পেসের চাহিদা ভগ্নাংশের ক্ষেএে ১ (একটি) পার্কিং হিসাব হইবে ।

·        নগর উন্নয়ন কমিটির সুপারিশক্রমে নিন্ম আয়ের আবাসিক এলাকার জন্য কতৃপক্ষ পার্কিং স্পেসের পরিমাণ কমাইতে পারিবে ।

·        ৯০ বঃ মিঃ এর কম ক্ষেএফল বিশিষ্ট ফ্ল্যাটের ক্ষেএে মোটর সাইকেল এবং কারের সমন্বয়ে পার্কিং হইতে পারিবে।

·        যে কোন ধরণের ভবনের জন্য নূন্যতম ১ (একটি) কার পার্কিং ব্যবস্থা থাকিতে হইবে ।

৬) অনুর্ধ্ব চারটি পর্যন্ত গাড়ির পার্কিং এর ক্ষেএে প্রয়োজনবোধে রাস্তা হইতে সরাসরি কৌণিক পার্কিং নিন্মবর্ণিত শর্তসমূহ পূরণ সাপেক্ষে দেওয়া যাইতে পারে, যথা:
(ক) উক্ত কৌণিক পার্কিং ৪৫ ডিগ্রীর মধ্যে হইতে হইবে;
(খ) বাসস্ট্যান্ডের ১৫মিটারের মধ্যে উক্ত পার্কিং হইবে না;
(গ) পথচারী পারাপারের চিহ্নিত জায়গার বা কোন মোড়ের ২৫মিটারের মধ্যে উক্ত পার্কিং হইবে না; এবং
(ঘ) উক্ত পার্কিং কোন অবস্থাতেই জাতীয় মহাসড়কে হইবে না ।

৭) কোন পার্কিং এলাকায় প্রবেশ বা নির্গমন পথের জন্য ফুটপাথ কাটাতে হইলে কতৃপক্ষের নির্দেশনা মোতাবেক পথচারীদের সুযোগ-সুবিধার দিকে লক্ষ্য রাখিয়া ফুটপাথের পরিবর্তন বা পরিবর্ধন করিতে হইবে এবং এইক্ষেএে নির্মাণব্যায় আবেদনকারী বহন করিবে ।
৮) পার্কি স্থানে রেম্প ব্যবহারের ক্ষেএে সর্বোচ্চ ঢাল ১:৮ হইবে এবং রেম্প শুরুর পূর্বে ৪.২৫ মিটার দীর্ঘ আনুভূমিক পথ থাকিতে হইবে, তবে ০.৭৫ মিটার পর্যন্ত প্রারম্ভিক উচ্চতায় উঠা বা নামার জন্য শর্ত প্রযোজ্য হইবে না ।
৯) প্রারম্ভিক উচ্চতায় উঠা বা নামার জন্য ( প্রযোজ্য ক্ষেএে সিড়িসহ) উপ-বিধি (৮) এ উল্লিখিত রেম্প সেটব্যাক অংশে নির্মাণ করা যাইবে এবং প্লটের সীমানা হইতে শুরু বা সীমানাতে শেষ হইতে পারিবে ।
১০) একমুখী গাড়ী চলাচলের রেম্পের ক্ষেএে নূন্যতম প্রস্থ ৩ মিঃ এবং উভয়মুখী গাড়ী চলাচলের রেম্পের ক্ষেএে নূন্যতম প্রস্থ সাধারণ গাড়ীর ক্ষেএে ৪.২৫ মিঃ এবং অন্যান্য ক্ষেএে ৬ মিঃ হইতে হইবে ।
১১) আবাসিক সাইটে নূন্যতম ১০০টি গাড়ী পার্কিং এবং অন্যান্য সাইটে ৫০টি গাড়ী পার্কিং স্থানের ক্ষেএে একটি আলাদা ট্রাফিক মার্জিন লেন ও হোল্ডিং বে ব্যবস্থা রাখিতে হইবে যাহাতে সংলগ্ন রাস্তায় ট্রাফিকের সহজ চলাচল কোন ভাবেই বিগ্ন না হয় ।
১২) পার্কিং স্থান এবং রেম্প এর বাধামুক্ত উচ্চতা কমপক্ষে ২.২৫ মিটার হইতে হইবে ।
১৩) ১০ মিটার পর্যন্ত সন্মুখপ্রস্থ বিশিষ্ট জমির ক্ষেএে শুধুমাএ একটি প্রবেশ ও একটি নির্গমন পথ থাকিতে পারিবে এবং জমির সন্মুখপ্রস্থ ১০ মিটারের অধিক হইলেও কতৃপক্ষ দুইটির অধিক প্রবেশ ও নির্গমনের অনুমতি নাও দিতে পারে ।
১৪) গাড়ী পার্ক করিবার জায়গা চলাচলের জন্য রেম্পের বিকল্প হিসাবে কার-লিফট স্থাপন করা যাইবে, তবে কার-লিফট এর প্রবেশ ও নির্গমন পথ বাধামুক্ত হইবে ।
১৫) পার্কিং পরিসরের লে-আউট প্ল্যান এমনভাবে হইতে হইবে যাহাতে প্রতিটি গাড়ী অন্যগাড়ীর জন্য সমস্যা সৃষ্টি না করিয়া ড্রাইভওয়ে অথবা সার্কুলেশন ক্ষেএ হইতে সরাসরি পার্কিং এ প্রবেশ ও বাহির হইতে পারে ।

(৫৭) মিশ্র উন্নয়ন (Mixed Use Development):

১) আবাসিক ব্যবহার বাণিজ্যিক ব্যবহারের সহিত মিশ্রিত হইলে FAR ও ভূমি আচ্ছাদন নির্ধারনের জন্য আবাসিক ব্যবহারের প্রযোজ্য বিধান কার্যকর হইবে এবং পার্কিং এর জন্য সারণী-৪ প্রযোজ্য হইবে ।
২) উপ-বিধি (১) এ বর্ণিত মিশ্র ব্যবহার ব্যতীত অন্য সকল মিশ্র ব্যবহার উন্নয়নের ক্ষেএে বিভিন্ন শ্রেণীর জন্য প্রযোজ্য বিধানাবলীর কঠোরতমটি (Stringent Requirements) যেমন- সর্বনিন্ম FAR, FAR এর ছকের নির্দিষ্ট ভূমি আচ্ছাদন, সেটব্যাক, ইত্যাদি প্রযোজ্য হইবে, তবে কোন একটি শ্রেণী ফ্লোর এরিয়ার ৯০% বা উহার অধিক (পার্কিং বাদে) হইলে উক্ত বিশেষ ব্যবহার সংক্রান্ত বিধান উক্ত ক্ষেএে প্রযোজ্য হইবে এবং পার্কিং এর জন্য সারণী-৪ প্রযোজ্য হইবে।
৩) যে সকল জমি প্রশস্ত রাস্তা থাকিবার কারণে আবাসিক হইতে মিশ্র ব্যবহারে রূপান্তর করা হইয়াছে, সেইসব জমিতে অনাবাসিক ব্যবহারের জন্য গাড়ীর প্রবেশ এবং নির্গমন কেবলমাএ উক্ত প্রশস্ত রাস্তা হইতে হইবে । এই ধরনের মিশ্র ব্যবহার যদি কর্ণার প্লটে হয় তাহা হইলে আবাসিক ব্যবহারের জন্য যে কোন রাস্তা ব্যবহার করা যাইবে ।
৪) আবাসিক জমি সংলগ্ন জমিতে মিশ্র ব্যবহার ইমারত নির্মাণের ক্ষেএে, আবাসিক জমির দিকে সীমানা হইতে ২.৫ মিটার সেটব্যাক রাখিতে হইবে ।
৫) মিশ্র ব্যবহারের ক্ষেএে আবাসিক ব্যবহারের অংশে জানালা বা বারান্দা পার্শ্ববর্তী আবাসিক জমির দিকে দেওয়া যাইবে তবে অনাবাসিক ব্যবহারের অংশে পার্শ্ববর্তী আবাসিক জমির দিকে বারান্দা দেওয়া যাইবে না ।

(৫৮) ইমারতের পরিসরের নূন্যতম চাহিদা :
ইমারতের বিভিন্ন কক্ষ বা স্থানের আয়তন বা পরিসরের ক্ষেএে নিন্মলিখিত পরিমাপ ও শর্ত অনুসরণ করিতে হইবে, যথা:

(ক) বসবাসযোগ্য কক্ষ :
১) আবাসিক ভবনের বসত বাড়ীর প্রতিটি ইউনিট এর ক্ষেএে অন্তত একটি কক্ষ থাকিবে যাহার ক্ষেএফল ৯.৫ বর্গমিটার এবং প্রস্থ ২.৫ মিটার এর কম হইবে না এবং বসতবাড়িটির অন্যান্য বাসযোগ্য কক্ষসমূহের ক্ষেএে সর্বনিন্ম ক্ষেএফল ৫ বঃমি এবং নূন্যতম প্রস্থ ২ মিঃ হইতে হইবে; এবং
২) বসবাসযোগ্য কক্ষের নূন্যতম উচ্চতা ২.৭৫মিঃ হইবে এবং বীমের নীচে নূন্যতম ২.১৩মিঃ থাকিতে হইবে, তবে যদি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষ হয় নূন্যতম উচ্চতা ২.৪৪মিঃ হইতে পারিবে ।

(খ) রান্নঘর :
১) রান্নঘরের নূন্যতম ক্ষেএফল ৪ বঃমিঃ এবং প্রস্থ ১.৫ মিঃ হইবে, তবে এই এলাকা দেওয়াল দ্বারা আবদ্ধ হওয়ার বাধ্যবাধকতা নাই;
২) রান্নঘরের নূন্যতম উচ্চতা ২.৭৫মিঃ হইবে; এবং
৩) বাসগৃহের রান্নঘরের জানালা নূন্যতম ১ (এক) বঃমিঃ ক্ষেএফল ব্যাপিয়া সরাসরি অথবা সর্বোচ্চ ২.০মিঃ প্রস্থবিশিষ্ট বারান্দার মাধ্যমে বহিঃপরিসর অথবা আভ্যন্তরীণ অঙ্গন বা আঙ্গিনা বা উঠান এর সাথে খোলা থাকিতে পারিবে । যথাযথভাবে শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ও যান্ত্রিক উপায়ে বায়ুপ্রবাহের ব্যবস্থা থাকিলে বাসগৃহ ব্যতীত অন্যান্য ক্ষেএে বর্হিদেয়ালে জানালা না থাকিলেও চলিবে ।

(গ) গোসলখানা ও টয়লেট :
১) বেসিন, ওয়াটার ক্লোজেট (Water Closet) এবং গোসলের স্থান সম্বলিত টয়লেট এর ক্ষেএে নূন্যতম ফ্লোর এরিয়া ২.৭৫বঃমিঃ এবং নূন্যতম প্রস্থ ১.০০মিঃ হইবে;
২) বেসিন ও ওয়াটার ক্লোজেট (Water Closet) সম্বলিত টয়লেট এর ক্ষেএে নূন্যতম ফ্লোর এরিয়া ১.২০বঃমিঃ এবং নূন্যতম প্রস্থ ১.০০মিঃ হইবে;
৩) বেসিন এবং গোসলের স্থান সম্বলিত টয়লেট এর ক্ষেএে নূন্যতম ফ্লোর এরিয়া ১.৫বঃমিঃ এবং নূন্যতম প্রস্থ ১.০০মিঃ হইবে;
৪) ওয়াটার ক্লোজেট (Water Closet) এবং গোসলের স্থান সম্বলিত টয়লেট এর ক্ষেএে নূন্যতম ফ্লোর এরিয়া ২.৫বঃমিঃ এবং নূন্যতম প্রস্থ ১.০০মিঃ হইবে;
৫) বাথরুম এর উচ্চতা ২.১৩মিঃ এর কম হইতে পারবেনা এবং এই উচ্চতা ফিনিসড্ ফ্লোর হইতে ফিনিসড্ সিলিং বা ফলস্ সিলিং পর্যন্ত অথবা উপরের ফ্লোর এর প্লাম্বিং সিস্টেম এর ট্রাপ বা অন্যান্য পাইপ লাইনের নীচ পর্যন্ত পরিমাপকৃত হইবে; এবং
৬) গোসলখানা বা টয়লেট এর জানালা নূন্যতম ০.৩৭ বঃমিঃ ক্ষেএফল ব্যাপিয়া আভ্যন্তরীন আঙ্গিনা, বহিঃপরিসর বা যে কোন এয়ারওয়েল বা লাইটওয়েল এর সহিত সরাসরি খোলা থাকিতে হইবে তবে যদি যথাযথভাবে শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ও যান্ত্রিক উপায়ে বায়ুপ্রবাহের ব্যবস্থা থাকে তবে জানালা না থাকিলেও চলিবে।

(ঘ) সিড়ি :
১) বিভিন্ন ধরণের সিড়ির প্রতি ফ্লাইটের বাধামুক্ত নূন্যতম প্রশস্ততার পরিমাপ নিন্মবর্ণিত ছক অনুযায়ী নির্ণীত হইবে-
সিড়ির নূন্যতম বাধামুক্ত প্রস্থ :

ভবনের শ্রেণী সিড়ির নূন্যতম প্রস্থ (মিটার)
A. আবাসিকA1. একক পরিবার বাড়ীA2. এপার্টমেন্ট ও ফ্ল্যাট বাড়ীA3. মেস, হোটেল

A4. নিন্মবিওের বাড়ী

A5. আবাসিক হোটেল

১.০০১.১৫১.২৫

***

১.২৫

B. শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ১.৫০
C. প্রাতিষ্ঠানিক ১.৫০
D. স্বস্থসেবা ২.০০
E. সমাবেশ ২.০০
F. বাণিজ্যিক ভবনF1. অফিসF2. ছোট দোকান এবং বাজারF3. বড় দোকান এবং বাজার

F4. নিত্য প্রয়োজনীয় অন্যান্য সেবা

১.৫০১ .৫০২.০০

১.৫০

অন্যান্য ১.২৫
                                                      *** বিধি ৫৮ (ঘ) (১০) অনুযায়ী হইবে । ***

২) সিড়ির রাইজার ও ট্রেডের পরিমাপ এমন হইবে যেন একটি রাইজার ও একটি ট্রেডের যোগফল কমপক্ষে ৪০০মিঃমি হয় এবং রাইজারের সর্বোচ্চ মাপ ১৭৫মিঃমি এবং ট্রেডের সর্বনিন্ম মাপ ২২৫মিঃমি হয়;
৩) নোজিং বা হেলানো রাইজার এর কারণে বৃদ্ধিপ্রাপ্ত মাপ ট্রেডের মাপের মধ্যে গণ্য করা যাইবে এবং সিড়ির একটি ফ্লাইটের মধ্যে সর্বোচ্চ ও সর্বনিন্ম মাপের রাইজার এবং সর্বোচ্চ ও সর্বনিন্ম মাপের ট্রেডের মধ্যে পার্থক্য উভয় ক্ষেএে গড় মাপের ২শতাংশের বেশী হইবে না;
৪) সিড়ির যে কোন একটি ফ্লাইটে মোট ধাপের সংখ্যা সর্বোচ্চ ২০ এর মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকিতে হইবে;
৫) সিড়ির ফ্লাইটসমূহের অন্তবর্তী সর্বনিন্ম উচ্চতা (Head Room) ২.১৫মিটার হইতে হইবে;
৬) সিড়ি ঘরের যে কোন ল্যান্ডিং এর তলার প্যাসেজ, যাহা অবাসযোগ্য নয় এইরূপ সার্ভিস স্পেসকে যুক্ত করে তাহার সর্বনিন্ম উচ্চতা ২.১০ মিটার হইবে এবং ল্যান্ডিং এর তলার অন্য সকল প্যাসেজ ও স্পেস এর নূন্যতম উচ্চতা ২.১৫ মিটার হইতে হইবে;
৭) সিড়ির রেলিং এর নূন্যতম উচ্চতা ০.৯০ মিটার হইবে এবং এই মাপ সিড়ির ধাপের নোজ হইতে রেলিং এর উপরিতল পর্যন্ত উলম্ব দৈর্ঘ্য বোঝাইবে এবং শিশুরা যদি এই সিড়ি ব্যবহার করে তবে ব্যালাসট্রেড ডিজাইন শিশুদের জন্য যথেষ্ট নিরাপদ হইতে হইবে;
৮) ল্যান্ডিং এর গভীরতা (depth) যে কোন লেভেলে নূন্যতম সিড়ির প্রস্থের সমান হইতে হইবে;
৯) ছাদের সিড়িঘরের নূন্যতম উচ্চতা ২.১০ মিঃ হইতে হইবে;

১০) প্রতি তলায় সর্বাধিক দুইটি বসতবাড়ী ইউনিট এর জন্য ব্যবহৃত হইতেছে এমন সিড়ির প্রতি ফ্লাইটের জন্য সর্বনিন্ম বাধামুক্ত প্রস্থ নিন্মরূপ হইবে-
দুই তলা ইমারত – ০.৭৫ মিটার
তিন তলা ইমারত – ০.৮০ মিটার
চার তলা ইমারত – ০.৯০ মিটার
চার তলার অধিক ইমারত – ১.০০ মিটার

(ঙ) আবাসিক ভবনে কক্ষের উচ্চতার হিসাব ও অন্যান্য মাপসমূহ :
১) মেঝের উপরের ফিনিসড্ তল হইতে ছাদের নীচের ফিনিসড্ তল পর্যন্ত কক্ষের উচ্চতা হিসাব করা হইবে;
২) ক্ষেএমত কক্ষ বা স্পেসের নূন্যতম বাধামুক্ত উচ্চতা নিন্মরূপ হইবে, যথা :

  • বাথরুম, ল্যাভেটরী, টয়লেট, পোর্চ, বেলকনি ইত্যাদি ২.১৩ মিঃ পর্যন্ত;
  • আবাসিক ভবন সমূহের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত নয় এমন বসবাসযোগ্য কক্ষ, রান্নঘর, ষ্টোররুম, ইউটিলিটি রুম, বক্সরুম এর ছাদ নূন্যতম ২.৭৫ মিঃ উচ্চতায় থাকিতে হইবে যাহা ফিনিসড্ ফ্লোর লেভেল হইতে ছাদের অথবা ফলস্ ছাদের সর্বনিন্ম তল পর্যন্ত বুঝাইবে, তবে এই ধরণের বাসযোগ্য কক্ষের ক্ষেএে মেঝের ক্ষেএফলের এক তৃতীয়াংশ পরিমাণ এলাকায় সর্বনিন্ম ২.৪৪ মিঃ উচ্চতা রাখা যাইবে এবং শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষের ক্ষেএে নূন্যতম উচ্চতা ২.৪৪ মিঃ হইতে হইবে;
  • ঢালু ছাদের ক্ষেএে যেইখানে সিলিং নাই সেইখানে মেঝে হইতে ছাদের সর্বনিন্ম তল নূন্যতম ২ মিটার উচু হইতে হইবে এবং এই ক্ষেএে গড় উচ্চতা ২.৪৪ মিঃ এর কম হইতে পারিবে না;
  • ছাদ, ফোল্ডেড পেট, শেল ইত্যাদি এবং ফলস্ সিলিং এর নীচে অথবা শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষে ফলস্ সিলিং না থাকিলে ডাক্ট এর নীচে মেঝে হইতে নূন্যতম উচ্চতা ২.৪৪ মিঃ হইতে হইবে;
  • আবাসিক নয় এমন ইমারত এর ক্ষেএে ছাদের নিন্ম তলের উচ্চতা নির্ধারণের প্রয়োজনীয় শর্তসমূহ নিন্মক্ত ছক অনুযায়ী হইতে হইবে-
ভবনের শ্রেণী নূন্যতম ছাদের উচ্চতা
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, প্রাতিষ্ঠানিক, বাণিজ্যিক, স্বাস্থ্য সেবা, সমাবেশ কক্ষ, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক, ধর্মীয় ভবন শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত নয় এমন ভবনের ক্ষেএে ৩মিঃ এবং শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ভবনের ক্ষেএে ২.৬মিঃ
শিল্প কারখানা, গুদাম ঘর, বিপদজনক ভবন, বিবিধ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত নয় এমন ভবনের ক্ষেএে ৩.৫মিঃ এবং শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ভবনের ক্ষেএে ৩মিঃ

(চ) কমিউনিটি স্পেস :
১) FAR এর আওাভুক্ত সর্বমোট ৩০০০ (তিন হাজার) বর্গ মিটারের অধিক ক্ষেএফল বিশিষ্ট আবাসিক ভবনে বসবাসকারীদের ব্যবহারের জন্য FAR ভূক্ত ও বসবাসের জন্য ব্যবহৃত ক্ষেএফলের (সিঁড়ি, লিফট্, লিফট্ লবী ইত্যাদিও ক্ষেএফল বাদে) নূন্যতম ৪% জায়গা বিভিন্ন সামাজিক সন্মেলন অনুষ্ঠানের জন্য নির্দিষ্ট করিয়া রাখিতে হইবে । অগ্নি-নিরাপওার বিষয়ে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করিয়া Exit এর ববস্থা ও শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা থাকিলে এই কমিউনিটি স্পেস বেসমেন্টে হইতে পারিবে; এবং
২) ১৩০০ (এক হাজার তিনশত) বর্গমিটার বা ততোধিক সাইজের আবাসিক জমিতে এ্যাপার্টমেন্ট নির্মাণ করিতে চাহিলে সম্পূর্ণ জমির অন্তত ১০% জায়গা উক্ত এ্যাপার্টমেন্টের বসবাসকারীগণের খেলার জায়গা হিসাব রাখিতে হইবে, যাহার অর্ধেক আচ্ছাদিত এলাকায় হইতে পারিবে, কিন্তু কোন রকম দেওয়াল দ্বারা আবদ্ধ করা যাইবে না এবং ইহা FAR এর হিসাবে অন্তর্ভূক্ত হইবে না ।

৬ষ্ঠ অধ্যায়
স্বাস্থ ও নিরাপওা
(৫৯)স্বাস্থ ও নিরাপওা :

(ক) আলো ও বায়ুপ্রবাহ :
১) প্রত্যেকটি ইমারতে জানালা, স্কাইলাইট (Skylight), ফ্যানলাইট (Fanlight) ও দরজার মাধ্যমে অথবা অন্য যে কোন প্রাকৃতিক উপায়ে স্বাভাবিক আলো-বাতাসের প্রবাহ রাখিতে হইবে;
২) আবাসিক বা বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহৃত কক্ষের জানালার ক্ষেএফল ঐ কক্ষেও মেঝের ক্ষেএফলের নূন্যতম ১৫% এর সমান হইতে হইবে, যাহার কমপক্ষে অর্ধেক খোলা থাকিতে হইবে, তবে রান্নাঘর, টয়লেট, ইত্যাদির ক্ষেএে বিধি ৫৮(খ) ও বিধি ৫৮(গ) এর বিধান মানিতে হইবে;
৩) যদি ইমারতে যথাযথ শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ, যান্ত্রিক বায়ুপ্রবাহ এবং কৃএিম আলোর ব্যবস্থা থাকে, সেইসব ক্ষেএে প্রাকৃতিক উপায়ে আলো ও বায়ুপ্রবাহের ব্যবস্থা না থাকিলে চলিবে;
৪) বেসমেন্টে সকল ধরণের প্রয়োজনীয় আলো, পানি ও বর্জ্য নিষ্কাশন ও বায়ুপ্রবাহের (প্রাকৃতিক বা কৃএিম) ব্যবস্থা নিশ্চিত করিতে হইবে এবং বায়ুপ্রবাহের ক্ষেএে প্রতিটি বেসমেন্টে পৃথক ব্যবস্থা থাকিতে হইবে;
৫) যদি কোন বসবাসযোগ্য কক্ষের আলো ও বাতাসের প্রধান উৎস আভ্যন্তরীণ অঙ্গন বা আঙিনা বা উঠান হয়, তবে তাহার মাপ নিন্মবর্ণিত ছক অনুযায়ী হইতে হইবে-

                             আভ্যন্তরীণ অঙ্গন বা আঙিনা বা উঠানের নূন্যতম ক্ষেএফল

                                                            (বসবাসযোগ্য কক্ষের জন্য)

তলার সংখ্যা সর্বোচ্চ উচ্চতা (মিঃ) আভ্যন্তরীণ উঠান বা অঙ্গনের নূন্যতম নেট ক্ষেএফল (বর্গ মিঃ)
৩ পর্যন্ত ১১
১৪ ১৬
১৭ ২৫
২০ ৩৬
২৩ ৪৯
২৬ ৬৪
২৯ ৮১
১০ ৩২ ১০০
১১ ৩৬ ১২১
১২-১৩ ৪২ ১৪৪
১৪-১৫ ৪৮ ১৯৬
১৬-১৭ ৫৪ ২৫৬
১৮ এবং তদূর্ধ্ব ৬৩ এবং তদূর্ধ্ব ৩৬১
আভ্যন্তরীণ উঠানের পরিমাপের ক্ষেএে ক্ষুদ্র বাহুর দৈর্ঘ্য বৃহওর বাহুর দৈর্ঘ্যের এক তৃতীয়াংশের কম হইবে না ।

৬) টয়লেটের জানালা আভ্যন্তরীণ অঙ্গন বা আঙিনা বা উঠান, আভ্যন্তরীণ এয়ারওয়েল বা লাইটওয়েল এবং বায়ু চিমনীতে খুলিতে পারিবে;
৭) স্বাভাবিক আলো এবং বায়ু চলাচলের মাএা ও মানের জন্য নিন্মবর্ণিত ছক অনুসরণ করিতে হইবে;

                                 আভ্যন্তরীণ এয়ারওয়েল বা লাইটওয়েল এর নূন্যতম মাপসমূহ

                                       (গোসলখানা, টয়লেট ও ওয়াটার ক্লোজেটের জন্য)

                             ভবনের উচ্চতা শ্যাফটের নূন্যতম নেট ক্রস সেকশন ক্ষেএফল (বর্গ মিঃ)  শ্যাফটের নূন্যতম প্রস্থ(মিটার)
তলা ডিজাইনের
৩ পর্যন্ত ১১ ১.৫ ১.০
১৪ ৩.০ ১.২
১৭ ৪.০ ১.৫
২০ ৫.০ ২.০
৬ তলার উর্ধ্বে ২০ মিটারের উর্ধ্বে ৬.৫ ২.৫
দ্রষ্টব্য :১) যান্ত্রিক বায়ু চলাচল ব্যবস্থা থাকিলে শ্যাফটের মাপসমূহ যান্ত্রিক ডিজাইনের প্রয়োজনের ভিওিতে নিশ্চিত করিতে হইবে।
২) ভবনের বহিরাঙ্গনে সংস্থানকৃত এয়ারওয়েল বা লাইটওয়েল এর ক্ষেএে এবং আবশ্যিক উন্মুক্ত স্থানের সহিত সংযুক্ত এয়ারওয়েল বা লাইটওয়েল সমূহের জন্য এই নূন্যতম পরিমাপ প্রযোজ্য হইবেনা।

(খ) সীমানা দেওয়াল :
১) আবাসিক ভবনের ক্ষেএে সীমানা দেওয়ালের উচ্চতা ৩ (তিন) মিটারের অধিক হইতে পারিবে না যাহা সংলগ্ন রাস্তার সর্বোচ্চ বিন্দু হইতে পরিমাপকৃত হইবে এবং সর্বোচ্চ ১.৭৫ মিটার উচ্চতা পর্যন্ত নিরেট ও বাকি অংশ বায়ু চলাচলের জন্য জালি অথবা গ্রীল করা যাইবে;
২) সরকারী এবং বিশেষ ভবনের ক্ষেএে সীমানা দেওয়ালের প্রয়োজন হইলে দৃষ্টি নিক্ষেপণের সুবিধার্থে প্রাথমিকভাবে জালি অথবা গ্রীল ব্যবহার করিতে হইবে;
৩) উপ-বিধি (১) ও (২) ব্যতীত অন্যান্য ক্ষেএে উচ্চতা ২.৭৫ মিটারের অধিক হইতে পারিবে না, যাহা সংলগ্ন রাস্তার সর্বোচ্চ বিন্দু হইতে পরিমাপকৃত হইবে, যাহাতে পার্শ্ব এবং পশ্চাতের দিকে সর্বোচ্চ ১.৭৫ মিটার পর্যন্ত নিরেট এবং বাকি অংশ বায়ু চলাচলের জন্য জালি অথবা গ্রীল ব্যবহার করা যাইবে এবং সন্মুখ অংশে সর্বোচ্চ ১ মিটার পর্যন্ত নিরেট করা যাইবে; বাকি অংশ বায়ু চলাচল ও দৃষ্টি নিক্ষেপণের জন্য জালি অথবা গ্রীল ব্যবহার করিতে হইবে; এবং
৪) পাহাড়ী বা অসমান সাইটে সীমানা দেওয়ালের উচ্চতা প্রতিটি স্প্যানের মধ্যবর্তী বিন্দু হইতে হিসাব করিতে হইবে এবং এইরূপ স??

Card image cap
রাজউক ইমারত নির্মাণ বিধিমালা - ২০০৮ পর্ব-৪
engr.tushar - 22 Nov 2016

 (৫১) সর্বোচ্চ অনুমোদনযোগ্য FAR :
১) সর্বোচ্চ অনুমোদনযোগ্য FAR প্লটের পরিমাণ, ব্যবহারের প্রকারভেদ এবং রাস্তার প্রস্থের ভিওি অনুযায়ী নিন্মবর্ণিত সারণী৩(ক) হইতে ৩(চ) অনুসারে নির্ধারিত হইবে :

                                                        সারণী-৩(ক)
ইমারতের জন্য রাস্তার স্বাভাবিক প্রস্থ, ফ্লোর এরিয়া অনুপাত (FAR) এবং সর্বোচ্চ ভূমি আচ্ছাদন (MGC) :

[Type: A (A1-A5) : আবাসিক বাড়ী ও হোটেল]

প্লটের পরিমাণ ইমারতের শ্রেণী : (A1-A4) [১](আবাসিক বাড়ী) ইমারতের শ্রেণী : A5 [২] (আবাসিক হোটেল)
বর্গমিটার  কাঠা  রাস্তার প্রস্থ (মিটার)  FAR MGC (%) রাস্তার প্রস্থ (মিটার)  FAR MGC (%)
১৩৪ বঃমিঃ বা ইহার নীচে ২ কাঠা বা ইহার নীচে ৬.০ ৩.১৫ ৬৭.৫ ৬.০ ২.৫০ ৬৭.৫
১৩৪ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ২০১ বঃমিঃ পর্যন্ত ২ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৩ কাঠা ৬.০ ৩.৩৫ ৬৫.০ ৬.০ ২.৭৫ ৬৫.০
২০১ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ২৬৮ বঃমিঃ পর্যন্ত ৩ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৪ কাঠা ৬.০ ৩.৫০ ৬২.৫ ৬.০ ৩.০০ ৬২.৫
২৬৮ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৩৩৫ বঃমিঃ পর্যন্ত ৪ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৫ কাঠা ৬.০ ৩.৫০ ৬২.৫ ৬.০ ৩.২৫ ৬২.৫
৩৩৫ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৪০২ বঃমিঃ পর্যন্ত ৫ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৬ কাঠা ৬.০ ৩.৭৫ ৬০.০ ৬.০ ৩.৫০ ৬০.০
৪০২ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৪৬৯ বঃমিঃ পর্যন্ত ৬ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৭ কাঠা ৬.০ ৩.৭৫ ৬০.০ ৬.০ ৩.৭৫ ৬০.০
৪৬৯ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৫৩৬ বঃমিঃ পর্যন্ত ৭ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৮ কাঠা ৬.০ ৪.০০ ৬০.০ ৬.০ ৪.৫০ ৫৭.৫
৫৩৬ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৬০৩ বঃমিঃ পর্যন্ত ৮ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৯ কাঠা ৬.০ ৪.০০ ৬০.০ ৬.০ ৫.৫০ ৫৭.৫
৬০৩ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৬৭০ বঃমিঃ পর্যন্ত ৯ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১০ কাঠা ৬.০ ৪.২৫ ৫৭.৫ ৬.০ ৬.০০ ৫৫.০
৬৭০ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৮০৪ বঃমিঃ পর্যন্ত ১০ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১২ কাঠা ৯.০ ৪.৫০ ৫৭.৫ ৯.০ ৬.৫০ ৫৫.০
৮০৪ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৯৩৮ বঃমিঃ পর্যন্ত ১২ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১৪ কাঠা ৯.০ ৪.৭৫ ৫৫.০ ৯.০ ৭.০০ ৫২.৫
৯৩৮ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ১০৭২ বঃমিঃ পর্যন্ত ১৪ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১৬ কাঠা ৯.০ ৫.০০ ৫২.৫ ৯.০ ৭.৫০ ৫২.৫
১০৭২ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ১২০৬ বঃমিঃ পর্যন্ত ১৬ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১৮ কাঠা ৯.০ ৫.২৫ ৫২.৫ ৯.০ ৮.০০ ৫০.০
১২০৬ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ১৩৪০ বঃমিঃ পর্যন্ত ১৮ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ২০ কাঠা ৯.০ ৫.২৫ ৫০.০ ৯.০ ৮.৫০ ৫০.০
১৩৪০ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব ২০ কাঠার উর্ধ্বে ১২.০ ৫.৫০ ৫০.০ ১২.০ ৯.০০ ৫০.০[২]
যে কোন পরিমান যে কোন পরিমান ১৮.০ ৬.০০ ৫০.০ ১৮.০ NR* ৫০.০ [২]
যে কোন পরিমান যে কোন পরিমান ২৪.০ ৬.৫০ ৫০.০ ২৪.০ NR* ৫০.০ [২]
[১] ট্রাফিক, পার্কিং এবং অন্যান্য চাহিদা পূরণ সাপেক্ষে অপরিকল্পিত আবাসিক এলাকায় নিন্মবর্ণত ব্যবহার চলিতে পারিবে : (ক) ডরমিটরী ও হোস্টেল; (খ) শিশু নিবাস, এতিম খানা এবং বৃদ্ধ নিবাস; (গ) সর্বাধিক ২০ কক্ষ বিশিষ্ট হোটেল বা লজ্; (ঘ) অনূর্ধ ১০০ বর্গমিটারের রেস্টুরেন্ট; (ঙ) অনূর্ধ ২০০ বর্গমিটারের ধর্মীয় উপাসনার স্থান; (চ) আবাসিক ভবনের নীচতলায় পেশাজীবিদের অফিস, স্টুডিও বা চেম্বার যাহা ১০০ বর্গমিটারের বেশী নয় এবং যেখানে মোট জনবল অনূর্ধ ১৫ জন; এবং (ছ) শুধুমাএ কর্নার প্লটের জন্য অনূর্ধ ২৫ বর্গমিটারের সেলুন, বিউটি পার্লার, মুদি দোকান ও দর্জির দোকান ।
[২] A5 (আবাসিক হোটেল) ইমারতের ক্ষেএে, ২০ কাঠার উর্ধ্বে জমি বা ১৮ মিটার বা তদূর্ধ্ব প্রশস্ত রাস্তার পার্শে যে কোন পরিমাপের জমির বেলায় নীচ তলায় প্রযোজ্য আবশ্যিক সেটব্যাক স্পেস ব্যতীত সংলগ্ন রাস্তার উপরিতল হইতে সর্বোচ্চ ১২ মিটার উচ্চতার (প্যারাপেট সহ) পোডিয়াম নির্মাণ করা যাইবে । *NR (Non restricted)- FAR এর বাধ্যবাধকতা নাই

 

                                                    সারণী-৩(খ)
ইমারতের জন্য রাস্তার স্বাভাবিক প্রস্থ, ফ্লোর এরিয়া অনুপাত (FAR) এবং সর্বোচ্চ ভূমি আচ্ছাদন (MGC) :

[Type: B (B1-B2) : শিক্ষা প্রতিষ্ঠান]

প্লটের পরিমাণ ইমারতের শ্রেণী : (B1) (স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়) ইমারতের শ্রেণী : (B2)(প্রাথমিক শিক্ষা ও কিন্টার গার্ডেন)
বর্গমিটার  কাঠা  রাস্তার স্বভাবিকপ্রস্থ (মিটার)  FAR MGC (%) রাস্তার স্বভাবিকপ্রস্থ (মিটার)  FAR MGC (%)
১৩৪ বঃমিঃ বা ইহার নীচে ২ কাঠা বা ইহার নীচে ** ** ** ** ** **
১৩৪ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ২০১ বঃমিঃ পর্যন্ত ২ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৩ কাঠা ** ** ** ** ** **
২০১ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ২৬৮ বঃমিঃ পর্যন্ত ৩ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৪ কাঠা ** ** ** ** ** **
২৬৮ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৩৩৫ বঃমিঃ পর্যন্ত ৪ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৫ কাঠা ** ** ** ** ** **
৩৩৫ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৪০২ বঃমিঃ পর্যন্ত ৫ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৬ কাঠা ৬.০ ২.৫০ ৬০.০ ৬.০ ২.০০ ৫০.০[৩]
৪০২ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৪৬৯ বঃমিঃ পর্যন্ত ৬ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৭ কাঠা ৬.০ ২.৫০ ৬০.০ ৬.০ ২.০০ ৫০.০[৩]
৪৬৯ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৫৩৬ বঃমিঃ পর্যন্ত ৭ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৮ কাঠা ৬.০ ২.৫০ ৬০.০ ৬.০ ২.০০ ৫০.০[৩]
৫৩৬ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৬০৩ বঃমিঃ পর্যন্ত ৮ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৯ কাঠা ৬.০ ২.৭৫ ৬০.০ ৯.০ ২.২৫ ৫০.০[৩]
৬০৩ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৬৭০ বঃমিঃ পর্যন্ত ৯ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১০ কাঠা ৬.০ ২.৭৫ ৬০.০ ৯.০ ২.২৫ ৫০.০[৩]
৬৭০ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৮০৪ বঃমিঃ পর্যন্ত ১০ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১২ কাঠা ৯.০ ৩.০০ ৫৭.০ ৯.০ ২.৫০ ৫০.০[৩]
৮০৪ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৯৩৮ বঃমিঃ পর্যন্ত ১২ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১৪ কাঠা ৯.০ ৩.০০ ৫৫.০ ৯.০ ২.৫০ ৫০.০[৩]
৯৩৮ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ১০৭২ বঃমিঃ পর্যন্ত ১৪ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১৬ কাঠা ৯.০ ৩.২৫ ৫৩.০ ৯.০ ২.৭৫ ৫০.০[৩]
১০৭২ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ১২০৬ বঃমিঃ পর্যন্ত ১৬ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১৮ কাঠা ৯.০ ৩.২৫ ৫০.০ ৯.০ ২.৭৫ ৫০.০[৩]
১২০৬ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ১৩৪০ বঃমিঃ পর্যন্ত ১৮ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ২০ কাঠা ৯.০ ৩.৫০ ৫০.০ ৯.০ ৩.০০ ৫০.০[৩]
১৩৪০ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব ২০ কাঠার উর্ধ্বে ১২.০ ৪.০০ ৫০.০ ১২.০ ৩.৫০ ৫০.০[৪]
যে কোন পরিমান যে কোন পরিমান ১৮.০ ৪.৫০ ৫০.০ ১৮.০ ৪.০০ ৫০.০ [৪]
যে কোন পরিমান যে কোন পরিমান ২৪.০ ৫.৫০ ৫০.০ ২৪.০ ৪.৫০ ৫০.০ [৪]
[৩] B2 শ্রেণীর ইমারতের নীচ তলার উন্মুক্ত স্থান FAR মুক্ত হিসেবে বিবেচিত হইবে । এই উন্মুক্ত স্থানের সর্বোচ্চ ২০% উন্মুক্ত ব্যবহারের সহায়ক কক্ষ হিসাবে নির্মাণ করা যাইবে এবং এই অংশ FAR মুক্ত হইবে ।
[৪] B2 শ্রেণীর ইমারতের নীচ তলার উন্মুক্ত স্থান FAR মুক্ত হিসেবে বিবেচিত হইবে । এই উন্মুক্ত স্থানের সর্বোচ্চ ৪০% উন্মুক্ত ব্যবহারের সহায়ক কক্ষ হিসাবে নির্মাণ করা যাইবে এবং এই অংশ FAR মুক্ত হইবে ।**৩৩৫ বঃমিঃ বা ৫(পাঁচ) কাঠা জমি পর্যন্ত B-1 ও B-2 শ্রেণীর ব্যবহার অনুমোদন করা হইবে না ।

                                                                                                     

                                                       সারণী-৩(গ)

ইমারতের জন্য রাস্তার স্বাভাবিক প্রস্থ, ফ্লোর এরিয়া অনুপাত (FAR) এবং সর্বোচ্চ ভূমি আচ্ছাদন (MGC) :

[Type: C (C1-C4) ও D (D1-D2) : প্রতিষ্ঠান ও স্বাস্থ্যসেবা]

প্লটের পরিমাণ ইমারতের শ্রেণী :              C (C1-C4) (প্রাতিষ্ঠানিক) ইমারতের শ্রেণী :             D (D1-D2) (স্বাস্থ্যসেবা)
বর্গমিটার কাঠা রাস্তার স্বভাবিকপ্রস্থ (মিটার) FAR MGC (%) রাস্তার স্বভাবিকপ্রস্থ (মিটার) FAR MGC (%)
১৩৪ বঃমিঃ বা ইহার নীচে ২ কাঠা বা ইহার নীচে ** ** ** ** ** **
১৩৪ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ২০১ বঃমিঃ পর্যন্ত ২ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৩ কাঠা ** ** ** ** ** **
২০১ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ২৬৮ বঃমিঃ পর্যন্ত ৩ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৪ কাঠা ** ** ** ** ** **
২৬৮ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৩৩৫ বঃমিঃ পর্যন্ত ৪ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৫ কাঠা ** ** ** ** ** **
৩৩৫ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৪০২ বঃমিঃ পর্যন্ত ৫ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৬ কাঠা ৬.০ ৩.২৫ ৬০.০ ৬.০ ৩.২৫ ৬০.০
৪০২ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৪৬৯ বঃমিঃ পর্যন্ত ৬ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৭ কাঠা ৬.০ ৩.২৫ ৬০.০ ৬.০ ৩.২৫ ৬০.০
৪৬৯ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৫৩৬ বঃমিঃ পর্যন্ত ৭ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৮ কাঠা ৬.০ ৩.২৫ ৬০.০ ৬.০ ৩.২৫ ৬০.০
৫৩৬ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৬০৩ বঃমিঃ পর্যন্ত ৮ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৯ কাঠা ৯.০ ৩.৫০ ৫৭.৫ ৯.০ ৩.৫০ ৫৭.৫
৬০৩ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৬৭০ বঃমিঃ পর্যন্ত ৯ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১০ কাঠা ৯.০ ৩.৫০ ৫৭.৫ ৯.০ ৩.৫০ ৫৭.৫
৬৭০ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৮০৪ বঃমিঃ পর্যন্ত ১০ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১২ কাঠা ৯.০ ৩.৭৫ ৫৫.০ ৯.০ ৩.৭৫ ৫৫.০
৮০৪ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৯৩৮ বঃমিঃ পর্যন্ত ১২ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১৪ কাঠা ৯.০ ৪.০০ ৫৫.০ ৯.০ ৪.০০ ৫৫.০
৯৩৮ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ১০৭২ বঃমিঃ পর্যন্ত ১৪ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১৬ কাঠা ৯.০ ৪.২৫ ৫২.০ ৯.০ ৪.২৫ ৫২.০
১০৭২ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ১২০৬ বঃমিঃ পর্যন্ত ১৬ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১৮ কাঠা ৯.০ ৪.৫০ ৫০.০ ৯.০ ৪.৫০ ৫০.০
১২০৬ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ১৩৪০ বঃমিঃ পর্যন্ত ১৮ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ২০ কাঠা ৯.০ ৪.৭৫ ৫০.০ ৯.০ ৪.৭৫ ৫০.০
১৩৪০ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব ২০ কাঠার উর্ধ্বে ১২.০ ৫.০০ ৫০.০ [৫] ১২.০ ৫.০০ ৫০.০ [৫]
যে কোন পরিমান যে কোন পরিমান ১৮.০ NR** ৫০.০ [৫] ১৮.০ NR** ৫০.০ [৫]
যে কোন পরিমান যে কোন পরিমান ২৪.০ NR** ৫০.০ [৫] ২৪.০ NR** ৫০.০ [৫]
[৩] B2 শ্রেণীর ইমারতের নীচ তলার উন্মুক্ত স্থান FAR মুক্ত হিসেবে বিবেচিত হইবে । এই উন্মুক্ত স্থানের সর্বোচ্চ ২০% উন্মুক্ত ব্যবহারের সহায়ক কক্ষ হিসাবে নির্মাণ করা যাইবে এবং এই অংশ FAR মুক্ত হইবে ।[৫] C ও D উভয় প্রকারের ইমারতের ক্ষেএে, ২০ কাঠার উর্ধ্বে জমি বা ১৮ মিটার বা তদূর্ধ্ব প্রশস্ত রাস্তার পার্শ্বে যে কোন পরিমাপের জমির বেলায় প্রযোজ্য আবশ্যিক সেটব্যাক স্পেস ব্যতীত সংলগ্ন রাস্তার উপরিতল হইতে সর্বোচ্চ ১২ মিটার উচ্চতার (প্যারাপেট সহ) পোডিয়াম নির্মাণ করা যাইবে ।*NR (Non restricted)- FAR এর বাধ্যবাধকতা নাই

**৩৩৫ বঃমিঃ বা ৫(পাঁচ) কাঠা জমি পর্যন্ত C ও D শ্রেণীর ব্যবহার অনুমোদন করা হইবে না ।

                                                                                        

                                            সারণী-৩(ঘ)

ইমারতের জন্য রাস্তার স্বাভাবিক প্রস্থ, ফ্লোর এরিয়া অনুপাত (FAR) এবং সর্বোচ্চ ভূমি আচ্ছাদন (MGC) :

[Type: E (E1-E6) : সমাবেশ ও ধর্মীয় ভবন]

প্লটের পরিমাণ ইমারতের শ্রেণী : (E1-E6)(সমাবেশ ও ধর্মীয় ভবন)
বর্গমিটার কাঠা রাস্তার প্রস্থ (মিটার) FAR MGC (%)
১৩৪ বঃমিঃ বা ইহার নীচে ২ কাঠা বা ইহার নীচে ৬.০ ২.০০ ৬৫.০
১৩৪ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ২০১ বঃমিঃ পর্যন্ত ২ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৩ কাঠা ৬.০ ২.০০ ৬৫.০
২০১ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ২৬৮ বঃমিঃ পর্যন্ত ৩ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৪ কাঠা ৬.০ ২.২৫ ৬০.০
২৬৮ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৩৩৫ বঃমিঃ পর্যন্ত ৪ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৫ কাঠা ৬.০ ২.২৫ ৬০.০
৩৩৫ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৪০২ বঃমিঃ পর্যন্ত ৫ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৬ কাঠা ৯.০ ২.৫০ ৫৭.৫
৪০২ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৪৬৯ বঃমিঃ পর্যন্ত ৬ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৭ কাঠা ৯.০ ২.৫০ ৫৭.৫
৪৬৯ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৫৩৬ বঃমিঃ পর্যন্ত ৭ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৮ কাঠা ৯.০ ২.৭৫ ৫৫.০
৫৩৬ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৬০৩ বঃমিঃ পর্যন্ত ৮ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৯ কাঠা ৯.০ ২.৭৫ ৫৫.০
৬০৩ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৬৭০ বঃমিঃ পর্যন্ত ৯ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১০ কাঠা ৯.০ ৩.০০ ৫২.৫
৬৭০ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৮০৪ বঃমিঃ পর্যন্ত ১০ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১২ কাঠা ১২.০ ৩.২৫ ৫০.০
৮০৪ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৯৩৮ বঃমিঃ পর্যন্ত ১২ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১৪ কাঠা ১২.০ ৩.৫০ ৫০.০
৯৩৮ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ১০৭২ বঃমিঃ পর্যন্ত ১৪ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১৬ কাঠা ১২.০ ৩.৭৫ ৫০.০
১০৭২ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ১২০৬ বঃমিঃ পর্যন্ত ১৬ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১৮ কাঠা ১২.০ ৪.০০ ৫০.০
১২০৬ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ১৩৪০ বঃমিঃ পর্যন্ত ১৮ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ২০ কাঠা ১২.০ ৪.২৫ ৫০.০
১৩৪০ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব ২০ কাঠার উর্ধ্বে ১২.০ ৫.৫০ ৫০.০
যে কোন পরিমান যে কোন পরিমান ১৮.০ ৬.৫০ ৫০.০
যে কোন পরিমান যে কোন পরিমান ২৪.০ ৭.০০ ৫০.০[৬]
[৬] ২৪ মিটার বা তদূর্ধ্ব প্রশস্ত রাস্তার পার্শ্বে যে কোন পরিমাপের জমির বেলায় প্রযোজ্য আবশ্যিক সেটব্যাক স্পেস ব্যতীত সংলগ্ন রাস্তার উপরিতল হইতে সর্বোচ্চ ১২ মিটার উচ্চতার (প্যারাপেট সহ) পোডিয়াম নির্মাণ করা যাইবে ।

             

                                                      সারণী-৩(ঙ)

ইমারতের জন্য রাস্তার স্বাভাবিক প্রস্থ, ফ্লোর এরিয়া অনুপাত (FAR) এবং সর্বোচ্চ ভূমি আচ্ছাদন (MGC) :

[Type: F (F1-F5) : বাণিজ্যিক ভবন]

প্লটের পরিমাণ ইমারতের শ্রেণী : (F1) (অফিস) ইমারতের শ্রেণী : (F2-F5)(দোকান, বাজার ইত্যাদি)
বর্গমিটার  কাঠা  রাস্তার প্রস্থ (মিটার) FAR

Card image cap
রাজউক ইমারত নির্মাণ বিধিমালা - ২০০৮ পর্ব-৩
engr.tushar - 22 Nov 2016

(৩৩) নগর উন্নয়ন কমিটি :

ঢাকা মহানগরীর অবকাঠামো উন্নয়ন কার্যক্রম সমন্বয়, পরিকল্পনা প্রণয়ন, পরিবহন ব্যবস্থা উন্নয়ন, নিয়ন্ত্রণ বা বাস্তবায়নে সার্বিক সহায়তার জন্য সরকার নির্বাহী আদেশ বা প্রজ্ঞাপন জারীর মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট সরকারী কর্মকর্তা, বিশিষ্ট নাগরিকবৃন্দ এবং বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে একটি নগর উন্নয়ন কমিটি গঠন করিবে ।

(৩৪) নগর উন্নয়ন কমিটির গঠন :
নিন্মবর্ণিত ব্যক্তিবর্গকে লইয়া নগর উন্নয়ন কমিটি গঠিত হইবে, যথা :

(ক) সরকার কতৃক নিয়োগকৃত কর্মকর্তা-
১) সচিব, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়,
২) চেয়ারম্যান, রাজউক,
৩) প্রধান স্থপতি, স্থাপত্য অধিদপ্তর, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়,
৪) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, ঢাকা সিটি করপোরেশন,

(খ)নিন্মলিখিত পেশাজীবী সংস্থার সভাপতি/সহ-সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক-
১) ইন্সটিটিউট অব আর্কিটেক্টস্ বাংলাদেশ,
২) বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব প্ল্যানার্স,
৩) ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন, বাংলাদেশ,

(গ) ২ জন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক (স্থাপত্য/পরিকল্পনা/প্রকৌশল/পরিবেশ বিষয়ক)
(ঘ) সুশীল সমাজের ৩(তিন) জন প্রতিনিধি,
(ঙ) সভাপতি/সহ-সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক, রিহ্যাব ।

নোট ১ : বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এবং সুশীল সমাজের প্রতিনিধিগণের মেয়াদকাল হইবে ২(দুই) বছর ।
নোট ২ : কমিটি প্রয়োজনে যে কোন বিশেষজ্ঞ পেশাজীবী বা ব্যক্তিকে কমিটির সভায় অংশগ্রহণের আমন্ত্রণ করিতে পারিবে।

(৩৫) নগর উন্নয়ন কমিটির কার্যাবলী :
নগর উন্নয়ন কমিটির কার্যাবলী হইবে নিন্মরূপ, যথা :

(ক) একটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন কমিটি হিসাবে ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকার সকল উন্নয়নমূলক এবং উন্নয়ন নিয়ন্ত্রণ কাজের জন্য নীতি ও ভবিষৎ রূপরেখা বিষয়ে সুপারিশ করা,
(খ) ইমারত নির্মাণ বিধিমালার সহিত নির্মাণ ও উন্নয়ন কাজের সংগতি তদারকী করা,
(গ) এই বিধিমালার আওতায় নিষ্পওিযোগ্য নয় এমন সকল বিষয়ে কার্যকর দিকনির্দেশনা প্রদান করা,
(ঘ) রাজউকের মহাপরিকল্পনাভুক্ত এলাকায় সকল ইমারত নির্মাণ কর্মকান্ডের গুণগত মান, স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা,
(ঙ) বিধিমালা বাস্তবায়নে ন্যায় ও সমতা বিধান করা এবং
(চ) আপিল নিষ্পওি করা ।

(৩৬) নগর উন্নয়ন কমিটি কতৃক আপিল নিষ্পওি :
১) কতৃপক্ষের সিদ্ধান্তে ক্ষতিগ্রস্থ যে কোন ব্যক্তি নগর নগর উন্নয়ন কমিটির কাছে বিধিমালায় বর্ণিত ক্ষেএগুলিতে লিখিত সুবিচার চাহিয়া আবেদন করিতে পারিবে ।
২) লিখিত আবেদন গ্রহনের পর কমিটি আবেদনকারীর অনুপস্থিতিতে বিধিমালায় বর্ণিত বিধি অনুযায়ী আবেদন নিষ্পওি করিবে ।
৩) কমিটি উপযুক্ত বিবেচনা করিলে প্রাপ্তি স্বীকার পএসহ রেজিস্টার্ড ডাকযোগে আবেদনকারীকে কমিটির সভায় তথ্যাদি উপস্থাপনের নির্দেশ দিতে পারিবে এবং এইরূপ নির্দেশের ক্ষেএে আবেদনকারীকে যুক্তিসঙ্গত সময় দিতে হইবে ।
৪) উপ-বিধি (৩) অনুযায়ী নির্দেশ প্রাপ্তির পর আবেদনকারী অথবা তাহার প্রতিনিধি কমিটির সভায় উপস্থিত থাকিতে পারিবে।
৫) উপ-বিধি (৪) অনুযায়ী আবেদনকারী বা তাহার প্রতিনিধি কমিটির সভায় অনুপস্থিত থাকিলে বা তথ্যাদি উপস্থাপন করিতে ব্যর্থ হইলে কমিটি আবেদনকারীর অনুপস্থিতিতে আপিল নিষ্পওি করিতে পারিবে অথবা সভা মুলতবী ঘোষণা করিতে পারিবে এবং এইরূপ মূলতবী কেবলমাএ একবার করা যাইবে ।
৬) আপিল নিষ্পওি করিবার ক্ষেএে কমিটি আবেদন অনুমোদন, শর্তসাপেক্ষে অনুমোদন অথবা বাতিলের যে কোন একটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করিতে পারিবে ।
৭) নগর উন্নয়ন কমিটির সিদ্ধান্ত কতৃপক্ষের জন্য চূড়ান্ত ও বাধ্যতামূলক বলিয়া গণ্য হইবে ।
৮) কমিটি উপ-বিধি (৬) অনুযায়ী গৃহীত সিদ্ধান্ত কতৃপক্ষকে জানাইবে এবং কতৃপক্ষ ১০(দশ) দিনের মধ্যে রেজিস্টার্ড ডাক মারফত আবেদনকারীকে কমিটির সিদ্ধান্ত জানাইয়া দিবে ।

(৩৭) নগর উন্নয়ন কমিটি কতৃক নির্মাণ ও উন্নয়ন কাজের তদারকী ও নিয়ন্ত্রণ :
১) অভিযোগের ভিওিতে বা স্বেচ্ছাপ্রণোদিতভাবে কমিটি এই বিধিমালার আওতায় নির্মিত বা নির্মাণাধীন ইমারতসমূহ নিয়মিতভাবে উপযুক্ত পেশাজীবি দিয়া পরিদর্শন ও পরীক্ষা করাইতে পারিবে ।
২) অনুমোদন প্রাপ্ত নির্মাণ নকশার সহিত বাস্তব নির্মাণের কোন স্বেচ্ছাকৃত অসঙ্গতি ধরা পড়িলে উক্ত প্রকল্পের আবেদনকারী ও দায়ী পরিকল্পনাবিদ/স্থপতি/প্রকৌশলী/জমির আইনগত মালিক, যে বা যাহার জন্য প্রযোজ্য তাহার/তাহাদের যথোপযুক্ত শাস্তি প্রদানের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ লইতে কতৃপক্ষ বরাবর সুপারিশ করিবে যাহা কতৃপক্ষের জন্য পালনীয় হইবে ।
৩) উপবিধি (২) এ বর্ণিত অসংগতি তদারকিতে গাফিলতির দায়ে দায়ী কতৃপক্ষের তদারকী কর্মকর্তাদের যথোপযুক্ত শাস্তি প্রদানের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করিতে কতৃপক্ষ বরাবর সুপারিশ করিবে যাহা কতৃপক্ষের জন্য অবশ্য পালনীয় হইবে ।

(৩৮) নগর উন্নয়ন কমিটি কতৃক কতৃপক্ষকে উপদেশ প্রদান :
কমিটি কতৃপক্ষের নিকট হইতে কোন বিষয়ে উপদেশের জন্য বা বিধিমালার যে কোন বিষয়ে ব্যাখ্যা বা বিশেষনের জন্য লিখিত অনুরোধ প্রাপ্ত হইলে প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানের সাথে আলোচনা ও মতামতের ভিওিতে ৩০ (এিশ) দিনের মধ্যে তাহা প্রদান করিবে ।

(৩৯) নগর উন্নয়ন কমিটির সভা :
১) কমিটি তাহার কার্য সম্পাদনের জন্য প্রতিমাসে কমপক্ষে একবার সভায় মিলিত হইবে ।
২) কমিটির প্রথম বৈঠকে সদস্যবৃন্দসহ একজন সভাপতি, দুইজন সহ-সভাপতি ও সদস্য সচিব মনোনীত করিবে ।
৩) কমিটির যে কোন সভার কোরামের জন্য নুন্যতম ৫(পাঁচ) জন সদস্যের উপস্থিতি প্রয়োজন হইবে, যাহাদের মধ্যে কমপক্ষে একজন সভাপতি বা সহ-সভাপতি পদমর্যাদার হইবে ।
৪) কমিটির প্রত্যেক সদস্য কেবলমাএ একটি ভোট দিতে পারিবে ।
৫) সভার যে কোন সিদ্ধান্ত সভায় উপস্থিত সদস্যদের সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটে গৃহীত হইবে, তবে উভয়পক্ষে সমসংখ্যক ভোটের ক্ষেএে সভার সভাপতি অতিরিক্ত একটি ভোট প্রদান করিতে পারিবে ।

(৪০) নগর উন্নয়ন কমিটি কতৃক উপ-কমিটি গঠন :
১) নগর উন্নয়ন কমিটি তাহার কার্যাবলী সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করিবার জন্য বিভিন্ন উপ-কমিটি গঠন করিতে পারিবে ।
২) উপ-কমিটি সমূহের সদস্যবৃন্দ বিধি ৩৪ এ বর্ণিত শ্রেণীসমূহ হইতে নিয়োগপ্রাপ্ত হইবে ।
৩) উপ-কমিটির সিদ্ধান্ত সমূহ নগর উন্নয়ন কমিটির নিকট পাঠাইতে হইবে ।
৪) কমিটি উপ-কমিটি সমূহের যে কোন সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণ বা আংশিকভাবে গ্রহণ অথবা সম্পূর্ণ বাতিল করিতে পারিবে ।

চতুর্থ অধ্যায় : কারিগরী ব্যক্তির তালিকা, শ্রেনীবিন্যাস ইত্যাদি
(৪১) কারিগরী ব্যক্তির তালিকা প্রণয়ন :
১) এই বিধিমালা অনুযায়ী নকশা প্রণয়ন, নির্মাণ কাজের তও্বাবধায়ন, রিপোর্ট তৈরী এবং অন্য কোন কাজে জড়িত পেশাজীবি ব্যক্তিকে বাংলাদেশের সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানের তালিকাভুক্ত হইতে হইবে ।
২) সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি প্রতিষ্ঠান পেশাজীবিদের প্রয়োজনীয় তথ্যসহ হালনাগাদ তালিকা কতৃপক্ষকে সরবরাহ করিবে ।
৩) পেশাজীবি প্রতিষ্ঠান কতৃক প্রেরিত সংশ্লিষ্ট পেশাজীবির নমুনা স্বাক্ষর, সদ্য তোলা পার্সপোর্ট সাইজ ছবি, যোগাযোগের ঠিকানা, টেলিফোন নম্বর, ইত্যাদি সম্বলিত হালনাগাদ তালিকা কতৃপক্ষ সংরক্ষণ করিবে ।
৪) এই বিধিমালা অনুযায়ী প্রকল্পের সংশ্লিষ্ট বিষয়ে নকশা প্রণয়ন, পরিদর্শন বা তদারকী, স্বাক্ষর প্রদান এবং ঐ নকশার জন্য প্রয়োজনীয় তথ্যসহ রিপোর্ট তৈরি করিবার জন্য তালিকাভুক্ত পেশাজীবিগণ ক্ষমতা প্রাপ্ত হইবে ।

(৪২) তালিকাভুক্তির জন্য আবেদন :
১) কারিগরী ব্যক্তি হিসাবে তালিকাভূক্তির জন্য কোন পেশাজীবিকে সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানের নিকট তাহার সদ্য তোলা পার্সপোর্ট সাইজ ছবি, যোগাযোগের ঠিকানা, টেলিফোন নম্বর, নমুনা স্বাক্ষর এবং উক্ত পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানের নিয়মকানুন অনুসরণপূর্বক আবেদন করিতে হইবে ।
২) বিধি ৪৩ এর বিধান সাপেক্ষে, সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি প্রতিষ্ঠান আবেদনকারীর প্রয়োজনীয় যোগ্যতা বিবেচনাপূর্বক তালিকাভূক্তির বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করিবে ।
৩) উপ-ধারা (১) এ যাহা কিছুই থাকুক না কেন, তালিকাভুক্তির আবেদনের জন্য কোন পেশাজীবিকে সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানের সদস্য হইতে হইবে ।

(৪৩) কারিগরী ব্যক্তির শ্রেণীবিন্যাস :
১) ইমারতের ধরণ বা ব্যবহার অনুযায়ী কারিগরী বিষয়ে অভিজ্ঞ ব্যক্তিবর্গ যাহারা এই বিধিমালা অনুযায়ী নকশা প্রণয়ন, স্বাক্ষর ও রিপোর্ট তৈরী করিতে পারিবে তাহাদের নূন্যতম যোগ্যতাসহ শ্রেণীবিন্যাস সারণী-১ এ বর্ণিত হইল :

সারণী-১
ইমারতের নকশা ও অন্যান্য দলিলে ক্ষেএমত ক্ষমতাপ্রাপ্ত স্বাক্ষরকারী পেশাজীবিদের শ্রেনী বিন্যাস :

ইমারতের উচ্চতা (তলা) ইমারতের মেঝের সর্বোচ্চ ক্ষেএফল (বর্গমিটার) ইমারতের ধরণ কারিগরী ব্যক্তিবর্গের যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা বিভিন্ন কাজে স্বাক্ষর করার ক্ষমতাপ্রাপ্ত পেশাজীবি বা কারিগরী অভিজ্ঞ ব্যক্তিবর্গ
১০০০ A সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানের সদস্য বা সহযোগী সদস্য বা প্রার্থী সদস্য এবং নকশা প্রনয়ন ও অন্যান্য দায়িত্ব পালনের জন্য তালিকাভূক্ত (১) ভূমি জরিপ : পুরকৌশলী, ডিপ্লোমা প্রকৌশলী বা সনদপ্রাপ্ত সার্ভেয়ার,
(২) সয়েল টেষ্ট রিপোর্ট : জিওটেকনিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার বা পুরকৌশলী বা মৃওিকা বিষয়ে অভিজ্ঞ ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান,
(৩) স্থাপত্য নকশা : স্থপতি বা পুরকৌশলী ও নূন্যতম ৫ (পাঁচ) বছরের অভিজ্ঞতা সম্পন্ন স্থাপত্যে ডিপ্লোমাধারী,
(৪) কাঠামোগত নকশা : পুরকৌশলী বা স্ট্রাকচারাল ইজ্ঞ্জিনিয়ার,
(৫) প্লাম্বিং ও স্যানিটারী ডিজাইন : প্লাম্বিং ইজ্ঞ্জিনিয়ার,
(৬) যান্ত্রিক নকশা : যন্ত্র প্রকৌশলী,
(৭) বৈদ্যুতিক নকশা : তড়িৎ প্রকৌশলী,
(৮) নির্মাণ তদারকী : সুপারভাইজার, স্থপতি ও প্রকৌশলী,
(৯) সমাপ্তি প্রতিবেদন : দায়িত্বপ্রাপ্ত স্থপতি ও প্রকৌশলী
যে কোন সংখ্যক ৭৫০০ A, B, C, F2, F3, G এবং H সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানের সদস্য এবং নকশা প্রনয়ন ও অন্যান্য দায়িত্ব পালনের জন্য তালিকাভুক্ত (১) ভূমি জরিপ : পুরকৌশলী, ডিপ্লোমা প্রকৌশলী বা সনদপ্রাপ্ত সার্ভেয়ার,
(২) সয়েল টেষ্ট রিপোর্ট : জিওটেকনিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার বা পুরকৌশলী বা মৃওিকা বিষয়ে অভিজ্ঞ ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান,
(৩) স্থাপত্য নকশা : স্থপতি
(৪) কাঠামোগত নকশা : পুরকৌশলী বা স্ট্রাকচারাল ইজ্ঞ্জিনিয়ার,
(৫) প্লাম্বিং ও স্যানিটারী ডিজাইন : প্লাম্বিং ইজ্ঞ্জিনিয়ার,
(৬) যান্ত্রিক নকশা : যন্ত্র প্রকৌশলী,
(৭) বৈদ্যুতিক নকশা : তড়িৎ প্রকৌশলী,
(৮) নির্মাণ তদারকী : সুপারভাইজার, স্থপতি ও প্রকৌশলী,
(৯) সমাপ্তি প্রতিবেদন : দায়িত্বপ্রাপ্ত স্থপতি ও প্রকৌশলী
যে কোন সংখ্যক যে কোন ক্ষেএফল বিশিষ্ট ইমারত সকল শ্রেণীর ইমারত সমূহ নূন্যতম ৮ (আট) বছরের অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ও সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানের সদস্য/ফেলো এবং নকশা প্রনয়ন ও অন্যান্য দায়িত্ব পালনের জন্য তালিকাভুক্ত (১) ভূমি জরিপ : পুরকৌশলী, ডিপ্লোমা প্রকৌশলী বা সনদপ্রাপ্ত সার্ভেয়ার,
(২) সয়েল টেষ্ট রিপোর্ট : জিওটেকনিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার বা পুরকৌশলী বা মৃওিকা বিষয়ে অভিজ্ঞ ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান,
(৩) স্থাপত্য নকশা : স্থপতি
(৪) কাঠামোগত নকশা : পুরকৌশলী বা স্ট্রাকচারাল ইজ্ঞ্জিনিয়ার,
(৫) প্লাম্বিং ও স্যানিটারী ডিজাইন : প্লাম্বিং ইজ্ঞ্জিনিয়ার,
(৬) যান্ত্রিক নকশা : যন্ত্র প্রকৌশলী,
(৭) বৈদ্যুতিক নকশা : তড়িৎ প্রকৌশলী,
(৮) নির্মাণ তদারকী : সুপারভাইজার, স্থপতি ও প্রকৌশলী,
(৯) সমাপ্তি প্রতিবেদন : দায়িত্বপ্রাপ্ত স্থপতি ও প্রকৌশলী

২) কতৃপক্ষ উপ-বিধি (১) এ উল্লিখিত ও সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানের তালিকাভুক্ত ব্যক্তি ব্যতীত অন্য কাহারও প্রস্তুতকৃত নকশা বা রিপোর্ট অনুমোদনের জন্য বিবেচনা করিবে না ।
৩) একটি ইমারত বা প্রকল্পের বিভিন্ন স্তর, বিভিন্ন ধরনের নকশা বা রিপোর্ট বা নির্মাণকার্যে নিয়োজিত দলগতভাবে বা কোন প্রতিষ্ঠানের পরে কর্মরত কারিগরী বিষয়ে অভিজ্ঞ একাধিক ব্যক্তি থাকিলে তাহাদের প্রত্যেকের আলাদাভাবে এই বিধিমালার আওতায় এই সকল কাজ করিবার যোগ্যতা থাকিতে হইবে ।
৪) আবেদনকারী সংশ্লিষ্ট কারিগরী ব্যক্তিকে তাহার যোগ্যতা অনুযায়ী কাজে নিয়োগ করিবেন এবং একটি প্রকল্পে যদি কখনো একাধিক কারিগরী ব্যক্তি নিযুক্ত করা হয়, সেইক্ষেএে স্থপতি প্রকল্পের স্থাপত্য নকশা ও বাস্তবায়নের সমন্বয় সাধন করিবে এবং নির্মাণকালীন ও নির্মাণ শেষে স্থপতি ও প্রকৌশলী তাহাদের নিজ নিজ ক্ষেএের নির্মাণ নকশা ও সমাপ্তি প্রতিবেদন প্রনয়ণের দায়িত্বে থাকিবে ।
৫) সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি প্রতিষ্ঠান তালিকাভূক্ত পেশাজীবি ব্যক্তির কাজ ও সেবার মান, পেশাগত সততা ও দক্ষতা নিশ্চিত করিবার দায়িত্ব পালন করিবে এবং পেশাজীবি প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির সদস্যপদ সংক্রান্ত তথ্য যথা:
সদস্যপদ স্থগিতকরণ, বিলোপকরণ, অবসান বা কোন গৃহীত শাস্তিমূলক ব্যবস্থার বিষয়ে কতৃপক্ষকে অবহিত করিবে ।
৬) যদি কোন পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানের তালিকাভুক্ত পেশাজীবি ব্যক্তি এই বিধিমালার কোন বিধান লঙ্ঘন করে, তাহা হইলে কতৃপক্ষ সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানকে ইহা জানাইবে এবং পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানের নিয়ম অনুসারে সংশ্লিষ্ট দায়ী ব্যক্তির বিরূদ্ধে উক্ত পেশাজীবি প্রতিষ্ঠান যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করিবে।

পঞ্চম অধ্যায় : ইমারত নির্মাণ নিয়মাবলী
(৪৪)ইমারত নির্মাণ নিয়মাবলী :
যে কোন ধরণের ইমারত বা প্রকল্প নির্মাণে আবশ্যিক অনাচ্ছাদিত স্থান, সীমানা হইতে সেটব্যাক, ভূমি আচ্ছাদন, FAR ইত্যাদি সংক্রান্ত বিধিসমূহ অনুসরণ করিতে হইবে এবং ইমারত ব্যবহারের ধরণ, সড়কের প্রশস্ততা, যানবাহন চলাচলের ঘনত্ব, জনঘনত্ব, পার্কিং চাহিদা, ইউটিলিটি সার্ভিসসমূহ, অগ্নিনির্বাপণ ইত্যাদির ভিওিতে এই নিয়মাবলীর প্রয়োগ নির্ণীত হইবে ।

(৪৫) আবশ্যিক অনাচ্ছাদিত স্থান :
প্রতিটি প্লটে বিদ্যমান জমির সীমানা হইতে বিধি ৪৬ অনুযায়ী সেটব্যাক ও বিধি ৫০ অনুযায়ী সর্বোচ্চ ভূমি আচ্ছাদন বহির্ভূত খোলা জায়গা আবশ্যিক অনাচ্ছাদিত স্থান হিসাবে থাকিতে হইবে ।

(৪৬) সীমানা হইতে সেটব্যাক :
১) প্রতিটি ইমারতের সন্মুখে, পার্শ্বে এবং পশ্চাতে সেটব্যাক বা উন্মুক্ত স্থান থাকিতে হইবে এবং প্লটের সন্মুখ, পার্শ্ব এবং পশ্চাৎ এর সংজ্ঞার জন্য পরিশিষ্ট-৫ এর ব্যাখ্যা প্রযোজ্য হইবে ।
২) এই বিধিমালার অন্যান্য শর্তাবলী পূরণ সাপেক্ষে, ইমারতের সন্মুখে, পশ্চাতে ও পার্শ্বে সারণী-২ এ প্রদও হারে সেটব্যাক বা উন্মুক্ত স্থান রাখিতে হইবে :

সারণী-২
ইমারতের সেটব্যাক

                                         ইমারতের উচ্চতা : ৩৩মিটার অথবা ১০ তলা পর্যন্ত
                     প্লটের পরিমাণ                                    নূন্যতম সেটব্যাক
বর্গমিটার কাঠা সন্মুখ (মিটার) পশ্চাৎ (মিটার) প্রতিপার্শ্ব (মিটার)
১৩৪ বঃমিঃ বা ইহার নীচে ২ কাঠা বা ইহার নীচে ১.৫০ ১.০০ ০.৮০
১৩৪ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ২০১ বঃমিঃ পর্যন্ত ২ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৩ কাঠা ১.৫০ ১.০০ ১.০০
২০১ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ২৬৮ বঃমিঃ পর্যন্ত ৩ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৪ কাঠা ১.৫০ ১.৫০ ১.০০
২৬৮ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৩৩৫ বঃমিঃ পর্যন্ত ৪ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৫ কাঠা ১.৫০ ২.০০ ১.২৫
৩৩৫ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৪০২ বঃমিঃ পর্যন্ত ৫ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৬ কাঠা ১.৫০ ২.০০ ১.২৫
৪০২ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৪৬৯ বঃমিঃ পর্যন্ত ৬ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৭ কাঠা ১.৫০ ২.০০ ১.২৫
৪৬৯ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৫৩৬ বঃমিঃ পর্যন্ত ৭ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৮ কাঠা ১.৫০ ২.০০ ১.২৫
৫৩৬ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৬০৩ বঃমিঃ পর্যন্ত ৮ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ৯ কাঠা ১.৫০ ২.০০ ১.২৫
৬০৩ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৬৭০ বঃমিঃ পর্যন্ত ৯ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১০ কাঠা ১.৫০ ২.০০ ১.২৫
৬৭০ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৮০৪ বঃমিঃ পর্যন্ত ১০ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১২ কাঠা ১.৫০ ২.০০ ১.২৫
৮০৪ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ৯৩৮ বঃমিঃ পর্যন্ত ১২ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১৪ কাঠা ১.৫০ ২.০০ ১.২৫
৯৩৮ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ১০৭২ বঃমিঃ পর্যন্ত ১৪ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১৬ কাঠা ১.৫০ ২.০০ ১.২৫
১০৭২ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ১২০৬ বঃমিঃ পর্যন্ত ১৬ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ১৮ কাঠা ১.৫০ ২.০০ ১.২৫
১২০৬ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব হইতে ১৩৪০ বঃমিঃ পর্যন্ত ১৮ কাঠার উর্ধ্ব হইতে ২০ কাঠা ১.৫০ ২.০০ ১.২৫
১৩৪০ বঃমিঃ এর উর্ধ্ব ২০ কাঠার উর্ধ্বে ১.৫০ ২.০০ ১.২৫
                                                     ইমারতের উচ্চতা : ৩৩মিটার বা ১০ তলার বেশী
যে কোন পরিমাণ যে কোন পরিমাণ ১.৫০ ৩.০০ ৩.০০

৩) রাস্তার প্রস্থ যাহাই থাকুক না কেন, বিদ্যমান রাস্তার কেন্দ্র হইতে ৪.৫ মিটার অথবা প্লটের সীমানা হইতে ১.৫ মিটার দূরত্বের মধ্যে যাহা অধিক (রাস্তার ভবিষৎ বর্ধিতকরণের জন্য প্রয়োজনীয় জমি বাদ দিয়া) তাহার চাইতে কম দূরত্বে কোন ইমারত নির্মাণ করা যাইবে না ।
৪) নির্দিষ্ট কোন রাস্তার ক্ষেএে “ডিটেইলড এরিয়া প্ল্যান” (DAP) অনুযায়ী কতৃপক্ষ সন্মুখভাগের সেটব্যাকের ক্ষেএে ভিন্নতর বা অধিকতর দূরত্বের প্রস্তাবনা বা নির্দেশনা প্রদান করিতে পারিবে ।

৫) আবশ্যিক অনাচ্ছাদিত স্থানের (Mandatory Open Space) জন্য সর্বোচ্চ ভূমি আচ্ছাদন (Ground Coverage) কার্যকর করিবার ক্ষেএে নিন্মলিখিত প্রায়োগিক শৈথিল্য ও ব্যাপ্তি প্রযোজ্য হইবে, যথা :
(ক) একটি কাঠামোর চারিপার্শ্বের আবশ্যিক অনাচ্ছাদিত স্থানের সর্বোচ্চ ৫০% পাকা (Paved) হইতে পারিবে এবং এই ৫০% জায়গায় প্লটের ফিনিসড্ গ্রাউন্ড লেভেল হইতে ৪ মিটার বা পিন্থহইতে ৩ মিটার (যাহা কম) উচ্চতায় ছাদ হইতে পারিবে এবং এই আবৃত পরিসর (ছাদ) কোনভাবেই সেটব্যাক স্পেস এর মধ্যে তৈরি করা যাইবে না এবং শুধুমাএ পার্কিং ও নিরাপওা বুথ ব্যতীত অন্য কোন কাজে ব্যবহার করা যাইবে না, তবে বিধি অনুযায়ী একএিত বা বিচ্ছিন্নভাবে আবশ্যিক অনাচ্ছাদিত স্থানের সর্বমোট ৫০% মাটি রাখিবার শর্ত মানিয়া সন্মুখ, পার্শ্ব ও পশ্চাৎ সেটব্যাক স্পেস এর সম্পূর্ণ অংশ পার্কিং স্পেস এর অংশ হইতে পারিবে; রাস্তার দিকে সীমানা দেয়াল সংলগ্ন করিয়া ফিনিসড্ গ্রাউন্ড লেভেল হইতে সর্বোচ্চ ২.৫ মিটার উঁচু এবং সর্বোচ্চ ৫ বর্গমিটার ক্ষেএফল বিশিষ্ট গার্ডরুম (নিরাপওা পোস্ট) করা যাইবে;
(খ) দফা (ক) এ উল্লিখিত আবৃত পরিসর নিরেট দেওয়াল দিয়া (নিরাপওা পোস্ট ব্যতীত) বন্ধ করা যাইবে না এবং জমির অভ্যন্তরে বায়ু চলাচলের সুব্যবস্থা থাকিতে হইবে এবং উক্ত আবৃত অংশের ছাদ শুধুমাএ টেরেস বা টেরেস গার্ডেন হিসাবে ব্যবহার করা যাইবে এবং এই ছাদ কোনভাবেই স্থায়ী বা অস্থায়ী কাঠামো দ্বারা আবৃত হইতে পারিবেনা;
(গ) আবশ্যিক অনাচ্ছাদিত স্থানের নূন্যতম ৫০% সর্বক্ষেএেই ভূমি সমতলে উন্মুক্ত রাখিতে হইবে, যাহাতে বৃষ্টির পানি শোষিত হইতে পারে এবং এই ভূমি সমতলে অনাচ্ছাদিত ৫০% অংশের মধ্যে বেসমেন্ট কোনভাবেই বর্ধিত হইতে পারিবেনা;

(ঘ) ইমারতের দ্বিতীয় বা তদূর্ধ্ব তলার সন্মুখের ব্যালকনিসমূহ নিন্মলিখিত শর্ত সাপেক্ষে ভূমি আচ্ছাদনের পরিমাণের অতিরিক্ত হিসাবে ছাড় পাইবে, যথা :
(অ) ব্যালকনিতে ব্যবহৃত বেষ্টনীর উচ্চতা সর্বোচ্চ ১২০০ মি. মি. হইবে;
(আ) ব্যালকনির ক্ষেএফল ইমারতের সন্মুখের প্রস্থের ৩০% এবং ১ মিটার ব্যালকনির প্রস্থ বিবেচনা করিলে যাহা হয় তাহার অধিক হইতে পারিবেনা;
(ই) কোন অবস্থাতেই ইমারতের সেটব্যাকের মধ্যে এই ব্যালকনি বর্ধিত হইতে পারিবেনা;
(ঈ) উল্লিখিত ব্যালকনিসমূহ সংস্থানের ক্ষেএে প্রতি তলার হিসাবে প্রাপ্য ব্যালকনিসমূহের ক্ষেএফলের সমষ্টি দ্বিতীয় বা তদূর্ধ্ব তলা হইতে যে কোন একটি বা একাধিক ব্যালকনি হিসাবে বন্টন করা যাইবে;

(ঙ) ছাদের বর্ধিতাংশ (কার্নিশ) ইমারতের মূল অংশ হইতে সর্বোচ্চ ১ মিটার পর্যন্ত ইমারতের নূন্যতম সেটব্যাক এর মধ্যে বর্ধিত করা যাইবে এবং এইরূপ বর্ধন কেবলমাএ ইমারতের সন্মুখে করা যাইবে এবং কোনভাবে ভূমি সমতল হইতে ৮ মিটারের নিচে হইবে না;
(চ) সেটব্যাক এর অতিরিক্ত স্পেস ছাড়িয়া ইমারত নির্মাণ করিলে কার্নিশের মাপ ইমারত হইতে সন্মুখ দিকে সর্বোচ্চ ২ মি. পর্যন্ত করা যাইবে এবং ইহার অধিক বৃদ্ধি করিলে অতিরিক্ত অংশ ভূমি আচ্ছাদনের পরিমাপের অন্তর্ভূক্ত হইবে, তবে কোন অবস্থাতেই সেটব্যাকের মধ্যে বর্ধিতকরণের পূর্বোক্ত শর্ত ভঙ্গ করা যাইবে না;
(ছ) প্রকৃতি হইতে সুরক্ষার জন্য সানসেড বা ছাদের বর্ধিতাংশসমূহ ইমারতের সীমারেখা হইতে ইমারতের সেটব্যাক এর মধ্যে সর্বোচ্চ ০.৫মিটার পর্যন্ত বর্ধিত করা যাইবে; কিন্তু কোনরূপ বেষ্টনী দিয়া ঘেরা যাইবে না; বারান্দা বা ব্যালকনি হিসাবে ব্যবহৃত হইতে পারিবে না; রক্ষণাবেক্ষণ ব্যতীত অন্য কোন কারণে প্রবেশযোগ্য হইবে না; এবং পার্শ্বে ও পশ্চাতে সেটব্যাক ১.২৫ মিটারের কম হইলে উক্ত বর্ধিতাংশ ০.৩ মিটারের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখিতে হইবে;
(জ) সেটব্যাক এর অতিরিক্ত জায়গা ছাড়িয়া ইমারত নির্মাণ করিলে সানসেড বা ছাদের বর্ধিতাংশের মাপ ইমারত হইতে সর্বোচ্চ ১.৫মি. পর্যন্ত করা যাইবে; ইহার অধিক বৃদ্ধি করিলে অতিরিক্ত অংশ ভূমি আচ্ছাদনের পরিমাপের অন্তর্ভূক্ত হইবে, তবে কোন অবস্থাতেই দফা (ছ) এ বর্ণিত শর্ত ভঙ্গ করা যাইবে না;
(ঝ) ইমারতের কোন তলে, ইহার বহিঃদেওয়ালে বাইরে সেটব্যাক বা আবশ্যিক অনাচ্ছাদিত স্থানের মধ্যে স্টোর, এসি ও টয়লেট ডাক্ট (Duct), অথবা এই ধরণের ব্যবহার সম্বলিত কোন প্রকার বর্ধিতাংশ নির্মাণ করা যাইবে না;
(ঞ) বহিঃদেওয়ালের বাইরে সানশেড বরাবর সর্বোচ্চ ১০০ মিঃ মিঃ পূর্ব ভার্টিক্যাল ফিন (Fin) নির্মাণ করা যাইবে যাহা কোনভাবেই বাতাস প্রবাহের ক্ষেএে কোনরূপ বাধা সৃষ্টি করিতে পারিবে না;
(ট) নিকটবর্তী প্লটের দিকে উন্মুক্ত করিয়া যান্ত্রিক বায়ুচলাচল ব্যবস্থা, একজাষ্ট (Exhaust) বা ড্রেনেজ ব্যবস্থা তৈরী করা যাইবে না; এবং
(ঠ) মেঝের পরিমাণ বাড়ানোর উদ্দেশ্যে বিভিন্ন বর্ধিতাংশ কোনভাবে ব্যবহার করা যাইবে না ।

(৬) একই প্লটে অবস্থিত সম্পূর্ণ আলাদা কাঠামো বিশিষ্ট দুই বা ততোধিক ইমারতের সন্মুখ ও পশ্চাতের মধ্যবর্তী সেটব্যাক ৪ (চার) মিটার এবং পার্শ্বদেশের মধ্যবর্তী সেটব্যাক ২.৫ (আড়াই) মিটার হইতে হইবে ।
(৭) আলো-বাতাসের সংস্থানসহ বিধি অনুযায়ী নকশা প্রণয়ন করা হইলে একই প্লটে একাধিক ভবন সংযুক্ত হইতে পারিবে, তবে এই ক্ষেএে ইমারত সমূহের ক্ষুদ্রতর বাহুর সংশ্লিষ্ট দৈর্ঘের নূন্যতম ৩০% অংশ সংযুক্ত থাকিতে হইবে ।
(৮) শুধুমাএ উক্ত প্লটেই শেষ হইয়াছে এইরূপ রাস্তা সম্বলিত জমিতে প্রস্তাবিত ইমারত সন্মুখের সীমানা হইতে নূন্যতম ২ (দুই) মিটার দূরত্বে নির্মিত হইতে হইবে ।

(৪৭) বেসমেন্ট এর সেটব্যাক :
১) বেসমেন্ট আবশ্যিক অনাচ্ছাদিত স্থানের মধ্যে বর্ধিত করা যাইবে, উক্ত বর্ধিতাংশ আবশ্যিক অনাচ্ছাদিত স্থানের সর্বোচ্চ ৫০% পর্যন্ত সীমাবদ্ধ থাকিবে এবং আবশ্যিক অনাচ্ছাদিত স্থানের বাকী ৫০% ভূমি সমতলেও উন্মুক্ত থাকিতে হইবে ।
২) প্রতিবেশীর সম্পওির নিরাপওা নিশ্চিত করিয়া বেসমেন্ট সীমানা দেয়াল পর্যন্ত বর্ধিত করা যাইবে, তবে রাস্তার দিকে নূন্যতম সেটব্যাক ছাড়িয়া বেসমেন্ট নির্মাণ করিতে হইবে ।
৩) সংযুক্ত প্লটের কোনরকম ক্ষতি না করিয়া বেসমেন্টের ছাদ সংযুক্ত রাস্তার সর্বোচ্চ তল হইতে সর্বোচ্চ ১.৫ মিটার উপরে নির্মাণ করা যাইবে, এই ১.৫ মিটার উচ্চতায় উঠা বা নামার জন্য প্রযোজ্য সিঁড়ি বা রেম্প সীমানা দেয়াল সংলগ্ন করিয়া ইমারতের সেটব্যাক অংশেও নির্মাণ করা যাইবে, তবে এই সিঁড়ি বা রেম্প এর উপর সেটব্যাক অংশটুকুতে স্থায়ী বা অস্থায়ী আচ্ছাদন তৈরী করা যাইবেনা এবং এই রেম্প সংস্থানের জন্য বিধি ৫৬ (৮) ও ৫৬ (৯) প্রযোজ্য হইবে ।

(৪৮) প্লট বিভাজন :
১) কোন খালি বা ইমারতসহ প্লট দুই বা ততোধিক প্লটে বিভক্ত করিবার ক্ষেএে, প্রতিটি উপ-প্লটের ও ইমারতের জন্য রাস্তা এবং যানবাহন প্রবেশগম্যতা নিশ্চিত করিতে হইবে ।
২) প্লট উপ-বিভক্তিকরণের ফলে নতুনভাবে সৃষ্ট প্লটসমূহে বিদ্যমান ইমারত বা ইমারতসমূহ পৃথকভাবে সেটব্যাক, ভূমি আচ্ছাদন এবং FAR এর নিয়ম অনুযায়ী থাকিতে হইবে ।
৩) প্লট উপ-বিভক্তিকরণের ক্ষেএে শুধুমাএ একটি প্লটের জন্য ব্যক্তিগত রাস্তার পরিমাপ নূন্যতম ৩.৬৫ মিটার চওড়া হইতে হইবে এবং উক্ত ব্যতিক্রম শুধুমাএ আবাসিক ব্যবহারের ক্ষেএে প্রযোজ্য হইবে ।
৪) উপ-বিধি (৩) এ উল্লিখিত রাস্তা ৩৩ মিটারের অধিক দীর্ঘ না হইলে উক্ত প্লটের FAR নির্ধারণের জন্য মূল রাস্তার প্রস্থ বিবেচিত হইবে, তবে এই ক্ষেএে ঐ নিজস্ব সংযোগকারী রাস্তার ক্ষেএফল FAR ও ভূমি আচ্ছাদন নির্ধারণের ক্ষেএে বিবেচ্য হইবে না ।
৫) উপ-বিধি (৩) এ উল্লিখিত রাস্তা ৩৩ মিটারের অধিক দীর্ঘ হইলে বিধি ৫১ (৯) অনুযায়ী প্রদেয় FAR প্রযোজ্য হইবে ।
৬) আবাসিক ব্যবহার ব্যতীত অন্যান্য ব্যবহারের ক্ষেএে প্লট উপ-বিভক্তিকরণের জন্য রাস্তার পরিমাপ নূন্যতম ৬ মিটার হইতে হইবে ।
৭) পরিকল্পিত আবাসিক এলাকাতে প্লট বিভাজনের ক্ষেএে প্লটের আয়তন কমপক্ষে ৫(পাঁচ) কাঠা অথবা ঐ এলাকায় একক প্লট হিসাবে কতৃপক্ষ কতৃক বরাদ্দকৃত সর্বনিন্ম আয়তনের প্লট অপেক্ষা (যাহা কম) ক্ষুদ্র আয়তনের প্লট হিসাবে বিভাজন করা যাইবে না ।
৮) একাধিক প্লটের ক্ষেএে নিজস্ব বা এজমালী রাস্তা ৬ মিটার প্রশস্ত হইতে হইবে ।
৯) বেসরকারী প্রতিষ্ঠান কতৃক উন্নীত বা সৃষ্ট আবাসিক এলাকায় প্লটের ক্ষেএে রাস্তার প্রশস্ততা বেসরকারী আবাসিক প্রকল্পের ভূমি উন্নয়ন বিধিমালা-২০০৪ অথবা এতদসংক্রান্ত অন্য কোন বিধিমালার বিধানানুযায়ী হইতে হইবে ।

(৪৯) প্লট একএীকরণ :
উন্নয়ন প্রকল্পে একাধিক প্লট একএীকরণ করা যাইবে, তবে পৃথক পৃথক প্লট হওয়া সও্বেও একএীকৃত প্লটসমূহকে একটি অখন্ড প্লট হিসেবে গণ্য করিতে হইবে । ঐ অখন্ড প্লটের ক্ষেএে জমির ক্ষেএফল ও সংলগ্ন রাস্তার প্রশস্ততা (যাহা কম) বিবেচনা করিয়া FAR ও ভূমি আচ্ছাদন নির্ধারণ করা হইবে ।

(৫০) সর্বোচ্চ অনুমোদনযোগ্য ভূমি আচ্ছাদন (Maximum Ground Coverage) :
১) ইমারত সমূহের সর্বোচ্চ অনুমোদিত ভূমি আচ্ছাদন প্লটের পরিমাণ, ইমারতের ব্যবহার এবং রাস্তার প্রস্থের উপর ভিওি করিয়া নির্ধারিত হইবে ।
২) বিধি ৪৬ (৫) এ উল্লিখিত অংশসমূহ ছাড়া ইমারতের কোন অংশ সর্বোচ্চ অনুমোদিত ভূমি আচ্ছাদন এর বাহিরে, আবশ্যিক অনাচ্ছাদিত স্থানের মধ্যে বর্ধিত করা যাইবে না ।
৩) আবশ্যিক অনাচ্ছাদিত স্থান ইমারত উন্নয়নের অবিভাজ্য অংশ হিসাবে এবং ইমারত অনুমোদনের বিধান হিসাবে বিবেচিত হইবে এবং পৃথকভাবে বিভক্তি, বিক্রয় বা উন্নয়নযোগ্য হইবে না ।

Card image cap
রাজউক ইমারত নির্মাণ বিধিমালা - ২০০৮ পর্ব-২
engr.tushar - 22 Nov 2016
(১৩) নির্মাণ অনুমোদনপএ : ১)কোন ব্যক্তি বা সরকারী বা বেসরকারী সংস্থা নতুন ভবন বা অবকাঠামো নির্মাণ করিতে বা বিদ্যমান ভবন বা অবকাঠামো পরিবর্তন, পরিবর্ধন বা সংযোজন করিতে ইচ্ছুক হইলে আইন অনুযায়ী নির্মাণ অনুমোদনপএ গ্রহণ করিতে হইবে । ২) উপ-বিধি (১) এ বর্ণিত নির্মাণ অনুমোদনপএের জন্য উপ-বিধি (৪) হইতে (১২) এ বর্ণিত প্রয়োজনীয় দলিলাদী এবং সংশ্লিষ্ট নকশা সমূহের ৮ (আট) প্রস্থ এবং নির্ধারিত ফি সহ নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০১) এর মাধ্যমে আবেদন করিতে হইবে। ৩) আবেদনকারী এবং বিধি ৪১ এর আওতায় প্রণীত তালিকা মোতাবেক যথাযথ যোগ্যতাসম্পন্ন কারিগরী ব্যক্তিবর্গ নকশায় অমুদ্রিত স্বাক্ষর প্রদান করিবে এবং কারিগরী ব্যক্তিবর্গকে তাহাদের পেশাজীবি সংগঠনের সদস্য নম্বর ও রেজিস্ট্রেশন নম্বর নকশা ও দলিলাদির নির্ধারিত স্থানে উল্লেখ করিতে হইবে । ৪) নির্মাণ অনুমোদনপএের জন্য আবেদনপএের সহিত নিন্মলিখিত দলিলাদি (A3 বা A4 আকারের কাগজে) নকশাসহ সংযুক্ত করিয়া উপস্থাপন করিতে হইবে, যথা : (ক) প্রযোজ্য ক্ষেএে ভূমি ব্যবহার ছাড়পএ এবং বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএের অনুলিপি; (খ) পরিশিষ্ট-৪ অনুযায়ী নির্ধারিত ফি প্রদানের রশীদ; (গ) প্রস্তাবিত উন্নয়নের ভূমি ও ভবনাদিতে আবেদনকারীর বৈধ মালিকানার প্রমাণস্বরূপ দলিলাদির সত্যায়িত অনুলিপি; (ঘ) বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএের নির্দেশ মোতাবেক প্রযোজ্য ক্ষেএে যোগ্যতাসম্পন্ন কারিগরী ব্যক্তি কতৃক প্রদও মৃওিকা পরীক্ষা (Soil Test) প্রতিবেদন; (ঙ) এ্যাপার্টমেন্ট ভবনের ক্ষেএে তলাওয়ারী আবাস-ইউনিটের সর্বমোট সংখ্যা; (চ) প্লটের ক্ষেএফল, FAR এর হিসাব, ভূমি আচ্ছাদন, সেট ব্যাক স্থানের পরিমাপ এবং মোট তলার সংখ্যা; (ছ) গভীর ভিওি, পাইলিং, বেজমেন্ট বা ভূগর্ভস্থ তলা নির্মাণের জন্য প্রযোজ্য ক্ষেএে নির্ধারিত ছক (সংযুক্তি-৩০১) এর মাধ্যমে আবেদনকারী স্বাক্ষরিত প্রদও ক্ষতিপূরণ মুচলেকা; এবং (জ) প্রকল্পে নিয়োজিত স্থপতির অভিজ্ঞতার প্রমানস্বরূপ সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানে কারিগরি ব্যক্তি হিসাবে তালিকাভূক্ত সার্টিফিকেট এর অনুলিপি । (৫) আন্তর্জাতিক A সিরিজের (A0 হইতে A4 সাইজ) কাগজে মেট্রিক মাপে সকল নকশা প্রণয়ন করিতে হইবে, যাহা নিন্মরূপ : A0 ১১৮৮ এম.এম x ৮৪১ এম.এম A1 ৮৪১ এম.এম x ৫৯৪ এম.এম A2 ৫৯৪ এম.এম x ৪২০ এম.এম A3 ৪২০ এম.এম x ২৯৭ এম.এম A4 ২৯৭ এম.এম x ২১০ এম.এম (৬) নকশাসমূহে নিন্মলিখিত তথ্য সন্নিবেশিত থাকিতে হইবে, যথা : (ক) নকশার টাইটেলসহ আবেদনকারীর নাম, ঠিকানা, টেলিফোন নম্বর (যদি থাকে) ও অমুদ্রিত স্বাক্ষর; (খ) প্রযোজ্য ক্ষেএে সংশ্লিষ্ট পরিকল্পনাবিদ, স্থপতি বা প্রকৌশলীর নাম, ঠিকানা, টেলিফোন নম্বর (যদি থাকে) ও অমুদ্রিত স্বাক্ষরসহ স্ব স্ব পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানের সদস্যপদ নম্বর ও রেজিস্ট্রেশন নম্বর; (গ) সরকার কতৃক পরিকল্পিত ও উন্নয়নকৃত ভূমি বা প্লটের ক্ষেএে প্লট বা হোল্ডিং এর বরাদ্দ গ্রহীতার নাম ও ঠিকানা, রাস্তা ও এলাকার নাম এবং বেসরকারী প্রতিষ্ঠান কতৃক উন্নয়নকৃত এলাকার প্লটের ক্ষেএে প্লট বা হোল্ডিং এর মালিকের নাম ও ঠিকানা, রাস্তা এবং এলাকার নামসহ লে-আউট নকশা অনুমোদনের রেফারেন্স নম্বর ও তারিখ; (ঘ) ব্যক্তি বা অন্যান্য ক্ষেএে হোল্ডিং নম্বর, রাস্তা ও এলাকার নামসহ প্রযোজ্য ক্ষেএে ভূমি ব্যবহার ছাড়পএের রেফারেন্স নম্বর ও তারিখ; (ঙ) নির্মাণের উদ্দেশ্য ও প্রস্তাবিত ব্যবহার এবং (চ) মৌজার নাম এবং সি.এস./আর.এস./এস.এ. দাগ নম্বর বা প্লট নম্বরসহ সাইট যে থানার অন্তর্গত, তাহার নাম । (৭) সাইট প্ল্যান বা এলাকা নকশা অনূন্য ১ : ৪০০০ স্কেলে অঙ্কিত হইবে এবং উহাতে নিন্মলিখিত তথ্য থাকিতে হইবে, যথা: (ক) সাইট যে মৌজায় অবস্থিত, সাইটের অবস্থানসহ উহার সি.এস. ম্যাপ এবং প্রয়োজনীয় ক্ষেএে আর.এস. বা এস.এ. ম্যাপের অংশবিশেষ অথবা সরকার বা অনুমোদিত বেসরকারী প্রতিষ্ঠান কতৃক উন্নয়নকৃত প্রকল্পের ক্ষেএে সাইটের অবস্থানসহ প্রকল্প এলাকা নকশার অংশবিশেষ; এবং (খ) সাইটের দাগ বা প্লট এবং পার্শ্ববর্তী দাগ বা প্লটসমূহের অবস্থান নির্দেশক । (৮) লে-আউট নকশা ১ : ২০০ স্কেলে অঙ্কিত হইতে হইবে এবং ইহাতে নিন্মলিখিত তথ্য থাকিতে হইবে, যথা : (ক) সাইটের প্রতি দিকের সীমানা ও পরিমাপ; (খ) প্রযোজ্য ক্ষেএে, সাইটে বিদ্যমান ভবনসমূহের পরিসীমা, বহিঃর্ভাগের পরিমাপ, উচ্চতা, তলার সংখ্যা এবং রক্ষিত আবশ্যিক উন্মুক্ত স্থানের পরিমাপ; (গ) প্রযোজ্য ক্ষেএে, সাইটে প্রস্তাবিত ও বিদ্যমান ভবন বা কাঠামো, জলাশয়, উদ্যান, অন্যান্য ভূ-নৈসর্গিক এলাকা, নীচু ভূমি, উন্মুক্ত প্রান্তর, বনাঞ্চল ইত্যাদির অবস্থান; (ঘ) এলাকা ও সড়কের নাম; (ঙ) সন্নিহিত সড়ক সমূহের দৃষ্টে সাইট বা প্লটের দিক নির্দেশ, সাইটের সংলগ্ন রাস্তার প্রস্থ এবং ব্যক্তি মালিকানাধীন বা নিজস্ব রাস্তার ক্ষেএে সম্পূর্ণ রাস্তার দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ; (চ) রাস্তা হইতে সাইটে প্রবেশ ও নির্গমনের গেইটের অবস্থান; (ছ) প্রস্তাবিত ও বিদ্যমান ভবন সমূহের চারিদিকে পানি প্রবাহের দিক নির্দেশনা সহ নর্দমার (যদি থাকে) অবস্থান; (জ) ভূগর্ভস্থ জলাধার, সেপটিক ট্যাংক এবং সোক পিট, পয়ঃনিষ্কাশন লাইনের সহিত সংযোগের অবস্থান (যদি থাকে); এবং (ঝ) সাইটের মধ্যে আবর্জনা সংগ্রহ স্থলের অবস্থান । (৯) একাধিক ইমারত এবং অন্যান্য অবকাঠামো ও স্থাপনাবিশিষ্ট বৃহৎ প্রকল্পের ক্ষেএে উপযুক্ত স্কেলে একটি কী-প্ল্যান প্রস্তুত করিতে হইবে যাহাতে সকল ইমারত বা অবকাঠামোর অবস্থান ও পরিসীমা, রাস্তার লে-আউট, সকল ভূদৃশ্য এবং ভৌগোলিক উপাদান, যথা : বৃক্ষ, পাহাড়, পুকুর বা জলাধার, ভূমি খনন বা ভরাটের স্থান ইত্যাদি প্রদর্শিত থাকিবে । (১০) ভূ-গর্ভস্থ ও মেজানাইন ফ্লোরসহ ইমারতের সকল তলার ফ্লোর প্ল্যান ১ : ১০০ স্কেলের মাপে প্রণয়ন করিতে হইবে এবং ইহাতে নিন্মলিখিত বিষয়সমূহ সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ থাকিতে হইবে, যথা : (ক) দরজা ও জানালার অবস্থান সহ সকল কক্ষ ও পরিসরের পরিমাপ, আকৃতি, অবস্থান এবং ব্যবহার; (খ) সিঁড়িঘরসহ প্রযোজ্য ক্ষেএে লিফটকোর, এসকেলেটর, রেম্প, জরুরী নির্গমন সিঁড়ির অবস্থান ও পরিমাপ; (গ) ছাদের পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা, টেরাস (Terrace) (যদি থাকে), লিফট মেশিন রুম (প্রযোজ্য ক্ষেএে), সিঁড়িঘরের ছাদ, ছাদের স্থায়ী জলাধার (যদি থাকে) এবং পানির আউটলেট প্রদর্শনপূর্বক প্রণীত ছাদের নকশা; (ঘ) প্রবেশ, নির্গমন, ড্রাইভওয়ে ও পার্কিং এর স্থান প্রদর্শনপূর্বক পার্কিং প্ল্যান এবং নিরাপওা পোস্ট এর অবস্থান; (ঙ) প্রযোজ্য ক্ষেএে বৈদ্যুতিক ও যান্ত্রিক কক্ষের অবস্থান; এবং (চ) একাধিক ইমারত বা স্থাপনাবিশিষ্ট কমপ্লেক্সের ক্ষেএে যানবাহন ও পথচারী প্রবেশ, গাড়ী হইতে অবরোহণ, আরোহণ ও যান চলাচলের স্থান । (১১) গুরুত্বপূর্ণ অংশের পরিমাপসহ কমপক্ষে দুইটি সেকশন (লম্বালম্বি ও আড়াআড়ি) ১ : ১০০ স্কেলের মাপে প্রণয়ন করিতে হইবে যাহার মধ্যে অন্তত একটি সিঁড়িঘরকে ছেদ করিবে এবং ছেদ চিএে নিন্মলিখিত বিষয়গুলি প্রদর্শন করিতে হইবে, যথা : (ক) মেজানাইনসহ (প্রযোজ্য ক্ষেএে) প্রতি তলার উচ্চতা, কাড় (Loft), উপরিস্থ জলাধার (যদি থাকে), লিফট মেশিন রুম (যদি থাকে), প্যারাপেট এর উচ্চতা, বিদ্যমান ভূমি, সড়ক ও ফুটপাথের প্রেক্ষিতে ভবনের সর্ব্বোচ্চ উচ্চতা; (খ) দেওয়াল হইতে বর্হিঃভাগ প্রসারিত বিভিন্ন অংশের পরিমাপ (ব্যালকনি, সানশেড ইত্যাদি); এবং (গ) ভূমিতলের বিদ্যমান ও প্রস্তাবিত লেভেল । (১২) ইমারতের সর্ব্বোচ্চ উচ্চতা ও গুরুত্বপূর্ণ পরিমাপসহ সকল দিকের উন্নতি (Elevations) চিএ ১ : ১০০ স্কেলে প্রণয়ন করিতে হইবে । (১৪) নির্মাণ অনুমোদনপএ আবেদনের নিষ্পওি : ১) কতৃপক্ষের নিকট ইমারত নির্মাণের আবেদনপএটি অসম্পূর্ণ বা ক্রুটিপূর্ণ চিহ্নিত হইলে আবেদনপএ প্রাপ্তির ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে প্রয়োজনীয় তথ্য ও দলিলাদি সরবরাহের জন্য কতৃপক্ষ লিখিতভাবে আবেদনকারীকে অনুরোধ জানাইবে । ২) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী তথ্য ও দলিলাদি সরবরাহের অনুরোধ সম্বলিত পএ প্রাপ্তির তারিখ হইতে ৩০ (এিশ) দিনের মধ্যে আবেদনকারীকে প্রয়োজনীয় তথ্য ও দলিলাদি কতৃপক্ষের নিকট সরবরাহ করিতে হইবে এবং উক্ত সময়ের মধ্যে তাহা সরবরাহ করিতে ব্যর্থ হইলে উক্ত আবেদন বাতিল বলিয়া গণ্য হইবে । ৩) কতৃপক্ষ আবেদন প্রাপ্তির ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) দিনের মধ্যে অথবা নতুন তথ্য ও দলিলাদি সরবরাহ করা হইলে উহা প্রাপ্তির তারিখ হইতে ৩০ (এিশ) দিনের মধ্যে নিয়ম অনুযায়ী প্রস্তাবিত উন্নয়ন প্রকল্পটি শর্তহীন অথবা শর্তসাপেক্ষে নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০২) এর মাধ্যমে অনুমোদন প্রদান করিবে । ৪) উপ-বিধি (৩) এর বিধান অনুযায়ী আবেদনপএ অনুমোদিত হইলে আবেদনকারী কতৃপক্ষের নিকট হইতে স্বাক্ষর ও সীলযুক্ত ৪ (চার) ফর্দ অনুমোদিত নকশা ও দলিলাদি প্রাপ্তির অধিকারী হইবে । ৫) আবেদনপএ প্রত্যাখান করা হইলে কতৃপক্ষ ইহার কারণ প্রদর্শনপূর্বক নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০৩) এর মাধ্যমে আবেদনকারীকে অবহিত করিবে । ৬) উপ-বিধি (৫) অনুযায়ী আবেদন প্রত্যাখান করা হইলে আবেদনকারী আইনের ১৫ ধারা অনুযায়ী নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০৪) এর মাধ্যমে নগর উন্নয়ন কমিটির নিকট আপিল আবেদন করিতে পারিবে । ৭) উপ-বিধি (৬) এর অধীন আপিল নিষ্পওির জন্য নগর উন্নয়ন কমিটি প্রয়োজনে একটি আপিল সাব-কমিটি গঠন করিবে এবং আপিল সাব-কমিটি আবেদন প্রাপ্তির ৩০ (এিশ) দিনের মধ্যে কতৃপক্ষের নিকট আবেদন অনুমোদন অথবা প্রত্যাখানের সিদ্ধান্ত প্রদান করিবে । ৮) উপ-বিধি (৭) অনুযায়ী আপিল আবেদন গৃহীত হইলে কতৃপক্ষ নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০৫) এর মাধ্যমে অনুমোদন বা আপিল আবেদন গৃহীত না হইলে কতৃপক্ষ নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০৬) এর মাধ্যমে প্রত্যাখান করিবে । (১৫) নির্মাণ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আবেদনকারীর দায়িত্ব ও কর্তব্য : ১) ইমারত নির্মাণে অনুমোদনপ্রাপ্ত আবেদনকারী কোন অবস্থাতেই অনুমোদিত নকশা ও দলিলাদির পরিপন্থী কোন কাজ করিবেন না । ২) প্রকল্প নির্মাণ কাজ বিধি ৪৩ এ উল্লেখিত সারণী-১ এর বর্ণনা মোতাবেক কারিগরী দক্ষ ব্যক্তিবর্গ দ্বারা তও্বাবধান করাইতে হইবে । ৩) কাজ শুরু করিবার অন্তত ১৫ (পনের) দিন পূর্বে নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০৭) এর মাধ্যমে কতৃপক্ষকে লিখিতভাবে কাজ শুরু করিবার অথবা স্থগিত কাজ পুনরায় শুরু করিবার ইচ্ছা জানাইয়া নোটিশ প্রদান করিতে হইবে যাহাতে নির্মাণ কাজের সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গের প্রত্যয়ন বা সম্মতি স্বাক্ষরও থাকিতে হইবে । ৪) প্রকল্পে নিয়োজিত কোন কারিগরী ব্যক্তিকে নতুন নিয়োগ অথবা পরিবর্তন সম্পর্কে নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০৮) এর মাধ্যমে কতৃপক্ষকে ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে লিখিতভাবে জানাইতে হইবে এবং কারিগরী ব্যক্তি পরিবর্তনের ক্ষেএে নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত কারিগরী ব্যক্তির দায়িত্ব গ্রহণ না করা এবং তাহার সম্মতি কতৃপক্ষকে না জানানো পর্যন্ত নির্মাণ কাজ স্থগিত থাকিবে । ৫) আবেদনকারীকে নিশ্চিত করিতে হইবে যেন : (ক) সকল ধরনের উন্নয়ন ও নির্মাণ কাজ কারিগরী দক্ষ ব্যক্তি দ্বারা যাহাদের বিবরণ পূর্বেই কতৃপক্ষের নিকট প্রদান করা হইয়াছে তাহাদের তও্বাবধানে সম্পন্ন হয়; (খ) কোন কারণবশতঃ নিয়োগপ্রাপ্ত কারিগরী দক্ষ ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গের কাজ বন্ধ হইয়া গেলে, তাহা ১৫ (পনের) দিনের মধ্যেই কতৃপক্ষকে অবহিত করা হয়; এবং (গ) কারিগরী দক্ষ ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গের নতুন নিয়োগ এবং এই সম্পর্কে কতৃপক্ষকে অবহিত না করা পর্যন্ত নির্মাণ কাজ স্থগিত থাকে । ৬) ইমারতের বর্ধিতকরণ, পরিবর্তন অথবা স্থগিত বা অসম্পূর্ণ কাজ সম্পাদনসহ যে কোন নির্মাণ কাজ শুরু করিবার পূর্বে আবেদনকারীকে অবশ্যই : (ক) নিশ্চিত হইতে হইবে যে, নির্মাণ প্রকল্পের সকল প্রয়োজনীয় নকশা অনুমোদনপ্রাপ্ত এবং অনুমোদিত সময়সীমার মধ্যে রহিয়াছে এবং অনুমোদিত নকশার কপি সাইটে সহজে দৃশ্যমান স্থানে প্রদর্শন করিতে হইবে; (খ) বিধি ৪৩ এ উল্লেখিত সারণী-১ অনুসারে অনুমোদিত কারিগরী ব্যক্তি দ্বারা প্রয়োজনীয় হিসাব-নিকাশসহ সকল কাঠামোগত, বৈদ্যুতিক এবং যান্ত্রিক ডিজাইন ও ড্রয়িং প্রস্তুত করা নিশ্চিত করিতে হইবে; এবং (গ) যথাযথ নিয়মে প্রকল্পের স্থাপতিক, কাঠামো, বৈদ্যুতিক ও যান্ত্রিক ডিজাইন এবং তও্বাবধান (যাহা প্রযোজ্য) করিবার দায়িত্বপ্রাপ্ত সকল কারিগরী ব্যক্তিগণের নাম-ঠিকানাসহ তাহাদের সম্মতি কতৃপক্ষের গোচরে আনিতে হইবে । (৭) ইমারতের পিন্থ পর্যায় পর্যন্ত কাজ সম্পূর্ণ হইলে উহা আবেদনকারীকে নিয়োজিত কারিগরী ব্যক্তিবর্গের প্রতিবেদন সহ নির্ধারিত ছক (ফরম-৩০৯ ও ফরম-৩১০) এর মাধ্যমে কতৃপক্ষকে অবহিত করিতে হইবে । (৮) পিন্থ লেভেল পর্যন্ত নির্মাণ সম্পন্নকরণ অবহিত হওয়ার পর কতৃপক্ষ তাহা পরিদর্শনের ব্যবস্থা করিবে এবং ৭ (সাত) দিনের মধ্যে পিন্থস্তর নির্মাণ কাজ অগ্রসরের জন্য নির্ধারিত ছক (ফরম-৩১১) এর মাধ্যমে সম্মতি অথবা কারণসহ নির্ধারিত ছক (ফরম-৩১২) এর মাধ্যমে অসম্মতি প্রদান করিবে, অন্যথায় নির্মাণকাজ চলিতে থাকিবে । (১৬) কারিগরী ব্যক্তির দায়িত্ব ও কর্তব্য : ১) ইমারতের নকশা প্রনয়ন ও নির্মাণ তদারকীতে নিযুক্ত কোন কারিগরী ব্যক্তির ইমারত বা প্রকল্পের সহিত তাহার সংশ্লিষ্টতার মেয়াদ নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ হইবার আগেই ছেদ হইয়া গেলে বিষয়টি ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে নির্ধারিত ছক (ফরম-৩১৩) এর মাধ্যমে আংশিক কাজ তদারকীর প্রত্যয়নপএ সহ কতৃপক্ষকে অবহিত করিতে হইবে । ২) নির্মাণ কাজ আংশিক বা পূর্ণ সমাপনান্তে বসবাস বা ব্যবহার সনদ গ্রহণের জন্য নির্মাণ সমাপ্তি সনদ প্রদান করা পর্যন্ত সাধারনভাবে একজন কারিগরী ব্যক্তির দায়িত্বের সংশ্লিষ্টতা থাকিবে । ৩) এই বিধিমালার আওতায় ইমারতের সহিত দায়িত্বপ্রাপ্ত কারিগরী ব্যক্তির গাফিলতি হিসাবে গণ্য হইবে, যদি তিনি কোন যুক্তিসঙ্গত কারণ ছাড়াই : (ক) নির্ধারিত ডিজাইন ও স্পেসিফিকেশনের সহিত যুক্ত এমন কোন প্রয়োজনীয় তথ্য ও বিবরণ সম্পর্কে ভুল তথ্য প্রদান করেন বা গোপন রাখেন; এবং (খ) কাঠামো নকশা (Structural Design), অগ্নি-নির্বাপক অথবা অন্যান্য নিরাপওা ব্যবস্থা সম্পর্কে ভুল তথ্য পরিবেশন করেন কিংবা এড়াইয়া যান । (১৭) নির্মাণ সংশ্লিষ্ট নিরাপওা ও তদারকী : ১) নির্মাণ স্থলে এবং তাহার চারিপাশে প্রয়োজনীয় এবং যথোপযুক্ত নিরাপওা ব্যবস্থা থাকিতে হইবে । ২) যদি নির্মাণ কাজ কোন রাস্তায় বা স্থানে জনসাধারণের জন্য বাধা, বিপওি অথবা অসুবিধা সৃষ্টি করে, তাহা হইলে আবেদনকারী কতৃক উক্ত স্থানে অস্থায়ী ঘের, জীবনরক্ষাকারী বাধা (Shield) এবং বিকল্প চলাচল পথ তৈরি করিয়া জনসাধারণের নিরাপওা নিশ্চিত করিতে হইবে । ৩) নির্মাণ প্রকল্পের দ্রব্যাদি ও জিনিসপএ জনপথে কিংবা ফুটপাথে রাখিয়া জনসাধারণের চলাচলে অসুবিধা সৃষ্টি করা যাইবে না । ৪) আবাসিক এলাকায় সন্ধ্যা ৬টা হইতে সকাল ৬টা পর্যন্ত কোন যন্ত্রপাতি ব্যবহার বা নির্মাণ পদ্ধতির মাধ্যমে নির্মাণ সাইট বা প্রকল্প স্থলে বিরক্তিকর কোন আওয়াজ বা পরিস্থিতির সৃষ্টি করা যাইবে না এবং দিন-রাএির কোন সময়ই সাইটে পাথর বা খোয়া ভাঙ্গানো মেশিন ব্যবহার করা যাইবে না । ৫) যখন এবং যেমন প্রয়োজন হইবে এই নিয়ম অনুযায়ী আবেদনকারী কতৃপক্ষের পরিদর্শনে কারিগরী দক্ষ ব্যক্তি দ্বারা এবং এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য, ড্রইং ও অন্যান্য কাগজপএ সরবরাহ করিয়া এবং স্ব-খরচে পরীক্ষা করিয়া সহায়তা প্রদান করিবে । (১৮) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ (Occupancy Certificate) : ১) ইমারত আংশিক বা সম্পূর্ণ নির্মাণ সম্পন্ন হইবার পর ইহার ব্যবহার বা বসবাসের জন্য বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ গ্রহণ করিতে হইবে । ২) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ গ্রহণের জন্য আবেদন পএের সহিত নিন্মলিখিত দলিল বা নকশাদি কতৃপক্ষের সংরক্ষণের জন্য দাখিল করিতে হইবে, যথা : (ক) সমাপ্তি প্রতিবেদন (Completion Report); (খ) কতৃপক্ষ কতৃক অনুমোদিত স্থাপত্য নকশার ভিওিতে নির্মিত ইমারতের নির্মাণ নকশা (As-built Architectural Drawing); (গ) ইমারতের কাঠামো নকশা (Structural Design); এবং (ঘ) ইমারত সেবা (Building Services) সংক্রান্ত সকল নকশা । ৩) উপ-বিধি (২) এ উল্লিখিত সকল নকশার ডিজাইন পর্যাপ্ততা (Design Adequacy) ও উপযুক্ততার যাবতীয় দায়িত্বভার নকশার সহিত সংশ্লিষ্ট পেশাজীবিদের (স্থপতি বা প্রকৌশলী) উপর বর্তাইবে । (১৯) সমাপ্তি প্রতিবেদন : ১) নির্মাণ প্রকল্পের আংশিক অথবা সম্পূর্ণ কাজের উপর আবেদনকারী নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০১) এর মাধ্যমে একটি সমাপ্তি প্রতিবেদন দাখিল করিবেন এবং কতৃপক্ষের নিকট উক্ত প্রকল্পের আংশিক কিংবা সম্পূর্ণ বসবাস বা ব্যবহার সনদপএেরজন্য আবেদন করিবেন এবং কতৃপক্ষের নিকট হইতে আংশিক বা সম্পূর্ণ বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ লাভ করিবার পূর্ব পর্যন্ত উক্ত ইমারত বা কাঠামো আংশিক কিংবা সম্পূর্ণ কোন অবস্থাতেই ব্যবহার করা যাইবে না । ২) নিয়োজিত কারিগরী ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গ নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০২) এর মাধ্যমে প্রত্যয়নপএ প্রদান করিবে এবং উক্ত প্রত্যয়নপএে নির্মাণ কাজ নির্ধারিত নিয়ম অনুযায়ী তাহার বা তাহাদের তদারকীতে সম্পন্ন হইয়াছে ইহার উল্লেখ থাকিবে । ৩) নিযুক্ত কারিগরী ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গ তাহার দায়িত্ব পালনকালীন সময়ে যে যে কাজের তদারকী করিয়াছেন তাহার তদারকী প্রতিবেদন দাখিল করিতে হইবে । ৪) কতৃপক্ষ আবেদনকারী ও কারিগরী ব্যক্তিগণের উপস্থিতিতে আবেদনপএ প্রাপ্তির ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে ইমারতটি পরিদর্শন করিবে । ৫) ইমারতটি অনুমোদিত নকশা মোতাবেক নির্মিত হইয়াছে কিনা তাহা পরীক্ষান্তে লিপিবদ্ধ করা হইবে এবং পরিদর্শনের ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৩) এর মাধ্যমে সম্পূর্ণ ইমারতের নকশা অনুমোদনসহ বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ প্রদান করা হইবে । ৬) ইমারত বা প্রকল্পটি অনুমোদিত নকশার ব্যত্যয় ঘটাইয়া নির্মাণ করা হইলে কতৃপক্ষ উহা ব্যবহারের জন্য কোন সনদপএ প্রদান করিবে না এবং সেই ক্ষেএে কতৃপক্ষ ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৪) এর মাধ্যমে বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ প্রদান না করিবার কারণ জানাইয়া দিবে এবং আবেদনকারীকে নির্দিষ্ট সময় নির্ধারণপূর্বক উক্ত ইমারতটি অনুমোদিত নকশা অনুযায়ী নির্মাণ করিবার প্রয়োজনীয় আদেশ প্রদান করিবে । ৭) আবেদনকারী উপ-বিধি (৬) এ বর্ণিত আদেশ অনুযায়ী সকল ধরণের ক্রুটি মেরামত করিয়া এবং অন্যান্য আরোপিত শর্ত, যদি প্রদান করা হয়, পালন করিয়া নির্ধারিত তারিখের মধ্যে বসবাস বা ব্যবহার সনদপএের জন্য নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৫) এর মাধ্যমে পুনঃআবেদন করিতে পারিবে । ৮) কতৃপক্ষ আবেদনকারীর পুনঃআবেদন বিবেচনা করিয়া নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৩) এর মাধ্যমে বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ প্রদানকরিবে বা নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৪) এর মাধ্যমে আবেদন প্রত্যাখান করিবে । ৯) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএের আবেদন প্রত্যাখান করা হইলে আবেদনকারী নগর উন্নয়ন কমিটির নিকট লিখিত আপিল আবেদন করিতে পারিবে এবং উক্ত কমিটি পর্যালোচনাপূর্বক বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ প্রদান অথবা প্রত্যাখানের বিষয়ে কতৃপক্ষকে নির্দেশনা প্রদান করিবে । ১০) আবেদনকারীর চাহিদামতে, প্রযোজ্যক্ষেএে আংশিক বসবাস বা ব্যবহারের জন্য বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ দেওয়া যাইবে । (২০) অনুমোদিত স্থাপত্য নকশার ভিওিতে নির্মিত ইমারতের নির্মাণ নকশা (As-built Architectural Drawing) : ১) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএের জন্য চার (৪) ফর্দ নির্মাণ নকশা দাখিল করিতে হইবে । ২) নির্মাণ নকশায় লে-আউট প্ল্যান, সকল তল বা ফ্লোরের প্ল্যান, সকল এলিভেশন, কমপক্ষে দুইটি Critical Section (একটি Vertical Circulation বরাবর) সহ অন্যান্য তথ্যাদির উল্লেখ থাকিতে হইবে এবং নির্মাণ নকশার সাইজ ও স্কেল পূর্বে অনুমোদিত স্থাপত্য নকশার অনুরূপ হইতে হইবে । ৩) নির্মাণ নকশার (As-built Architectural Drawing) সহিত নির্মিত ইমারতের এক ফর্দ মূল অনুমোদিত নকশা দাখিল করিতে হইবে । (২১) ইমারতের কাঠামো নকশা (Structural Design) : ১) এই বিধিমালার আওতায় তিলিকাভুক্ত ও আবেদনকারী কতৃক নিয়োজিত প্রকৌশলী কোড অনুযায়ী ইমারতের কাঠামো নকশা যথাযথ স্কেলে প্রণয়ন করিবেন । ২) প্রযোজ্য ক্ষেএে কোডে প্রদও নীতিমালা অনুযায়ী Seismic Design বিবেচনায় রাখিয়া কাঠামো নকশা প্রণয়ন করিতে হইবে । ৩) ইমারতের কাঠামো নকশায় নিন্মলিখিত বিষয়াদি অন্তর্ভূক্ত থাকিবে, যথা : (ক) সাইটের মৃওিকা ফরীক্ষার ভিওিতে ইমারতের বিস্তারিত ফাউন্ডেশন ডিজাইন; (খ) বেজমেন্ট দেয়াল, অন্যান্য দেয়াল, কলাম, বিম, মেঝে, ছাদ সহ সকল ফ্রেমিং মেম্বার এর পরিমাপ ও অবস্থান এবং ব্যবহূত নির্মাণ উপকরণের প্রয়োজনীয় কারিগরী তথ্যাদি; (গ) ভবনের পানির জলাধার, সেপটিক ট্যাংক ও বাহ্যিক সংযোগ বা সোকপিট, ইত্যাদির যাবতীয় নকশা; এবং (ঘ) ভূমি খনন বা পাইল বসানোকালে বা অনুরূপ ক্ষেএে সন্নিহিত সাইটের ক্ষতি রোধকল্পে ব্যবহৃত কাঠামোর নকশা ও কারিগরী তথ্য এবং কর্ম পদ্ধতি । (২২) ইমারত সেবা (Building Services) সংক্রান্ত নকশা : এই বিধিমালার আওতায় তালিকাভূক্ত ও আবেদনকারীকতৃক নিয়োজিত প্রকৌশলী কোড অনুযায়ী ইমারতের সেবা সংক্রান্ত নকশা যথাযথ স্কেলে প্রণয়ন করিবেন এবং ইমারতে ব্যবহূত সেবা সংক্রান্ত নিন্মলিখিত বিষয়াদি নকশায় অন্তভূক্ত থাকিবে, যথা : (ক) পানি সরবরাহ, পয়ঃনিষ্কাশন, ড্রেনেজ, গ্যাস সরবরাহ ইত্যাদির লে-আউট প্ল্যান ও নকশা; (খ) বৈদ্যুতিক স্থাপনা, সাব-স্টেশন, বৈদ্যুতিক সার্কিট ডায়াগ্রাম ইত্যাদির লে-আউট প্ল্যান, নকশা ও স্পেসিফিকেশন; (গ) শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ (যদি থাকে) ব্যবস্থার পরিকল্পনা, ডিজাইন ও লে-আউট, লিফট্ ও এসকেলেটর (যদি থাকে) স্থাপনের নকশা; এবং (ঘ) অন্যান্য সকল ইমারত সেবার বিস্তারিত নকশা । (২৩) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ নবায়ন : ১) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএের মেয়াদ হইবে প্রদানের তারিখ হইতে ৫ (পাঁচ) বৎসর এবং প্রতি ৫ (পাঁচ) বৎসর অন্তর ইহা নবায়ন করিতে হইবে । ২) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ নবায়নের জন্য নির্ধারিত ফি সহ নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৬) এর মাধ্যমে মেয়াদ উওীর্ণের অন্যূন ৯০ (নব্বই) দিন পূর্বে কতৃপক্ষের নিকট আবেদন করিতে হইবে এবং নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আবেদন না করিলে নবায়ন ফি এর ১০ (দশ) গুন পরিমান ফি জরিমানা হিসাবে প্রদান করিতে হইবে । ৩) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএের মেয়াদ উওীর্ণ হইলে সংশ্লিষ্ট ভবনের নির্মাণ অনুমোদন আপনা আপনি বাতিল বলিয়া বিবেচিত হইবে এবং উক্ত ভবনের পুনরায় নির্মাণ অনুমোদন গ্রহনের জন্য ফি এর ১০ (দশ) গুন ফি এবং আইন অনুযায়ী ইমারত নির্মাণ কমিটি কতৃক ধার্য্যকৃত জরিমানা প্রদান পূর্বক আবেদন করিয়া নির্মাণ অনুমোদনপএ গ্রহণ করিতে হইবে । ৪) উপ-বিধি (২) অনুযায়ী আবেদন প্রাপ্তির ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে কতৃপক্ষ আবেদনে উল্লিখিত ইমারত পরিদর্শন করিবে এবং পরিদর্শনকালে যদি কোন নিয়মের ব্যতিক্রম বা অননুমোদিত ব্যবহার সনাক্ত না হয় তাহা হইলে আবেদন মঞ্জুর করিয়া নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৭) এর মাধ্যমে বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ নবায়ন করিবে; অন্যথায় সনাক্তকৃত নিয়মের ব্যতিক্রম বা অননুমোদিত ব্যবহার লিপিবদ্ধ করিবে এবং উক্তরূপ অননুমোদিত ব্যবহার বা ব্যতিক্রমের জন্য নবায়নের আবেদন নির্ধারিত ছক (ফরম-৪০৮) এর মাধ্যমে প্রত্যাখান করতঃ আবেদনকারীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করিবে। ৫) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ নবায়নের আবেদন প্রত্যাখান হইলে আবেদনকারী নগর উন্নয়ন কমিটি বরাবরে লিখিত আপিল আবেদন করিতে পারিবে । (২৪) নির্মাণ ও নির্মাণ অনুমোদন সংশ্লিষ্ট সাধারন জ্ঞাতব্য বিষয় সমূহ : ১) ১৮ (আঠারো) মিটারের অতিরিক্ত উচ্চতায় এক বা একাধিক তলা বিশিষ্ট ইমারতে লিফট্ স্থাপন করিতে হইবে । ২) ইমারতের বিভিন্ন যান্ত্রিক ও বৈদ্যুতিক পরিসেবা যথা : আলোক ব্যবস্থা, বৈদ্যুতিক স্থাপনা, শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ, উওাপন, বায়ু চলাচল ব্যবস্থা, শব্দ নিয়ন্ত্রণ, শব্দ নিরোধ, লিফট্, এসকেলেটর, মুভিং ওয়াক সংক্রান্ত সকল প্রয়োজনীয় নকশা বিধি ৪১ এর আওতায় তালিকাভুক্ত সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি কতৃক প্রণীত হইতে হইবে । ৩) জেনারেটর, শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র, সাব-ষ্টেশন এবং অন্যান্য বৈদ্যুতিক ও যান্ত্রিক স্থাপনা হইতে উদগত শব্দ নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা রাখিতে হইবে এবং উপরোক্ত যন্ত্রাদি হইতে উৎপন্ন ধোঁয়া, পানি ইত্যাদি যাহাতে সাইটস্থ বা সন্নিহিত প্লটসমূহের সাধারণ বায়ূপ্রবাহে এবং আয়াস ও স্বাচ্ছন্দ্যকে ব্যাহত না করে তাহা নিশ্চিত করিতে হইবে । ৪) কর্তন বা ধ্বংস সাধনের জন্য অনুমোদনপ্রাপ্ত পাহাড়ের পাদদেশে টাফিং এবং ঢালকে স্ট্যাবিলাইজ করিয়া নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা করিতে হইবে এবং যে সমস্ত নালা বা খালের উৎস কর্তনের জন্য অনুমোদনপ্রাপ্ত পাহাড়ে সংযুক্ত, সেইসব নালা বা খালের উৎস মুখে স্পিলওয়ে, সিল্টট্র্যাপ ইত্যাদি নির্মাণ করিতে হইবে । ৫) পুকুর খনন করিতে হইলে সাইট সীমানা হইতে কমপক্ষে ৩ (তিন) মিটার দুরত্বে খনন করিতে হইবে, যাহার ঢাল পার্শ্ববর্তী সীমানা হইতে ৪৫ ডিগ্রী কোণের অধিক হইবে না । ৬) কোন এলাকা বা রাস্তা বরাবর বিদ্যমান এিমাএিক আকার, ঐতিহাসিক, স্থাপতিক পরিবেশগত কিংবা কৃষ্টিগত গুরুত্বের বিবেচনায় নগর উন্নয়ন কমিটি ইমারতের উচ্চতা, রং, নির্মাণ উপকরণ ইত্যাদি বিষয়ে নিয়ন্ত্রণ আরোপ করিতে পারিবে । (২৫) ইমারত অনুমোদনের বৈধতাকাল : ১) ইমারত নির্মাণ অনুমোদনপএের বৈধতার মেয়াদ হইবে ৩ (তিন) বৎসর এবং এই মেয়াকালের মধ্যে কমপক্ষে প্লিন্থ লেভেল পর্যন্ত নির্মাণ সম্পন্ন করিতে হইবে । ২) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণে ব্যর্থ হইলে নতুন করিয়া নির্মাণ অনুমোদনপএ গ্রহন করিতে হইবে । (২৬) অনুমোদিত নকশা সংশোধন : ১) অনুমোদিত নকশা সংশোধনের ক্ষেএে নিন্মলিখিত শর্ত পূরণ করিতে হইবে, যথা : (ক) কোন ইমারতের অনুমোদন হইয়া যাওয়ার পর নির্মাণ অনুমোদনপএের মেয়াদকালের মধ্যে যদি কোন পরিবর্তন বা পরিবর্ধনের প্রয়োজন হয়, তাহা হইলে ৮ (আট) কপি সংশোধিত নকশাসহ আবেদন করিতে হইবে; (খ) শুধুমাএ আভ্যন্তরীণ পুনর্বিন্যাসের বেলায় সর্বমোট মেঝের আয়তন, FAR, জমি আচ্ছাদনের পরিমাণ, বাইরের পরিসীমা এবং ভার্টিক্যাল সার্কুলেশন পদ্ধতি বা পথের অবস্থানগত পরিবর্তন না হইলে নতুন করিয়া অনুমোদনের প্রয়োজন হইবে না; (গ) কক্ষের উচ্চতায় পরিবর্তন ২০ সে.মি. এর মধ্যে হইলে কোন নতুন অনুমোদনের প্রয়োজন হইবে না যদি উচ্চতার সহিত জড়িত অন্যান্য বাধ্যবাধকতা যথাযথ থাকে; (ঘ) যদি অনুমোদনযোগ্য FAR, সেটব্যাক ও ভূমি আচ্ছাদনের সহিত সামঞ্জস্য রাখিয়া নির্মাণকালীন সময়ে ইমারতের মেঝের ক্ষেএফল পরিবর্তন বা পরিবর্ধনের প্রয়োজন হয়, তাহা হইলে বিধি ২৭ অনুযায়ী ফি নির্ধারণ হইবে; (ঙ) যদি সংশোধিত নকশা পুনঃঅনুমোদনের আগেই সংশোধিত অংশ নির্মিত হইয়া থাকে, এবং ঐসব পরিবর্তন যদি বিধিমালায় অনুমোদনযোগ্য হয়, তাহা হইলে মূল ফি এর অতিরিক্ত ১০ (দশ) গুণ ফি এবং আইন অনুযায়ী ইমারত নির্মাণ কমিটি কতৃক ধার্য্যকৃত জরিমানা প্রদান পূর্বক আবেদন করিয়া পুনরায় নির্মাণ অনুমোদনপএ গ্রহণ করিতে হইবে; ২) উপ-বিধি (১) এর দফা (ঘ) অনুযায়ী সংশোধন, বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ প্রদানের সময় ইমারতের নির্মিত নকশায় অনুমোদন প্রদান করা হইবে । ৩) এই বিধিমালা কার্যকর হইবার পূর্বে আইনানুগভাবে অনুমোদিত নকশার বৈধতা বহাল থাকিবে । (২৭) ইমারত নির্মাণ, পাহাড় কর্তন, পুকুর খননের জন্য অনুমোদন, সংশোধন ও পরিবর্তন ফি : ১) নতুন ইমারত নির্মাণের ক্ষেএে ফি পরশিষ্ট-৪ অনুযায়ী নির্ধারিত হইবে । ২) সংশোধন ও পরিবর্তনের ক্ষেএে- (ক) যদি মেঝের পরিমাণ বৃদ্ধি না পায় সেই ক্ষেএে উপ-বিধি (১) এ বর্ণিত ফি এর এক-তৃতীয়াংশ; এবং (খ) যদি মেঝের পরিমাণ বৃদ্ধি পায় সেই ক্ষেএে উপ-বিধি (১) প্রযোজ্য হইবে এবং অবশিষ্টাংশের ক্ষেএে উপ-বিধি ২(ক) প্রযোজ্য হইবে । ৩) ইমারত নির্মাণ অনুমতিপএের অতিরিক্ত সত্যায়িত অনুলিপি ও অন্যান্য দলিলের সত্যায়িত অনুলিপির প্রতিটি কপি ৫০০ (পাঁচশত) টাকা বিনিময় হারে সংগ্রহ করা যাইবে । ৪) পাহাড় কর্তন ও পুকুর খনন অনুমোদন, সংশোধন ও পরিবর্তন এর জন্য ফি পরিশিষ্ট-৪ অনুযায়ী হইবে । ৫) এই বিধিমালার অধীনে প্রদেয় সকল ফি ঢাকা মহানগর এলাকায় অবস্থিত বাংলাদেশ ব্যাংকের তফসিলভুক্ত যে কোন বাণিজ্যিক ব্যাংকের শাখা হইতে “চেয়ারম্যান, রাজধানী উন্নয়ন কতৃপক্ষ, ঢাকা” এর অনুকূলে পে-অর্ডার বা ব্যাংক ড্রাফটের মাধ্যমে প্রদান করিতে হইবে । (২৮) কতৃপক্ষের পরিদর্শন, কর্তব্য ও দায়িত্ব : কতৃপক্ষ বা কতৃপক্ষের নিকট হইতে ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোন কর্মকর্তা ইমারত বা প্রকল্পের কাজ সূর্যোদয় হইতে সূর্যাস্ত পর্যন্ত যে কোন সময়ে পরিদর্শন এবং অনুমোদিত ডিজাইন, রিপোর্ট ও স্পেসিফিকেশন অনুযায়ী কাজ চলিতেছে কিনা তাহা পরীক্ষা করিতে পারিবে । (২৯) বিজ্ঞপ্তি, স্থগিতকরণ অথবা অননুমোদিত কাঠামো ভিঙ্গিয়া দেওয়া, ইত্যাদি : ১) কতৃপক্ষ নির্মাণ কাজ স্থগিত করিতে, সঠিক পদ্ধতি প্রয়োগ করিতে অথবা কাঠামো ভাঙ্গিয়া ফেলিতে আদেশ করিতে পারিবে, যদি- (ক) যে কোন পর্যায়ে অনুমোদিত নকশা বর্হিভূত কাজ ধরা পড়ে; (খ) ইমারত তৈরির অনুমোদন অথবা বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএের নিয়ম ও শর্তসমূহ সরাসরি লংঘন করা হয়; এবং (গ) পাশ্ববর্তী জনগণের জীবন ও ধন-সম্পওির ক্ষতিসহ পরিবেশের জন্য হুমকির সৃষ্টি করে । (২) নির্মাণ অনুমতিপএ স্থগিত বা বাতিল করা যাইবে, যদি- (ক) সংশ্লিষ্ট জমি বা প্লটের বিষয়ে কোন আইনগত জটিলতা দেখা দেয়; (খ) অনুমোদনের শর্তাবলী ভঙ্গ করা হয়; (গ) আবেদন পএ বা অন্যান্য প্রযোজ্য ফরমসমূহে ভুল অথবা মিথ্যা তথ্য পরিবেশন করা হয়, এবং (ঘ) ইমারত ব্যবহারে অসামঞ্জস্যতা দেখা দেয় এবং অনুমোদিত নকশার বিধি বহিভূত পরিবর্তন করা হয় । (৩) কোন ইমারত নির্মাণ কাজ অবৈধ ঘোষণা করা হইলে তাহা আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান এবং ব্যাংক বা অর্থ বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানকে (প্রযোজ্য ক্ষেএে) কতৃপক্ষ স্বল্পতম সময়ের মধ্যে নোটিশ দিয়া অবহিত করিবে । (৪) যে সকল ইমারতকে অবৈধ ঘোষণা করা হইবে সেই সকল ইমারতের কোনরূপ সেবা প্রদান (Utility Services) না করিবার জন্য সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষকে অবহিত করা হইবে । তৃতীয় অধ্যায় : কমিটি (৩০) কমিটি গঠন : সরকার, সরকারি গেজেট প্রজ্ঞাপন দ্বারা এই বিধিমালার বিধানসমূহ প্রয়োগের উদ্দেশ্যে নিন্মরূপ এক বা একাধিক কমিটি গঠন করিতে পারিবে, যথা : (ক) ইমারত নির্মাণ কমিটি; (খ) বৃহদায়তন বা বিশেষ প্রকল্প অনুমোদন কমিটি; (গ) নগর উন্নয়ন কমিটি; এবং (ঘ) প্রয়োজনীয় অন্য যে কোন কমিটি । (৩১)ইমারত নির্মাণ কমিটি : আইনের Section 3 এর Sub-section (2) এর বিধান অনুযায়ী অথরাইজড্ অফিসারের ক্ষমতা প্রয়োগের জন্য এক বা একাধিক ইমারত নির্মাণ কমিটি গঠিত হইবে এবং কমিটির কার্য্যপরিধি উক্ত আইনের আওতায় নিয়ন্ত্রিত হইবে । (৩২) বৃহদায়তন বা বিশেষ প্রকল্প অনুমোদন কমিটি : (১) এই বিধিমালার আওতায় বৃহদায়তন বা বিশেষ ধরনের প্রকল্প অনুমোদনের জন্য কতৃপক্ষ একটি বৃহদায়তন বা বিশেষ প্রকল্প অনুমোদন কমিটি গঠন করিবে । (২) বৃহদায়তন বা বিশেষ প্রকল্প অনুমোদন কমিটি গঠন হইবে নিন্মরূপ, যথা : (ক) সদস্য পরিকল্পনা, রাজউক – সভাপতি (খ) নগর পরিকল্পনাবিদ (পরিচালক), রাজউক – সদস্য (গ) প্রধান প্রকৌশলী, রাজউক – সদস্য (ঘ) স্থাপত্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি (উপ-প্রধান স্থপতি পদমর্যাদার) – সদস্য (ঙ) ইন্সটিটিউট অব আর্কিটেক্টস বাংলাদেশ এর প্রতিনিধি – সদস্য (চ) ইন্সটিটিউশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ এর প্রতিনিধি – সদস্য (ছ) বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব প্ল্যানার্স এর প্রতিনিধি – সদস্য (জ) পরিচালক (উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ), রাজউক – সদস্য-সচিব ৩) প্রতিমাসে রাজউক ভবনে বৃহদায়তন বা বিশেষ প্রকল্প অনুমোদন কমিটির কমপক্ষে একটি সভা অনুষ্ঠিত হইবে । ৪) সভা অনুষ্ঠানের কমপক্ষে ১০ (দশ) দিন পূর্বে সদস্য সচিব জমির মালিকানা দলিল ব্যতীত অন্যান্য তথ্যাদি সহ ১ (এক) সেট করিয়া নকশা কমিটির প্রত্যেক সদস্যের নিকট প্রেরণ করিবে । ৫) কমিটির সভার জন্য কোরামের সদস্য সংখ্যা হইবে ৫ (পাঁ

Card image cap
রাজউক ইমারত নির্মাণ বিধিমালা - ২০০৮ পর্ব-১
engr.tushar - 22 Nov 2016
রেজিস্টার্ড নং ডি এ-১; বাংলাদেশ গেজেট (অতিরিক্ত সংখ্যা) কতৃপক্ষ কতৃক প্রকাশিত, বৃহস্পতিবার, মে২৯, ২০০৮ইং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়; প্রঞ্জাপন, তারিখ : ১৩ জৈষ্ঠ ১৪১৫ বঙ্গাব্দ/ ২৭মে ২০০৮ খ্রিষ্টাব্দ, এস.আর.ও নং ১২০-আইন ২০০৮ । Building Construction Act, 1952 (Act No. II of 1953) এর section 18 এ প্রদও ক্ষমতাবলে সরকার নিন্মরুপ বিধিমালা প্রণয়ন করিল, যথা :- প্রথম অধ্যায় : প্রারম্ভিক (১) সংক্ষিপ্ত শিরোনাম, প্রয়োগ ও প্রবর্তন : ১) এই বিধিমালা ঢাকা মহানগর ইমারত (নির্মাণ, উন্নয়ন, সংরক্ষণ ও অপসারণ) বিধিমালা- ২০০৮ নামে অভিহিত হইবে । ২) ইহা Town Improvement Act-1953 ( Act No. XIII of 1953) এর অধীন প্রণীত ঢাকা মহানগর পরিকল্পনাভুক্ত এলাকার জন্য প্রযোজ্য হইবে । ৩) ইহা অবিলম্ভে কার্যকর হইবে । (২) সংজ্ঞা : বিষয় বা প্রসঙ্গের পরিপন্হী কোন কিছু না থাকলে এই বিধিমালায়- ১) “অনুমোদিত নকশা” অর্থ আইনের বিধানানুযায়ী অনুমোদিত ভবন বা কাঠামোর নকশা; ২) “অথরাইজড্ অফিসার” অর্থ আইনের অধীন নিয়োগপ্রাপ্ত Authorized Officer; ৩) “অঙ্গন বা আঙিনা বা উঠান” অর্থ ভূমি বা অন্য যে কোন তলে অবস্থিত, সম্পূর্ণ বা আংশিকভাবে ভবনদ্বারা বেস্টিত পরিসর, যাহা স্থায়ীভাবে উন্মুক্ত; ৪) “অগ্নি-প্রতিরোধক দরজা” অর্থ বিশেষভাবে তৈরি দরজা যাহা নির্দিষ্ট সময়ের জন্য তাপ ও আগুন সঞ্চালন এর প্রতিরোধক হিসাবে কাজ করে; ৫) “অগ্নি-প্রতিরোধক উপকরণ” অর্থ অগ্নি-প্রতিরোধক ক্ষমতাসম্পূর্ণ নির্মাণ উপকরণ; ৬) “অগ্নি-নিরাপদ সিঁড়ি” অর্থ বিভিন্ন তলা হইতে ল্যান্ডিং বা লবি দ্বারা সংযোজিত সিঁড়ি যাহা অগ্নি-প্রতিরোধক দরজা দ্বারা মূল বিল্ডিং হইতে আলাদা হইবে এবং ইমারতের বহিঃর্ভাগে খোলা স্থানের সহিত উন্মুক্ত থাকিবে; ৭) “অকুপেন্সী টাইপ” অর্থ বিধিমালার পরিশিষ্ট-৩ এ ইমারতের ব্যবহার ভিওিক শ্রেনীবিন্যাস যেইভাবে নির্ধারণ করা হইয়াছে ইহা এবং উক্ত নির্ধারিত ধরণের ব্যবহারের সহিত আনুষাঙ্গিক ব্যবহারের সংশ্লিষ্টতাও ইহার অন্তর্ভূক্ত হইবে; ৮) “অস্থায়ী ইমারত” অর্থ নির্দিষ্ট সময়ের জন্য কতৃপক্ষ কতৃক অনুমোদিত ইমারত যাহা ঐ নির্দিষ্ট সময়ের শেষে অপসারিত হইবে; ৯) “আইন” অর্থ Building Construction Act-1952 (Act No. II of 1953); ১০) “আবেদনকারী” অর্থ সংশ্লিষ্ট ভূমির বৈধ মালিক এমন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান যিনি উক্ত ভূমিতে ইমারত নির্মাণ সংক্রান্ত বিষয়ে বিভিন্ন অনুমতি প্রাপ্তির জন্য আবেদন করেন এবং বৈধ মালিকের পরে আবেদনকারী হিসেবে আম-মোক্তারনামা বলে নিযুক্ত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানও ইহার অন্তর্ভূক্ত হইবে; ১১) “আবেদন” অর্থ ভূমি ব্যবহার ছাড়পএ, বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএ, ইমারত নির্মাণ, পাহাড় কর্তন ও পুকুর খননের জন্য অনুমোদন, বসবাস সনদ এবং সংশোধন, পরিবর্ধন এবং নবায়নের জন্য আবেদন; ১২) “আধা-বিচ্ছিন্ন ভবন” অর্থ এমন ভবন যাহার তিনপার্শ্ব বহিঃরাঙ্গনের দিকে উন্মুক্ত এবং এক পার্শ্ব অন্য ভবনের সহিত সংযুক্ত; ১৩) “আচ্ছাদিত স্থান” অর্থ ইমারত দ্বারা ভূমিতলসহ আচ্ছাদিত ক্ষেএ, যাহা প্লিন্থস্তরের ঠিক পরবর্তী স্তর বা তলা, তবে নিন্মলিখিত স্থানসমূহ ইহার অন্তর্ভূক্ত নয় : (ক) বাগান, পারগোলা, তরশালা, জলাশয়, সুইমিংপুল(অনাচ্ছাদিত), গাছের নীচের বেদী, জলাধার, ফোয়ারা এবং আসন; (খ) জলনির্গমন ব্যবস্থা, কালভাট, সেপটিক ট্যাংক, সোকপিট; (গ) সীমানা প্রাচীর ও ফটক, কার্নিশ এবং সানসেড কতৃক আচ্ছাদিত স্থান; ১৪) “ইমারত” বা “ভবন” অর্থ আইনে সংজ্ঞায়িত Building; ১৫) “ইমারত নির্মাণ কমিটি” অর্থ আইনের section 3 এর sub-section (2) এর অধীনে গঠিত কমিটি; ১৬) “ইমারতের উচ্চতা” অর্থ ইমারতসংলগ্ন রাস্তা বা গলির গড় উচ্চতা হইতে একটি ইমারতের সর্বোচ্চ বিন্দুর খাড়া দুরত্ব, ইমারতের উচ্চতা নির্ধারণের ক্ষেএে নিন্মবর্ণিত বিষয়সমূহ বিবেচ্য হইবে, যথা : ( ক) ছাদ ঢালু হইলে এইক্ষেএে ঢালু ছাদের গড় উচ্চতা ধরা হইবে; (খ) স্হাপতিক উপাদান, যাহা কেবলমাএ নান্দনিক ও অলংকরণের জন্য ব্যবহূত হয়, তাহা উচ্চতার অংশ হিসাবে গন্য করা হইবে না; (গ) ঢালু এলাকায় নির্মাণের ক্ষেএে উচ্চতা নির্ণয়ের জন্য রাস্তার পরিবর্তে ইমারতের সর্বনিন্ম মেঝে তলকে গ্রহণ করা হইবে; (ঘ) বেসামরিক বিমান চলাচল কতৃপক্ষের বিবেচনায় উচ্চতা অর্থাৎ ভবনের ছাদে অবস্থিত সিঁড়িঘর, জলাধার, লাইটনিং এরেস্টর বা এন্টেনা ইত্যাদির উচ্চতা বুঝাইবে; ১৭) “উন্নয়ন প্রকল্প বা প্রকল্প” অর্থ ইমারত বা ইমারতসমূহের নির্মাণকাজ; ১৮) “উচ্চতা” অর্থ- (ক) করের উচ্চতার ক্ষেএে সম্পূরণকৃত মেঝের উপর হইতে ছাদের নীচ পর্যন্ত খাড়া পরিমাপ, (খ) কোন তলার উচ্চতা হিসাবে একটি তলার মেঝের উপর হইতে অন্য তলার মেঝের উপর পর্যন্ত খাড়া পরিমাপ, (গ) দেয়ালের উচ্চতা হিসাবে একটি দেওয়ালের ভূমি হইতে দেওয়ালের উপরিভাগ পর্যন্ত খাড়া পরিমাপ, ১৯) “এয়ারওয়েল বা লাইটওয়েল” অর্থ প্রাকৃতিক বায়ু ও আলো চলাচলের সুবিধা অর্জনের উদ্দেশ্যে ভবনের অভ্যন্তর বা বহিঃর্ভাগে অবস্থিত পরিসর যাহা একই জমিতে অবস্থিত ও ভবনের এক বা একাধিক পার্শ্ব বা ঐ জমির এক বা একাধিক সীমানা দ্বারা আবদ্ধ; ২০) “ঐতিহ্যবাহী ইমারত বা স্থান” অর্থ এক বা একাধিক প্রাঙ্গণে অবস্থিত এমন ইমারত বা তাহার অংশ যাহা ঐতিহাসিক, স্হাপতিক, পরিবেশগত, সাংস্কৃতিক ও নৈসর্গিক কারণে সংরক্ষণের প্রয়োজন এবং ইমারতের চারিপাশের এলাকা যাহা ইমারত সংরক্ষণের প্রয়োজনে বেষ্টনী, সীমানা দেওয়াল আবৃত করা ও যাহা পরিবেশগত সামঞ্জস্য রাখিবার জন্য প্রয়োজন, তাহাও এই উদ্দেশ্যে অন্তভূক্ত হইবে; ২১) “কতৃপক্ষ” অর্থ Town Improvement Act-1953 ( Act No. XIII of 1953) এর অধীনে প্রতিষ্ঠিত রাজধানী উন্নয়ন কতৃপক্ষ (রাজউক); ২২) “কাজের শুরু” অর্থ ইমারত নির্মাণের উদ্দেশ্যে মাটি কাটা ও পাইলিং বা ভিওি নির্মাণ বা যে কোন নির্মাণ, পুনঃনির্মাণ অথবা বিদ্যমান ইমারতে পরিবর্তন বা পরিবর্ধনের প্রকৃত সূএপাত; ২৩) “কাড় (Loft)” অর্থ মধ্যবর্তী কোন কর বা করিডোরের ছাদ এবং মেঝের মধ্যবর্তী আরেকটি ছাদ দ্বারা তৈরি সর্বোচ্চ ১.৫ মিটার উচ্চতা বিশিষ্ট স্থান; ২৪) “কোড” অর্থ বাংলাদেশ ন্যাশনাল বিল্ডিং কোড (BNBC); ২৫) “উন্মুক্ত জায়গা” অর্থ সাইটের এমন অবিচ্ছিন্ন অংশ যাহা ভূমিতল হইতে উর্ধ্বদিকে স্থায়ীভাবে উন্মুক্ত; ২৬) “চিমনী” অর্থ ইমারতের এমন অংশ যাহার মাধ্যম তাপ উৎপাদনকারী যন্ত্রাদি হইতে দহনক্রিয়ার মাধ্যমে নির্গত বা উৎপন্ন বস্তুসমূহ ধূমনালীর মাধ্যমে উনমুক্ত বাতাসে নিষিক্ত হয়, ২৭) “জিওটেকনিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার” অর্থ স্নাতক পুরকৌশলী যাহার জিওটেকনিক্যাল বা ফাউন্ডেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে অভিজ্ঞতা রহিয়াছে এবং যিনি বাংলাদেশ জিওটেকনিক্যাল সোসাইটি অথবা ইনস্টিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ (IEB) এর সদস্য এবং বিধি ৪১ অনুযায়ী তালিকাভুক্ত; ২৮) “ঝুঁকিপূর্ণ ইমারত” অর্থ কোড অনুযায়ী কাঠামোগত অনিরাপদ, জরাজীর্ণ, অস্বাস্হ্যকর, অগ্নি-ঝুঁকিপূর্ণ, যথাযথ জরুরী নির্গমন পথবিহীন, ভগ্নপ্রায়, যথাযথ রক্ষণাবেক্ষণবিহীন, পরিত্যক্ত, অধিবাসী ও সংলগ্ন এলাকার জনসাধারণের নিরাপওার প্রতি হুমকি হিসাবে চিহ্নিত যে কোন ইমারত বা নির্মাণকার্য; ২৯) “ডিটেলইড এরিয়া প্ল্যান” (DAP) অর্থ কোন এলাকার পরিকল্পিত উন্নয়নের জন্য বিস্তারিত স্হানিক নকশাসহ পরিকল্পনা; ৩০) “ডিপ্লোমা স্হপতি” অর্থ ঐ পেশাজীবী ব্যক্তি যিনি স্বীকৃত কোন পলিটেকনিক বা কারিগরী ইনস্টিটিউট হইতে স্হাপত্য বিষয়ে ডিপ্লোমাধারী ও ইনস্টিটিউট অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ এর সদস্য এবং বিধি ৪১ অনুযায়ী তালিকাভুক্ত; ৩১) “ডিপ্লোমা প্রকৌশলী” অর্থ ঐ পেশাজীবি ব্যক্তি যিনি স্বীকৃত কোন পলিটেকনিক বা কারিগরী ইনস্টিটিউট হইতে প্রকৌশল বিষয়ে ডিপ্লোমাধারী ও ইনস্টিটিউট অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ এর সদস্য এবং বিধি ৪১ অনুযায়ী তালিকাভুক্ত; ৩২) “নির্মাণ” অর্থ যে কোন ধরনের ইমারত, ভবন বা স্হাপনা নির্মাণ, পুনঃনির্মাণ বা প্রতিস্হাপন এবং ইমারতের ব্যবহারের ধরণ পরিবর্তন; ৩৩) “নকশা” অর্থ এই বিধিমালা এর অধীন ইমারত এবং অন্যান্য স্হাপনা নির্মাণের উদ্দেশ্যে প্রস্তুতকৃত সকল নকশা, ৩৪) “নগর উন্নয়ণ কমিটি (Urban Development Committee)” অর্থ বিধি ৩৪ অনুযায়ী গঠিত কমিটি; ৩৫) “তলা” অর্থ ইমারতের যে কোন ফ্লোর বা মেঝের উপরপৃষ্ঠ এবং পরবর্তী ফ্লোর এর মধ্যবর্তী স্হান অথবা পরবর্তী ফ্লোর না থাকিলে ছাদ বা অন্য আচ্ছাদনের নীচের স্হান; ৩৬) “তালিকাভূক্ত ইমারত” অর্থ নান্দনিক, ঐতিহাসিক, বৈজ্ঞানিক, সামাজিক অথবা আধ্যাত্নিক গুরুত্ব বহনকারী এবং/অথবা প্রত্নতও্ব বিভাগ বা অন্য কোন ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গ কতৃক উল্লেখিত কারণে নিবন্ধিত ইমারত; ৩৭) “টোটাল ফ্লোর এরিয়া” অর্থ ইমারতের সকল ফ্লোর এরিয়ার যোগফল; ৩৮) “পরামর্শক” অর্থ মালিক বা আবেদনকারী কতৃক নিয়োগকৃত যে কোন স্হপতি, পুরকৌশলী, তড়িৎকৌশলী, যন্ত্রকৌশলী বা অন্যান্য প্রকৌশলী, নগর পরিকল্পনাবিদ অথবা উপরোক্ত কারিগরী লোকবলের সমন্বয়ে গঠিত যে কোন বোর্ড, কোম্পানী, ফার্ম বা অন্যান্য প্রতিষ্ঠান যাহা পেশাগত সেবা প্রদানের জন্য গঠিত; ৩৯) “পরিবর্তন” অর্থ এক ব্যবহার হইতে অন্য ব্যবহারে পরিবর্তন বা কোন কাঠামোগত পরিবর্তন, যেমন : ভবনের ক্ষেএফল বা উচ্চতার সহিত সংযোজন, অংশবিশেষ অপসারণ এবং কোন দেয়াল, পার্টিশন, কলাম, বীম, জয়েন্ট, মেঝে নির্মাণ, কর্তন বা অপসারণ এর মাধ্যমে কাঠামোর কোন পরিবর্তন, কোন প্রবেশপথ বা বর্হিঃগমন পথের পরিবর্তন বা বন্ধ করা, যে কোন উপকরণ ও সরঞ্জামাদি পরিবর্তন; ৪০) “পরিশিষ্ট” অর্থ এই বিধিমালার সহিত সংযোজিত পরিশিষ্ট; ৪১) “প্রকৌশলী” অর্থ যিনি প্রকৌশল বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রীপ্রাপ্ত ও ইনস্টিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ (IEB) এর সদস্য এবং বিধি ৪১ অনুযায়ী তালিকাভুক্ত; ৪২) “প্রস্হান পথ” অর্থ কোন বিল্ডিং এর যে কোন তলা হইতে রাস্তা বা নিরাপদ উন্মুক্ত স্হানে যাওয়ার জন্য বর্হিঃগমন পথ; ৪৩) “প্রাকৃতিক বায়ু চলাচল ব্যবস্থা” অর্থ ভবনের দরজা-জানালার মাধ্যমে বাতাসের স্বাভাবিক প্রবাহ ঘরের অভ্যন্তরে সরবরাহ ব্যবস্থা; ৪৪) “প্যারাপেট” অর্থ ছাদ বা তলের চারপাশ ঘিরে তৈরিকৃত রেলিং অথবা দেয়াল; ৪৫) “পার্কিং স্থান” অর্থ যানবাহন রাখিবার মতো আবদ্ধ বা খোলা, আচ্ছাদিত বা উন্মুক্ত যথেষ্ট আয়তনের একটি জায়গা, যাহার সহিত যানবাহন যাতায়ত উপযোগী একটি পথের মাধ্যমে বাহিরের রাস্তা সংযোগ আছে; ৪৬) “পরিকল্পনাবিদ” অর্থ যিনি পরিকল্পনা বিষয়ে স্নাতক বা স্নাতকোওর ডিগ্রীপ্রাপ্ত ও বাংলাদেশ ইনস্টিউট অব প্ল্যানার্স (BIP) এর সদস্য এবং বিধি ৪১ অনুযায়ী তালিকাভুক্ত; ৪৭) “প্লাম্বিং ইঞ্জিনিয়ার” অর্থ স্নাতক স্থপতি বা প্রকৌশলী, ডিপ্লোমা স্থপতি বা ডিপ্লোমা প্রকৌশলী যাহার প্লাম্বিং বা সেনেটারী বিষয়ে অভিজ্ঞতা রহিয়াছে ও যিনি সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি প্রতিষ্ঠানের সদস্য এবং বিধি ৪১ অনুযায়ী তালিকাভুক্ত; ৪৮) “পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা” অর্থ যে কোন পয়ঃনালী, নর্দমা, সেপটিক ট্যাংক, পরিশোধন কেন্দ্র অথবা সংশ্লিষ্ট অন্যান্য ব্যবস্থাদি; ৪৯) “পাহাড়” অর্থ সন্নিহিত স্থান থেকে নির্দিষ্ট আয়তনের উঁচু কোন প্রাকৃতিক ভূখন্ড যাহা মাটি বা পাথরের তৈরী, প্রায়শঃই বর্তুলাকার এবং যাহার ঢাল খুব তীগ্নভাবে খাড়া নয়; ৫০) “ফরম” অর্থ এই বিধিমালার সহিত সংযোজিত ফরম; ৫১) “ফলস্ সিলিং” অর্থ করের উচ্চতার মধ্যে একটি মধ্যবর্তী অতিরিক্ত ছাদ, যাহা ভান্ডার, সার্ভিস তদারকী ইত্যাদি কাজে ব্যবহূত হয়, তবে বসবাসযোগ্য নয়; ৫২) “ফিনস্ বা লুভার (Fins or Louver)” অর্থ ইমারতের একটি খাড়া উপাদান যাহা সচরাচর সূর্য ও বৃষ্টি হইতে রক্ষা পাইবার জন্য জানালা, বারান্দা, বেলকনি ও করিডোরের বর্হিঃমুখে ব্যবহূত হয়; ৫৩) “ফিনিসড্ ফ্লোর লেভেল” অর্থ মেঝের সম্পূর্নকৃত উপরিতল; ৫৪) “ফিনিসড্ গ্রাউন্ড লেভেল” অর্থ জমির সম্পূর্নকৃত উপরিতল; ৫৫) “ফিনিসড্ সিলিং লেভেল” অর্থ ছাদের সম্পূর্নকৃত নিন্মতল; ৫৬) “ফুটপাথ” অর্থ রাস্তার পার্শ্বে বা অন্য কোন স্থানে পায়ে হাঁটার পথ; ৫৭) “ফ্ল্যাট বা অ্যাপার্টমেন্ট” অর্থ বসবাসযোগ্য একক আবাস যাহার মধ্যে রান্নঘর, গোসলখানা, শৌচাগার, প্রসাধনকর ইত্যাদি অন্তর্ভূক্ত থাকিবে; ৫৮) “ফ্লোর এরিয়া” অর্থ দেওয়ালের ও অন্যান্য ভারবাহী কাঠামোর আনুভূমিক ক্ষেএফলসহ ব্যবহারযোগ্য ইমারতের একটি তলার ক্ষেএফল; ৫৯) “ফ্লোর এরিয়া অনুপাত (Floor Area Ratio or FAR)” অর্থ জমির ক্ষেএফলের অনুপাতে ভবনে সন্নিবেশযোগ্য সম্পূর্ণ মেঝের ক্ষেএফল, যথা : একটি পটের মাঝে তৈরি সম্পূর্ণ ফ্লোর এরিয়ার যোগফলকে উক্ত পটের বিদ্যমান জমির ক্ষেএফল দ্বারা বিভাজনের ফল, যাহার ফর্মুলা নিন্মে প্রদও হইল : FAR = {সকল মেঝের সম্মিলিত ক্ষেএফল ( বিধিমালার আওতায় ছাড়যোগ্য ক্ষেএফল সমূহ ব্যতীত)}/{জমির ক্ষেএফল ( প্রযোজ্য ক্ষেএে রাস্তার জন্য ছাড়িয়া দেওয়া জমির ক্ষেএফল ব্যতীত)} ৬০) “বসতবাড়ি” অর্থ স্বতন্ত্র বসবাস, রন্ধন, স্বাস্থ্য ব্যবস্থার সুবিধাসম্বলিত এক স্বাবলম্বী বসত ব্যবস্থা যাহা এক বা একাধিক ব্যক্তিবর্গের সমন্বয়ে গঠিত ইমারত বা ইমারতের অংশবিশেষ; ৬১) “বন্যার পানি উচ্চতা” অর্থ একটি নির্দিষ্ট এলাকার জন্য বন্যাকালীন পানির উচ্চতা, যাহা বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড কতৃক নির্ধারিত; ৬২) “বসবাসযোগ্য কর” অর্থ এক বা একাধিক ব্যক্তির ব্যবহূত কর যাহা দপ্তর, লিভিংরুম, শয়ন, অধ্যয়ন বা খাওয়ার কাজে ব্যবহূত হয় তবে বাথরুম, টয়লেট, রান্নঘর, লন্ড্রি, ভান্ডার, করিডোর, প্যান্ট্রি, ভূগর্ভস্থ রুম, চিলে কোঠা, অনিয়মিত ব্যবহূত জায়গা এইরূপ বসবাসযোগ্য করের অন্তর্ভূক্ত হইবে না; ৬৩) “বহুতল ইমারত” অর্থ ১০ তলা বা ৩৩ মিটারের উর্ধ্বে যে কোন ইমারত বা ভবন, যাহাতে উচ্চতা নির্ধারনের ক্ষেএে সিড়িঁঘর, লিফট্ মেশিন রুম বা জলাধারের উচ্চতা গণ্য করা হইবে না; ৬৪) “ব্যালকনি” অর্থ ইমারতের মূল অংশ হইতে বহিঃদিকে বর্ধিত ব্যবহারযোগ্য জায়গা যাহার ভূমি পর্যন্ত বর্ধিত কোন অবলম্বন নাই এবং বাহিরের দিকে নিরেট কোন বেস্টনী দ্বারা সম্পূর্ণ আবদ্ধ নয়; ৬৫) “বিল্ডিং সার্ভিসেস” অর্থ আলো-বাতাসের চলাচল, বৈদ্যুতিক সুবিধা, শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ, উওাপন (Heating), অভ্যন্তরীণ শব্দ (Acoustics) নিয়ন্ত্রণ, লিফট্, এস্কেলেটর ও মোভিং ওয়াক স্থাপন, পানি সরবরাহ, অগ্নি-নির্বাপণ, পয়ঃ ও পানি নিষ্কাশন, গ্যাস সরবরাহ এবং টেলিফোন সংস্থাপন ও এই জাতীয় ইউটিলিটি সুবিধার সন্নিবেশ; ৬৬) “বিদ্যমান ইমারত বা বিদ্যমান ব্যবহার” এর অর্থ এই বিধিমালা কার্যকর হওয়ার পূর্বে কতৃপক্ষ কতৃক অনুমোদিত কোন ভবন এবং তাহার ব্যবহার; ৬৭) “বিশেষ মনোনীত এলাকা” অর্থ প্রাকৃতিক বা সাংস্কৃতিক গুরত্ব বহনকারী এবং মহাপরিকল্পনার অধীনে প্রস্তুত ডিটেইলড্ এরিয়া প্ল্যান (DAP) এ নির্দেশিত এলাকা; ৬৮) “বিশেষ প্রকল্প” অর্থ এই বিধিমালার আওতায় তালিকাভূক্ত বা অনুরূপ বৃহদায়তন আকৃতির বা বিশেষ ধরনের ইমারত বা স্থাপনা; ৬৯) “ভূমি আচ্ছাদন” অর্থ ইমারত দ্বারা আবৃত জমির পরিমাণ যাহা শতাংশ হিসাবে উল্লেখিত হইবে, যথা : ভূমি আচ্ছাদন (Ground Coverage) = {(ইমারত দ্বারা আবৃত এলাকা x ১০০) / (জমির ক্ষেএফল (প্রযোজ্য ক্ষেএে রাস্তার জন্য ছাড়িয়া দেওয়া জমির ক্ষেএফল ব্যতিত)} ৭০) “ভূমি-ব্যবহার ছাড়পএ” অর্থ ক্ষেএমত কতৃপক্ষ বা সরকার কতৃক Town Improvement Act-1953 ( Act No. XIII of 1953) এর অধীন প্রণীত ঢাকা মেট্রোপলিটন মাষ্টারপ্ল্যান (১৯৯৫-২০১৫), মহানগরী, বিভাগীয় শহর ও জেলা শহরের পৌর এলাকাসহ দেশের সকল পৌর এলাকার খেলার মাঠ, উন্মুক্ত স্থান, উদ্যান এবং প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইন-২০০০ (২০০০ সনের ৩৬ নং আইন) এর আওতায় প্রদও আবেদনকারীর ভূমির ব্যবহার সম্পর্কিত ছাড়পএ; ৭১) “মহাপরিকল্পনা” (Master Plan) অর্থ Town Improvement Act-1953 ( Act No. XIII of 1953) এর অধীন প্রণীত যে কোন পরিকল্পনা, যাহা বর্তমানে Dhaka Metropolitan Development Plan (1995-2015), Structural Plan, Urban Area Plan, Detailed Area Plan হিসাবে অভিহিত, গৃহীত, অনুমোদিত ও কার্যকর; ৭২) “মেজানাইন তলা” অর্থ ভবনের যে কোন দুইটি মূল তলার মধ্যবর্তী একটি মাঝামাঝি আংশিক তলা; ৭৩) “মেঝে” অর্থ ভূমির সমান্তরাল ইমারতের তলা; ৭৪) “যান্ত্রিক বায়ু চলাচল ব্যবস্থা” অর্থ যান্ত্রিকভাবে কোন ভবনে বা তাহার অংশবিশেষে বাতাস আনয়ন অথবা প্রয়োজনে বাতাস বাহির করিয়া দেওয়ার ব্যবস্থা; ৭৫) “রাস্তা” অর্থ ভূমি-জরীপ ম্যাপ, ঢাকা সিটি কর্পোরেশন, রাজধানী উন্নয়ন কতৃপক্ষ, মিউনিসিপ্যালিটি বা সমজাতীয় নাগরিক সুবিধা প্রদানকারী কোন সংস্থার ম্যাপ বা রেকর্ডভূক্ত চলাচলের পথ, সকল ধরনের সড়ক, মহাসড়ক, পথ, হাঁটা পথ বিদ্যমান অথবা নির্মাণের জন্য প্রস্তাবিত স্থান এবং রাস্তা সংলগ্ন সংরক্ষিত খালি জায়গা, ড্রেন ও ফুটপাথও ইহার অন্তর্ভূক্ত; ৭৬) “রাস্তার প্রস্থ” অর্থ রাস্তা, রাস্তা সংলগ্ন ড্রেন, ফুটপাথ্ ইত্যাদিসহ রাস্তার সর্বমোট বিস্তার; ৭৭) “সংযুক্তি” অর্থ এই বিধিমালার সহিত সংযোজিত সংযুক্তি; ৭৮) “সংযোজন” অর্থ ভবনের ঘন আয়তন অথবা মেঝের ক্ষেএফলের সহিত সংযোজন; ৭৯) “সংরক্ষিত এলাকা” অর্থ ঢাকা মেট্রোপলিটন ডেভেলপমেন্ট প্ল্যান এর অধীনে প্রস্তুত ডিটেইলড্ এরিয়া প্ল্যান (DAP) এ নির্দেশিত সাংস্কৃতিক বা প্রাকৃতিক ঐতিহ্যের নিদর্শনযুক্ত এলাকা; ৮০) “সারণী” অর্থ এই বিধিমালার সহিত সংযোজিত সারণী; ৮১) “স্বত্বাধীকারী” অর্থ জমির আইনানুগ মালিকানাপ্রাপ্ত ব্যক্তি, ব্যক্তি-সমষ্টি, কোম্পানী, ট্রাস্ট, নিবন্ধিত সংঘ, সরকার বা তৎঅধীনস্থ কোন সংস্থা; ৮২) “সেটব্যাক” অর্থ প্রতিটি ইমারতের সন্মুখে, পার্শ্বে এবং পশ্চাতে নুন্যতম উন্মুক্ত স্থান; ৮৩) ““সেটব্যাক লাইন” অর্থ পট বা সাইট এর মাঝে পটের সীমানা রেখার সমান্তরাল রেখা; ৮৪) “সার্ভিস কর” অর্থ বসবাস ব্যতীত অন্যান্য কর এবং আবৃত স্থান, যেমন- পার্কিং এরিয়া, এয়ার কন্ডিশনার প্যান্ট, বিল্ডিং সার্ভিসের জন্য সংরক্ষিত স্থান, জেনারেটর এর জন্য নির্ধারিত স্থান, গৃহস্থালী কাজের জন্য স্টোর রুম, স্ট্রং রুম, সার্ভিস স্টেশন, অদাহ্য বস্তু রাখিবার করসমূহ, ইত্যাদি; ৮৫) “সার্ভিস রোড” অর্থ সার্ভিসের প্রয়োজনে পটের পশ্চাতে এবং পার্শ্বে সংরক্ষিত রাস্তা বা লেইন; ৮৬) “সাইট” অর্থ ইমারত বা ইমারতের অঙ্গন নির্মাণ, মাটি বা বালি ভরাট, খনন বা পাহাড় কর্তনের জন্য নির্দিষ্ট সীমারেখা বেষ্টিত স্থান; ৮৭) “সানশেড” অর্থ রোদ বৃষ্টি হইতে রক্ষার জন্য বহিঃদেওয়ালের উপর স্থাপিত ওভার হ্যাং; ৮৮) “সার্বজনীন গম্যতা” অর্থ সার্বজনীন ডিজাইন নীতিতে নকশাকৃত নির্মিত পরিবেশ; ৮৯) “সার্বজনীন ডিজাইন” অর্থ এমন একটি নকশানীতি কার্যক্রম যেখানে শারীরবৃওীয় অবস্থান সাপেক্ষে কোন ব্যক্তি প্রয়োজনকে আলাদা না করিয়া সকল মানুষের সার্বজনীন প্রয়োজনকে পরিকল্পনায় রাখিয়া নীতি নির্ধারিত হয়; ৯০) “সুপারভাইজার” অর্থ কোন ইমারত নির্মাণ কাজ তও্বাবধানের জন্য বিধি ৪১ অনুযায়ী তালিকাভুক্ত ব্যক্তি যিনি স্বীকৃত কোন পলিটেকনিক বা কারিগরী ইনস্টিটিউট হইতে প্রকৌশল বা স্থাপত্য বিষয়ে ডিপ্লোমাধারী এবং সংশ্লিষ্ট ইনস্টিটিউটের সদস্য; ৯১) “স্থপতি” অর্থ যিনি স্থাপত্য বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রীপ্রাপ্ত ও বাংলাদেশ স্থপতি ইনস্টিটিউট (IAB) এর সদস্য এবং ৪১ অনুযায়ী তালিকাভুক্ত; ৯২) “হাউজিং বা এ্যাপার্টমেন্ট কমপ্লেক্স” অর্থ একগুচ্ছ আবাস বা এ্যাপার্টমেন্ট বা ফ্ল্যাটের সমাবেশ যেখানে কতিপয় সাধারণ সুযোগ-সুবিধা সম্মিলিত ব্যবহারের জন্য বিদ্যমান থাকে । দ্বিতীয় অধ্যায় : ছাড়পএ ও অনুমোদন পএের আবেদন, অনুমোদন এবং বসবাস বা ব্যবহার সনদ, ইত্যাদি (৩) ইমারতের নকশা অনুমোদন ও বসবাস উপযোগিতার অনুমোদন পদ্ধতি, এই বিধিমালার অধীন ইমারতের নকশা ও বসবাস উপযোগিতার অনুমোদন পদ্ধতি ক্ষেএ বিশেষে নিন্মে উল্লেখিত সর্বনিন্ম দুইটি ও সর্বোচ্চ চারটি পর্যায়ে সম্পূর্ণ হইবে, যথা : (ক) ভূমি-ব্যবহার ছাড়পএ (Land Use Clearence) (প্রযোজ্য ক্ষেএে); (খ) বৃহদায়তন বা বিশেষ ধরনের প্রকল্পের জন্য বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএ (Special Project Permit for Large and Specialized Projects) (প্রযোজ্য ক্ষেএে); (গ) নির্মাণ অনুমোদনপএ (Building Permit) (সকল ক্ষেএে বাধ্যতামূলক); (ঘ) বসবাস বা ব্যবহার সনদপএ (Occupancy Certificate) (সকল ক্ষেএে বাধ্যতামূলক); (৪) ভূমি-ব্যবহার ছাড়পএ : ১) বিশেষ ধরণের প্রকল্পের জন্য ছাড়পএ ও নির্মাণ অনুমোদনের আবেদনপএ দাখিলের পূর্বে, কতৃপক্ষের আওতাভূক্ত কিন্তু পরিকল্পিত এলাকার বহির্ভূত যে কোন ভূমিতে উন্নয়নের জন্য কতৃপক্ষের নিকট হইতে ভূমি ব্যবহার ছাড়পএ গ্রহন না করিলে কোন ইমারত নির্মাণ বা উন্নয়ন কাজ অনুমোদন করা হইবে না। ২) গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় বা তদধীন কোন সংস্হা কতৃক পরিকল্পিত ও উন্নয়নকৃত এবং কতৃপক্ষ কতৃক বেসরকারী আবাসিক প্রকল্পের ভূমি উন্নয়ন বিধিমালা-২০০৪ অথবা এতদসংক্রান্ত অন্য কোন বিধিমালা অনুসারে অনুমোদিত বেসরকারী প্রতিষ্ঠান কতৃক উন্নয়নকৃত সাইট অ্যান্ড সার্ভিসেস প্রকল্পের অন্তর্ভূক্ত জমির জন্য ভূমি ব্যবহার ছাড়পএ গ্রহণ আবশ্যক হইবে না । ৩) জমির মালিকানা সংক্রান্ত কাগজপএসহ প্রস্তাবিত জমি বা সাইট ব্যবহারের নিমিও ভূমি ব্যবহার ছাড়পএের জন্য নির্ধারিত ফি সহ নির্ধারিত ছক (ফরম-১০১) এর মাধ্যমে আবেদন করিতে হইবে । ৪) আবেদনপএের ৩ (তিন) কপি আবেদনকারী কতৃক স্বাক্ষরিত হইতে হইবে এবং উহার সহিত ৩ (তিন) কপি ১ : ৫,০০০ অথবা ১ : ১০,০০০ স্কেলে প্রণীত সাইটের জরীপ ম্যাপ সংযোজন করিতে হইবে যাহাতে জমি চিহ্নিত করিবার মতো আর.এস/সি.এস ম্যাপসহ একটি খসড়া স্থানিক নকশা (Location Map) থাকিবে। (৫) ভূমি ব্যবহার ছাড়পএ অনুমোদনের সাধারণ শর্তাবলী : ১) ভূমি ব্যবহার ছাড়পএ কোন উন্নয়ন বা নির্মাণ কাজের অনুমতি নহে এবং ইহা আবেদনকারী বা কোন ব্যক্তিকে অনুরূপ কাজের শুরু কিংবা সম্পাদনের অধিকার প্রদান করিবে না । ২) বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএ প্রদান বা নির্মাণ অনুমোদনের ক্ষেএে কতৃপক্ষ কতৃক যে কোন শর্তারোপে ভূমি ব্যবহার ছাড়পএ প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করিবে না । (৬) ভূমি ব্যবহার ছাড়পএ অনুমোদন, প্রত্যাখান ও আপিল : ১) ভূমি ব্যবহার ছাড়পএের আবেদন দাখিলের ৩০ (এিশ) দিনের মধ্যে কতৃপক্ষের নগর পরিকল্পনা শাখা প্রয়োজনে যে কোন শর্তাবলী আরোপ করিয়া নির্ধারিত ছক (ফরম-১০২) এর মাধ্যমে অনুমোদন প্রদান অথবা লিখিত কারণ প্রদর্শনপূর্বক নির্ধারিত ছক (ফরম-১০৩) এর মাধ্যমে আবেদন প্রত্যাখান করিতে পারিবে । ২) উপ-বিধি (১) অনুযায়ী আবেদন প্রত্যাখান করা হইলে আবেদনকারী নির্ধারিত ছক (ফরম-১০৪) এর মাধ্যমে কতৃপক্ষের চেয়ারম্যানের নিকট Town Improvement Act-1953 এর ধারা ৭৫(১) অনুযায়ী আবেদন করিতে পারিবে । ৩) কতৃপক্ষের চেয়ারম্যান উপ-বিধি (২) অনুযায়ী আবেদন প্রাপ্তির ৩০(এিশ) দিনের মধ্যে আবেদন অনুমোদন অথবা প্রত্যাখানের সিদ্ধান্ত প্রদান করিবে এবং কতৃপক্ষের নগর পরিকল্পনা শাখা উক্ত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নির্ধারিত ছক (ফরম-১০৫) এর মাধ্যমে অনুমোদন অথবা নির্ধারিত ছক (ফরম-১০৬) এর মাধ্যমে আবেদন প্রত্যাখান করিবে । ৪) উপ-বিধি (৩) অনুযায়ী আবেদন প্রত্যাখান করা হইলে আবেদনকারী ৬০(ষাট) দিনের মধ্যে Town Improvement Act-1953 এর ধারা ৭৫(২) অনুযায়ী নির্ধারিত ছক (ফরম-১০৭) এর মাধ্যমে কতৃপক্ষের নিকট আপিল করিতে পারিবে এবং কতৃপক্ষ আবেদন প্রাপ্তির ৩০(এিশ) দিনের মধ্যে নগর উন্নয়ন কমিটির মতামত গ্রহনপূর্বক আবেদন অনুমোদন অথবা প্রত্যাখানের সিদ্ধান্ত প্রদান করিবে । ৫) কতৃপক্ষ উপ-বিধি (৪) এর সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ভূমি ব্যবহার ছাড়পএ নির্ধারিত ছক (ফরম-১০৮) এর মাধ্যমে অনুমোদন অথবা নির্ধারিত ছক (ফরম-১০৯) এর মাধ্যমে প্রত্যাখান করিতে পারিবে যাহা চূড়ান্ত বলিয়া বিবেচিত হইবে । (৭) ভূমি ব্যবহার ছাড়পএের বৈধতাকাল : ১) ভূমি ব্যবহার ছাড়পএের বৈধতার মেয়াদ হইবে অনুমোদনের তারিখ হইতে ২৪(চব্বিশ) মাস, ২) উপ-বিধি (১) এ বর্ণিত সময়কালের মধ্যে ভূমি ব্যবহার ছাড়পএ নবায়নের জন্য নির্ধারিত ছক (ফরম-১১০) এর মাধ্যমে আবেদন করা যাইবে, যাহা কতৃপক্ষ গ্রহণযোগ্য বিবেচনা করিলে বৈধতাকাল অবসানের তারিখ হইতে অতিরিক্ত ১২(বার) মাসের জন্য নির্ধারিত ছক (ফরম-১১১) এর মাধ্যমে নবায়ন করিতে পারিবে অথবা গ্রহণযোগ্য বিবেচনা না করিলে নির্ধারিত ছক (ফরম-১১২) এর মাধ্যমে নবায়নের আবেদন প্রত্যাখান করিতে পারিবে । ৩) ভূমি ব্যবহার ছাড়পএের বৈধতার মেয়াদ উওীর্ণ হইয়া গেলে নতুন করিয়া ভূমি ব্যবহার ছাড়পএের অনুমোদন গ্রহণ করিতে হইবে । (৮) বৃহদায়তন বা বিশেষ ধরনের প্রকল্পের জন্য বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএ : ১) নিন্মলিখিত ধরনের প্রকল্পের জন্য বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএ গ্রহণ করিতে হইবে, যথা : (ক) ৪০(চল্লিশ) টির অধিক আবাসন ইউনিটবিশিষ্ট আবাসিক ভবন; (খ) মোট ৭,৫০০ (সাত হাজার পাঁচশত) বর্গমিটারের অধিক (FAR আওতাধীন) মেঝে বিশিষ্ট যে কোন প্রকল্প; (গ) মোট ৫,০০০ (পাঁচ হাজার) বর্গমিটারের অধিক (FAR আওতাধীন) মেঝে বিশিষ্ট বিপণী কেন্দ্র; (ঘ) জাতীয় ও আঞ্চলিক মহাসড়ক বা প্রধান সড়কের সহিত সরাসরি সংযোগ বিশিষ্ট যে কোন প্রকল্প; (ঙ) ইটের ভাটাসহ পরিবেশ দূষণমূলক বা বিপজ্জনক শিল্প-কারখানা; (চ) স্হাপতিক বা ঐতিহাসিক গুরুত্বপূর্ণ ভবন বা এলাকার ২৫০ (দুইশত পঞ্চাশ) মিটার দূরত্বের ভিতর যে কোন নির্মাণ বা উন্নয়ন; (ছ) প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্ডিত এলাকার ২৫০ (দুইশত পঞ্চাশ) মিটার দূরত্বেও ভিতর যে কোন নির্মাণ বা উন্নয়ন; (জ) পাহাড়ী এলাকা অথবা পাহাড় হিসেবে দৃশ্যমান জমিতে অথবা এইরূপ ভূমির ৫০(পঞ্চাশ) মিটারের মধ্যে যে কোন ধরনের নির্মাণ বা উন্নয়ন; (ঝ) নদী তীরবর্তী ২৫০ (দুইশত পঞ্চাশ) মিটার দূরত্বের মধ্যে যে কোন নির্মাণ বা উন্নয়ন । ২) উপ-বিধি (১) এ বর্ণিত বিভিন্ন ধরণের প্রকল্পের ক্ষেএে ইমারত নির্মাণ অনুমোদনপএের জন্য আবেদন করিবার পূর্বে কতৃপক্ষের বৃহদায়তন বা বিশেষ প্রকল্প অনুমোদন কমিটি এর নিকট হইতে ঐ প্রকল্পের জন্য বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএ গ্রহণ করিতে হইবে এবং ছাড়পএের জন্য কতৃপক্ষ কতৃক নির্ধারিত ফি সহ নির্ধারিত ছক (ফরম-২০১) এর মাধ্যমে আবেদন করিতে হইবে । ৩) বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএের আবেদনের ক্ষেএে নিন্মলিখিত তথ্যাদির ১১(এগার) সেটসহ জমির মালিকানা সংক্রান্ত দলিলাদির ১(এক) সেট সংযোজন করিতে হইবে, যথা : (ক) ভূমি ব্যবহার ছাড়পএের অনুলিপি বা অনাপওি পএ (প্রযোজ্য ক্ষেএে); (খ) মালিকানা স্বও্ব, হোল্ডিং নম্বর, সি.এস./আর.এস. মহানগর জরীপ অথবা সর্বশেষ প্রকাশিত জরীপ, দাগ নম্বর, পরিকল্পিত এলাকার ক্ষেএে অবস্থান নির্দেশ এবং কতৃপক্ষ কতৃক নির্ধারিত অন্য যে কোন দলিলাদি, পর্চা, শিডিউল ইত্যাদি; (গ) প্রস্তাবিত ভবনে আনুমানিক সর্বমোট তলার সংখ্যা ও সর্বমোট মেঝের ক্ষেএফল; (ঘ) প্রতি তলার ব্যবহারওয়ারী আনুমানিক মেঝের ক্ষেএফল; (ঙ) প্রযোজ্য ক্ষেএে আবাসন ইউনিটের সর্বমোট সংখ্যা; (চ) FAR এর হিসাব; (ছ) প্রস্তাবিত উন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় পানির আনুমানিক চাহিদা এবং ইহার উৎস ও সরবরাহ ব্যবস্থা; (জ) প্রস্তাবিত উন্নয়নের জন্য বিদ্যুতের আনুমানিক চাহিদা এবং উহার উৎস ও সরবরাহ ব্যবস্থা; (ঝ) নির্মাণ কার্যের পর্যায়ক্রম, আরম্ভকাল এবং নির্মাণের সম্ভাব্য মেয়াদ । ৪) বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএের জন্য প্রণীত নকশা অনূন্য ১ : ১০০০ স্কেলে অঙ্কিত হইতে হইবে এবং উহাতে নিন্মলিখিত বিষয়গুলো সংযোজন বা চিহ্নিত করিতে হইবে, যথা : (ক) রাস্তার পরিমাপসহ সাইটের সীমানা এবং আবেদনকারীর মালিকানাধীন সন্নিহিত জমি (যদি থাকে); (খ) সাইটের উওর দিক-নির্দশক চিএ; (গ) সাইটের সন্নিহিত সড়কের নাম বা ব্যক্তি মালিকানাধীন রাস্তার সহিত সাইটটি সন্নিহিত হইলে যে সড়ক হইতে ব্যক্তি মালিকানাধীন রাস্তাটির উৎপওি হইয়াছে তাহার নাম; (ঘ) প্রকল্পের জন্য প্রস্তাবিত স্থানের মোজা, হোল্ডিং নম্বর, পট ও রাস্তা নম্বর; (ঙ) সাইট সন্নিহিত সকল রাস্তার প্রস্থ এবং ফুটপাথ্ (যদি থাকে) এর প্রস্থ ও অবস্থান; (চ) সংলগ্ন সড়কের প্রেক্ষাপটে পটের উচ্চতা; (ছ) বাহ্যিক পরিমাপ ও সাইটের সীমানা হইতে দূরত্ব প্রদানসহ সাইটে অবস্থিত বিদ্যমান বা প্রস্তাবিত ভবন বা অন্যান্য কাঠামোর অবস্থান ও ব্যবহার; (জ) সাইট সংলগ্ন ভবন বা অবকাঠামোর আনুমানিক অবস্থান, উচ্চতা এবং সাইটের সীমানা হইতে দুরত্ব; (ঝ) সাইটে যানবাহন ও পথচারীর আগমন-নির্গমন পথের অবস্থান; (ঞ) সাইট সংলগ্ন সকল সড়ক পার্শ্বস্থ ড্রেন, প্রাকৃতিক পানি নিষ্কাশন চ্যানেল, পানির প্রবাহমান ধারা এবং পানি নিষ্কাশনের প্রস্তাবিত ব্যবস্থা; (ট) বিদ্যমান বৈদ্যুতিক লাইন, পানি সরবরাহ লাইন, পয়ঃনিষ্কাশন লাইনের অবস্থান (যদি থাকে) ও প্রস্তাবিত সংযোগ; (ঠ) সাইটের মধ্যে প্রস্তাবিত আবর্জনা সংগ্রহ স্থল এবং শিল্পকারখানার ক্ষেএে বর্জ্য অপসারণের ব্যবস্থাপনা; (ড) সাইটের ২৫০ (দুই শত পঞ্চাশ) মিটার দূরত্বের মধ্যে অবস্থিত সকল প্রাকৃতিক উপাদান (জলাশয়, উন্মুক্ত স্থান, উদ্যান, পাহাড় ইত্যাদি) ও ঐতিহ্যবাহী ইমারত এবং সাইটের অবস্থান; (ঢ) উপরোক্ত তথ্যাবলীর সমন্বয়ে আবেদনপএের সহিত আবেদনকারী ও সংশ্লিষ্ট পেশাজীবি ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গের অমুদ্রিত স্বাক্ষরসহ্ ১১ (এগার) সেট ধারণাগত নকশা (Conceptual Drawing) । ৫) বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএের জন্য প্রস্তাবিত ধারনাগত নকশা ও আবেদনপএে আবেদনকারী এবং এই বিধিমালার বিধি ৪১ অনুযায়ী তালিকাভুক্ত ও প্রকল্পের ধরণ অনুযায়ী ক্ষমতাপ্রাপ্ত এইরূপ কমপক্ষে একজন স্থপতি ও একজন পুরকৌশলী স্বাক্ষর করিবেন । ৬) কতৃপক্ষ ধারণাগত নকশার ২ (দুই) সেট অনুমোদিত বা অননুমোদিত সীলসহ ফেরৎ প্রদান করিবে এবং অবশিষ্ট ১ (এক) সেট নকশা ও দলিলাদি সংশ্লিষ্ট নথিতে সংরক্ষণ করিবে । (৯) বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএ অনুমোদন : ১) বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএ আবেদন প্রাপ্তির ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) দিনের মধ্যে কতৃপক্ষের বৃহদায়তন বা বিশেষ প্রকল্প অনুমোদন কমিটি সিদ্ধান্ত গ্রহণপূর্বক নির্ধারিত ছক (ফরম-২০২) এর মাধ্যমে অনুমোদন অথবা নির্ধারিত ছক (ফরম-২০৩) এর মাধ্যমে আবেদন প্রত্যাখান করিবে । ২) রাষ্ট্রীয় স্বার্থসংশ্লিষ্ট প্রকল্প অথবা পরিবেশগতভাবে বিরূপ প্রতিক্রিয়া হইতে পারে এমন ধরনের প্রকল্পের ক্ষেএে কতৃপক্ষ প্রকল্পের ড্রয়িংসমূহ জনসাধারণের পর্যবেক্ষণ ও মন্তব্যের জন্য প্রদর্শন করিবে এবং উক্ত প্রদর্শনীর মাধ্যমে ১৫ (পনের) দিনব্যাপী জনমত সংগ্রহ করিয়া পরবর্তীতে তাহা নগর উন্নয়ন কমিটির নিকট প্রেরণ করিবে । ৩) যদি কোন ব্যক্তি মনে করেন যে, কোন প্রকল্প এই বিধিমালা অথবা বিদ্যমান অন্য কোন আইন বা বিধি বা প্রবিধির পরিপন্থী হইবে বা উহা জনগন অথবা পরিবেশকে ক্ষতিগ্রস্ত বা বিপন্ন করিবে তবে তাহার আবেদনের ভিওিতে উক্ত প্রকল্পের নকশাসমূহ তাহাকে পর্যবেক্ষণ করিবার সুযোগ প্রদান করিবে । (১০) বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএের বৈধতা : ১) বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএের বৈধতার মেয়াদ উহা প্রদানের তারিখ হইতে ২৪ (চব্বিশ) মাস পর্যন্ত বলবৎ থাকিবে এবং উক্ত মেয়াদের মধ্যে নির্মাণ অনুমোদনপএের জন্য আবেদন দাখিল করিতে হইবে; ২) বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএ নবায়নযোগ্য নহে এবং আবেদনকারী বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএের বৈধতার মেয়াদকালে নির্মাণ অনুমোদনপএের জন্য আবেদন করিতে ব্যর্থ হইলে তাহাকে পুনরায় নতুন করিয়া উক্ত ছাড়পএের জন্য আবেদন করিতে হইবে । (১১) বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএ বাতিল : নিন্মলিখিত যে কোন কারণে কতৃপক্ষ বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএ বাতিল করিতে পারিবে, যথা : (ক) অনুমতিপএের যে কোন শর্ত বরখেলাপ করা হইলে; (খ) এই বিধিমালার কোন বিধি লঙ্গন করিলে; এবং (গ) দাখিলকৃত আবেদনপএে কোন ভুল বা অসত্য তথ্য প্রদান করিলে অথবা কোন তথ্য গোপন করিয়া থাকিলে । (১২) বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএের বিষয়ে আপিল : ১) বিশেষ প্রকল্প ছাড়পএের আবেদন প্রত্যাখান বা বাতিলের তারিখ হইতে ৪৫(পঁয়তাল্লিশ) দিনের মধ্যে আবেদনকারী উপযুক্ত কারণ প্রদর্শন করিয়া নগর উন্নয়ন কমিটির নিকট নির্ধারিত ছক (ফরম-২০৪) ??

Card image cap
List of Drawings in order of Priority
engr.tushar - 28 May 2016
List of Drawings in order of Priority ================================== Conceptual Drawings • Plans • Elevations • Sections • Views Site Plans • Site Analysis Architectural Drawings • Plans • Sections • Elevations • Working Drawings Structural Drawings • Pits • Footings • Columns • Beams • Slabs Electrical Drawings • Electrical Layout • Fire Alarms Mechanical Drawings • Mechanical layout • HVAC (Heating Ventilation and Air conditioning) Layout • Fire Sprinklers Layout • Power Generation Layout Plumbing Drawings • Water Supply Layout (Hot and Cold Water supply) • Water Sprinklers Utility Drawings • Drainage Layout • Toilets • Kitchen Landscape Drawings • Landscape Plans • Type of Trees • Shrubs • Bushes • Size of Canopy, seasons etc. Interior Drawings • Interior Design/Decoration • Floor Plans • Wall Elevations • Ceiling Plan • Electrical Layout • Mechanical Layout • Plumbing Layout • Detailing

Card image cap
ম্যাট ও ফুটিং
engr.tushar - 25 May 2016
• কংক্রিট এর প্রান্তে দিনের শেষে স্টপার দিতে হবে • কাজ শুরুর পুর্বে কংক্রিট জয়েন্টের দুর্বল কংক্রিট বা সিমেন্ট সরিয়ে ফেলতে হবে • কংক্রিট ফিনিশিং এর সময় উপর, নিচ এবং পার্শের কভার ঠিকমত রাখতে হবে. • গুনা তার এর কোনও অংশ যেন কভার এর মধ্যে না থাকে। • এক থেকে দেড় ঘন্টা পরে কলামের গোড়া থেকে লেটেন্স সরিয়ে ফেলতে হবে। ঢালাই এর সময় কলামের ভেতরে ভাইব্রেটর মারতে হবে। • ম্যাটের উপরের জালির সাথে কলামের রিং শক্ত করে বাধতে হবে। • সম্ভব হলে ফুটিং এর সাথেই কলাম স্টার্টার (অল্প অংশ) ঢালাই করা উচিত।

Card image cap
পাইল ক্যাপ চেইক লিষ্ট
engr.tushar - 24 May 2016
পাইল ক্যাপ চেইক লিষ্ট • পাইলের উপর থেকে দুর্বল কংক্রিট সরিয়ে ফেলুন • শাটার এর সকল ছিদ্র বা ফাকা বন্ধ করতে হবে • সব সাইট শলে (সঠিক উলম্ব) রাখতে হবে • সাটার এর সাপোর্ট ভালভাবে চেইক করতে হবে যাতে করে সাটার ঢালাই এর সময় খুলে না যায় বা ঢালাই মোটা না হয় • সাটারে কংক্রিট ঢালার লেভেল মার্কিং করতে হবে • কলামের রডের আনুভুমিক সাপোর্ট কংক্রিট লেভেল এর উপরে থাকতে হবে • ক্লিয়ার কভার ভালমত চেইক করতে হবে • রড বাধাই এর তারের কোন অংশ যেন কংক্রিট কভারের মধ্যে না যায় খেয়াল রাখতে হবে • কলাম রিং নিচে, মাঝে ও উপরে দিতে হবে। কংক্রিট এর চার ইঞ্চ উপরে একটি রিং দিতে হবে। • কলামের রড শলে (উলম্ব/খাড়া) রাখতে হবে • কংক্রিট ঢালার পুর্বে ভালভাবে পরিস্কার করতে হবে।

Card image cap
BSRM Rebar Price
engr.tushar - 22 Feb 2016
PRICE LIST EFFECTIVE FROM : May 05, 2016
SL# Product Name Origin Product Size Ex-Factory Chittagong
01  DEFORMED BARS Xtreme-500W    8 mm  TK.51,000 
  DEFORMED BARS Xtreme-500W    10 mm to 25 mm  TK.51,000 
  DEFORMED BARS Xtreme-500W    28 mm to 32 mm  TK.51,500 
02  DEFORMED BARS MAXIMA GR-80    16mm, 20mm & 25mm  TK.53,000 
  DEFORMED BARS MAXIMA GR-80    32mm  TK.53,500 
03  DEFORMED BARS (GR-420)    8 mm  TK.51,000 
  DEFORMED BARS (GR-420)    10 mm to 25 mm  TK.51,000 
  DEFORMED BARS (GR-420)    28 mm & 32 mm  TK.51,500 
04  DEFORMED BARS (GR-75)    7 mm  TK.51,000 
  DEFORMED BARS (GR-75)    6 mm  TK.51,000 
  DEFORMED BARS (GR-75)    4.5 mm  TK.51,000 
  DEFORMED BARS (GR-75)    5.5 mm  TK.54,000 
  DEFORMED BARS (GR-75)    8 mm  TK.51,000 
05  ANGLE    38X38X 6 MM  TK.50,500 
  ANGLE    38X38X 3 MM  TK.48,500 
  ANGLE    38X38X4 & 5 MM  TK.50,500 
  ANGLE    35X35X3 & 4 MM  TK.50,500 
  ANGLE    50x50x4,5& 6 MM  TK.50,500 
  ANGLE    63X63X 5 & 6 MM  TK.50,000 
  ANGLE    50x50x 3 MM  TK.47,500 
  ANGLE    75X75X 5 & 6 MM  TK.50,000 
  ANGLE    75X75X 8 & 9 MM  TK.50,000 
  ANGLE  IND  90X90X 6 MM  Tk. 61,000 
  ANGLE  IND  90X90X 7 MM  Tk. 61,000 
  ANGLE  CHN  90X90X 6 MM  Tk. 56,000 
  ANGLE  CHN  90X90X 7 MM  Tk. 56,000 
  ANGLE  CHN  90X90X 9  Tk. 56,000 
  ANGLE  IND  90X90X 8 MM  Tk. 61,000 
  ANGLE  IND  90X90X 9 MM  Tk. 61,000 
  ANGLE  CHN  90X90X 8 MM  Tk. 56,000 
  ANGLE  IND  100X100X 6 MM  Tk. 61,000 
  ANGLE  IND  100X100X 8 MM  Tk. 61,000 
  ANGLE  IND  100X100X 9 MM  Tk. 61,000 
  ANGLE  CHN  50X50X 3 MM  Tk. 47,500 
  ANGLE  CHN  100X100X 10 MM  Tk. 56,000 
  ANGLE  IND  110 X 110 X 8  Tk. 62,000 
  ANGLE  IND  120 X 120 X 10  Tk. 64,000 
  ANGLE  IND  120 X 120 X 8  Tk. 64,000 
  ANGLE  IND  100 X 100 X 7  Tk. 61,000 
  ANGLE  CHN  100 X 100 X 9  Tk. 56,000 
  ANGLE  IND  100 X 100 X 10  Tk. 61,000 
  ANGLE  IND  100 X 100 X 12  Tk. 61,000 
  ANGLE  IND  110 X 110 X 10  Tk. 62,000 
  ANGLE  IND  110 X 110 X 12  Tk. 62,000 
  ANGLE  IND  130 X 130 X 10  Tk. 64,000 
  ANGLE  IND  150 X 150 X 12  Tk. 64,000 
  ANGLE  CHN  100 X 100 X 12  Tk. 56,000 
  ANGLE  CHN  100 X 100 X 6  Tk. 56,000 
  ANGLE  CHN  100 X 100 X 7  Tk. 56,000 
  ANGLE  CHN  100 X 100 X 8  Tk. 56,000 
  ANGLE  CHN  38X38X 3 MM  Tk. 48,500 

Card image cap
গ্যাসের অপচয়রোধকারী চুলা
engr.tushar - 10 Sep 2015

আমরা যেই গ্যাস দিয়ে রান্না করি। রান্নার সময় গ্যাসের পরিপুর্ণ ব্যবহার হয় না। বেশ কিছু গ্যাসের আগুন বা তাপ আশেপাশে চলে যায়। যার কারণ অনেক গ্যাসের অপচয় হয়। MIST এর দুইজন আর্মি ছাত্র এমন একটি গ্যাসের চুলা আবিস্কার বা ডিজাইন করেছেন, যেখানে ৫০ শতাংশ গ্যাসের অপচয় রোধ করা সম্ভব।

1927 সালে আমেরিকাতে যেই চুলার ডিজাইন করা হয়, সেই চুলাই এখনো ব্যবহার হয়ে আসছে বাসা কিংবা রেষ্টুরেন্টে। এতে করে প্রতি বছর অনেক গ্যাসের অপচয় হচ্ছে।

হাবিব এবং এলাহী নামের দুইজন এর এই আবিস্কার আমাদের দেশের জন্য অনেক উপকারী।

 

Card image cap
আমরা কতটুকু উচু পর্যন্ত নির্মান করতে পারবো??
engr.tushar - 20 Aug 2015


মিশরের ফারাওরা যখন গিজার তিনটা পিরামিড নির্মান করেন তখন সেগুলোর উচ্চতা ছিলা ৪৮৭ ফিট বা একটা ৪৮ তলা বিল্ডিং এর সমান উচু। যা এই স্থাপনাগুলোকে তৎকালিন সময়ের সবচেয়ে উচু স্ট্রাকচারে পরিনত করে। এগুলো প্রায় ৪০০০ বছর ধরেই পৃথিবীর সবচেয়ে উচু ভবন ছিল। মানে হচ্ছে এই চার হাজার বছরে মানুষের নির্মিত কোন স্থাপনাই পিরামিডকে টপকাতে পারে নাই।

 


১৩০০ সালে যখন ইংল্যান্ডে Lincoln Cathedral নামক চার্চ নির্মিত হয় তখনই কেবল পিরামিডকে মানুষ তার নির্মিত ভবনের উচ্চতা দিয়ে টপকাতে পারে। এটির উচ্চতা ছিল ৫২৫ ফিট। তাহলে চমৎকার একটা প্রশ্ন হচ্ছে "গিজার পিরামিড কি পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ বিল্ডিং" । কারন হাজার পাচেক বছর আগে বানানো এই জিনিষ এখনো দারিয়ে আছে। এই প্রশ্নের উত্তরের জন্য আগে আমাদের বুঝতে হবে বিল্ডিং কি জিনিষ।

 

 


তাত্বিক ভাবে বিল্ডিং হচ্ছে এমন একটা স্ট্রাকচার যেটার উচ্চতার কমপক্ষে ৫০ ভাগ আসবে তার ফ্লোর থেকে। যেখানে মানুষ বসবাস করতে পারবে, কাজ করতে পারবে এবং বিনোদন সহ সবকিছুর জন্য ব্যাবহার করতে পারবে। মোদ্দাকথা হচ্ছে কোন স্ট্রাকচারকে বিল্ডিং বা ভবন হতে হলে সেটাতে মানুষের থাকার এবং কাজের সুবিধা থাকতে হবে। এই শর্তযদি যদি কোন স্ট্রাকচার পুরন করতে না পারে তবে সেটা বিল্ডিং বা ভবন হিসাবে গন্য হবে না। সেটা একটা টাওয়ার হিসাবে গন্য হবে। সেক্ষেত্রে পিরামিড ভবন নয়।

 

 


আবার ইতিহাসে ফিরে যাই। Lincoln Cathedral এর পরে আরো কিছু শতাব্দি অনেক গুলো চার্চ বা খ্রিস্টানদের প্রার্থনার স্থান ভবন নির্মানের ক্ষেত্রে টানা একটার পরে একটা রেকর্ড করতে থাকে আর ভাঙতে থাকে। ১৮৮০ সালে এই চার্চগুলো নির্মিত হয়। তার মানে প্রায় ৪৮০০ বছর ধরে উপরের দুইটা স্ট্রাকচার টানা উচ্চতার রেকর্ড ধারন করে ছিল।

 

 


এর পরে ১৮৮৯ সালে আইফেল টাওয়ার(৯৮৬ ফিট) নির্মিত হওয়ার পরে সেটিই ছিল সবচেয়ে লম্বা সময় ধরে সর্বোচ্চ উচ্চতায় থাকার তৃতিয় স্ট্রাকচার। এটি পৃথিবীতে প্রায় ৪২ বছর ধরে টানা সর্বোচ্চ উচ্চতার স্ট্রাকচার হিসাবে গন্য ছিল। এর পরে আমেরিকার নিউয়র্কের Chrysler Building (১৪৬ ফিট) ১৯৩০ সালে আবার নতুন রেকর্ড করে। ঠিক তার পরের বছর নিউয়র্কের বিখ্যাত Empire State Building আগের রেকর্ড ভেঙ্গে আবার নতুন রেকর্ড গরে।

 

 


Empire State Building হচ্ছে মানুষ্য নির্মিত প্রথম স্ট্রাকচার যেটি এতটাই উচু যে এটা থেকে মানুষ লাফ দিলে তার টারমিনাল ভেলোসিটিতে (terminal velocity) পৌছবে।(টারমিনাল ভেলোসিটি হচ্ছে যেকোন বস্তুর পরন্ত গতিবেগ। মানে হচ্ছে কোন বস্তুকে যদি উপরে থেকে বাতাসে ছেরে দেয়া হয় তবে সেটি মাটিতে পরতে পরতে সর্বোচ্চ যেই স্পিডে পৌছবে সেটি। মানে এই ভবনটি থেকে যদি কোন মানুষ আত্মহত্যা বা যে কোন কারনে লাফ দেয় তবে তার পরন্ত গতিবেগ বাড়তে বাড়তে একসময় সেটা মোটামুটি প্রায় ২০০ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টায় পৌছবে। এবং এই গতিবেগ আসতে যে সময় লাগে সেই সময়টুকুন পাওয়া যাবে এই Empire State Building থেকে লাফ দিলে। এজন্যই আত্মহত্যার জন্য এই ভবনটি কোন একসময় যথেস্ট জনপ্রিয় হয়েছিল। পরে অবশ্য কর্তৃপক্ষ এগুলো বন্ধকরার ব্যাবস্থা করে।

 

 


এর পরে ১৯৫০ সালে মানুষ হঠাৎ করে উচ্চ ভবন নির্মান বন্ধ করে আর একটা অদ্ভুৎ স্ট্রাকচার নির্মান শুরু করে। সেটা হচ্ছে রেডিও বা টিভির সম্প্রচার টাওয়ার। এই টাওয়ার গুলো হচ্ছে মানুষের দ্বারা নির্মিত তৎকালিন পর্যন্ত সবধরনের স্ট্রাকচারের মধ্যে অন্যতম উচ্চতম। তবে এগুলো কোন ভবনের মতন হয় না। এগুলো শুধু টাওয়ারের মতন করে নির্মান করা হয় যত উচুতে যাওয়া যায় ততই বিশাল এরিয়া কাভার করা যায়। এই রেকর্ডটা আছে পোলেন্ডের Warsaw radio mast নামক একটা রেডিও টাওয়ারের। এটার উচ্চতা ছিল প্রায় ২১১৮ ফিট। ১৯৯১ সালের দিকে এসে প্রচন্ড বাতাসে এটার স্ট্রাকচার ফেইল করে ধংস্ব হয়ে পরে যায়। কারন ছিল বাতাসের জোরে বেইজটা পুরো স্ট্রাকচারটির নারাচারা সহ্য করতে পারেনি।

 

 


এধরনের একটা মাত্র স্ট্রাকচার এখন পর্যন্ত দারিয়ে আছে আর সেটা হচ্ছে KVLY-TV mast যেটি আমেরিকার ডেকোটাতে অবস্থিত। এই স্ট্রাকচারটি এখনো দারিয়ে আছে। কিন্তু সাম্প্রতিক কালে এই সকল কিছুর সব ধরনের রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে একটা বিল্ডিং। আর সেটির নাম হচ্ছে Burj Khalifa। দুবাইতে অবস্থিত এই ভবনটি মাটি থেকে প্রায় এক কিলোমিটার পর্যন্ত উচু। আমি প্রথম যখন এই ভবনটার উচ্চতা সম্পর্কে স্টাডি করি পুরোই অবাক হয়ে যাই। এদিকে শুনতেছি সৌদিরা রিয়াদে এর চেয়ে উচু কিংডম টাওয়ার বানাতে যাচ্ছে। এছারা চায়না, আমেরিকা সহ অনেকগুলো দেশ এই ধরনের ভবন বানাবে।

এবার আসি মুল কথায়। মাটি থেকে যদি এক কিলোমিটার পর্যন্ত যাওয়া যায় তবে ঠিক কতদুর পর্যন্ত আমরা নির্মান করতে পারবো??

 

 


আপনার হাতের কাছে যদি একটা গোল বল থাকে সেটা হোক বাচ্চাদের। সেটা হাতে নিয়ে মনে মনে একটু ভেবে বলেন তো দেখি আপনার হাতের বলটি যদি পৃথিবী হয় আর মহাকাশে থাকা কৃত্তিম উপগ্রহ বা Satellite গুলো পৃথিবী থেকে ঠিক কতদুরে থাকবে?? আপনার হাতের আঙ্গুল ব্যাবহার করুন তো দেখি দুরত্বটা দেখানোর জন্য। আমি জানি আপনার আন্দাজ মোটেই সঠিক হচ্ছে না। একচুয়ালি আপনি যা ভাবছেন বিষয়টা তার চেয়ে একটু জটিল। হিসাব করলে দেখা যাবে যে স্যাটেলাইটগুলো যে দুরুত্বে থাকে সেটা যদি আপনার আঙ্গুল দিয়ে দেখাতে যান তবে আপনার আঙ্গুল বলের গায়ে লেগে যাবে। মানে কয়েক মিলিমিটারের মতন হবে আরকি।

 

 


ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশন সম্পর্কে তো জানেন। না জানলে জেনে রাখুন নাসা এধরনের একটা বিশাল স্টেশন তৈরি করেছে পৃথিবীর কক্ষপথে যেটি এতটাই বিশাল যে রিতিমত সেখানে বেশ কয়েকজন লোক নিয়মিত অফিস করেন। যাকগে সে কথা। আসল কথায় আসি। এই স্টেশনগুলো পৃথিবীকে ঘিরে ঘুরপাক খাচ্ছে নিয়মিত। কিন্তু সেই ঘুরপাক খাওয়ার গতি অত্যান্ত বেশি। এতটাই বেশি যে যেখানে আমরা ২৪ ঘন্টায় একবার সুর্যউদয় এবং সুর্যাস্ত দেখি সেখানে মহাকাশের স্পেস স্টেশন বা স্যাটেলাইটে কর্মরত লোকজন দেখে ১৬ বার। মানে ২৪ ঘন্টায় তাদের ১৬ দিন হিসেব হয়। বিষয়টা অনেক জটিল। তবে আপনার টেনশনের কোন কারন নেই কারন আপনি নিজেও এই জিনিষটা দেখতে পারেন মানে একদিনে দুইবার সুর্যাস্ত এবং সুর্যোদয় দেখতে পারেন।

 

 


এই বিষয়টা দেখতে হলে আপনাকে যেতে হবে পৃথিবীর সর্বোচ্চ ভবন দুবাইয়ের Burj Khalifa তে। এই ভবনটার নিচে সুর্যাস্তের সময় দারিয়ে আপনি দেখলেন সুর্য ডুবেগেছে। এবার আপনি খুব উচ্চক্ষমতার লিফটে উঠে চলে গেলেন ভবনের একদম উপরে। সেখানে গিয়ে আপনি সম্পুর্ন অবাক হয়ে যাবেন কারন আপনি সুর্যাস্ত আবার দেখতে পাবেন। একই ঘটনা ঘটবে এই ভবনের বেলায় যখন সুর্যোদয় ঘটে। অসাধারন তাইনা। এর কারন হচ্চে অতিরিক্ত উচ্চতা। এই বিষয়টা নিয়ে সবচেয়ে মজার সমস্যায় পরে দুবাই কর্তৃপক্ষ রমজানের সময়। কারন ভবনের নিচে ইফাতােরের সময় হলেও ভবনের উপরে তখনও সুর্য দেখা যায়। তাই দুবাই ইসলামিক সেন্টার এই বিল্ডিং এর জন্য একটা সুন্দর নিয়ম করে দিয়েছে। ভবনের ৮০ তালার নিচে যারা থাকবে তারা ৩ মিনিট আগে ইফতার করবেন এবং ৮০ তালার উপরে যারা থাকবেন তারা ৩ মিনিট দেরি করে ইফতারি করবেন। মজার বিষয় তাই না।

 

 


এই বিষয়টা দেখার জন্য আপনাকে যে দুবাইতে যেতে হবে এমন কোন কথা নেই। আপনি চাইলে আমাদের কক্সবাজারের সমুদ্র সৈকতের মধ্যে সুর্যাস্ত এবং সুর্যোদয় দুইবার দেখতে পারবেন। যাস্ট সুর্যাস্তের সময় প্রথমে আপনি বালির উপরে উপুর হয়ে শুয়ে পরুন। ঠিক যখন দেখবেন আপনার চোখথেকে সুর্যের সর্বশেষ লাল অংশটুকুন চলে যাচ্ছে সাথে সাথে ধুপ করে দারিয়ে পরুন। দেখবেন সুর্যাস্ত আবার দেখা যাচ্ছে। এটার কারন হচ্ছে পানির কিছু মৌলিক ধর্মের কারনে এটা একেবারে সমতল থাকে। তাই সাধারনত মাটিতে উচু নিচুর কারনে যা দেখা যায় না সমুদ্রে সেটা খুবই সুন্দর ভাবে দেখা যায়।

 

 


মজার বিষয় হচ্ছে আপনি যদি আপনার চোখের অবস্থান নির্নয় করে শোয়া অবস্থায় এবং দারানো অবস্থার মধ্যে চেখের উচ্চতা এবং একটা স্টপওয়াচ দিয়ে যদি দুইবার সুর্য ডোবার সময়ের ব্যাবধান নির্নয় করতে পারেন তাবে আপনি একটা সুত্রের মাধ্যমে পৃথিবীর ব্যাসার্ধ মেপে ফেলতে পারবেন। XKCD নামক একটা ওয়েবসাইট এই বিষয়টাকে আরো দুরত্ব পর্যন্ত নিয়েছে। তারা তাদের ওয়েবসাইটে এই সম্পর্কিত বিষয়গুলো নিয়ে পরিক্ষা নিরিক্ষা এবং হিসাব করার জন্য সহযোগিতা করবে। চাইলে ঘুরে আসতে পারেন। ওরা আমার বর্ননা করা এই পুরো প্রসেসটা সুন্দর করে ছবি সহ সহজ করে বর্ননা করেছে এবং আপনি খুবই সুন্দর ভাবে চাইলেই নিজেই এই পরিক্ষাটা করতে পারেন। মানে একই দিনে দুইবার সুর্যাস্ত দেখতে পারবেন। বাচ্চাদের নিয়ে এইটা করতে পারেন তারা খুবই আগ্রহি হবে এবং জিনিষটা শিখতে পারবে।

ওকে আমরা আমাদের ঠিক যতটুৃকুন ইচ্ছে ততটুকুন পর্যন্ত নির্মান করতে পারবো। কিন্তু করছি না কেন??

 

 


এই প্রশ্নের উত্তরা জানতে হলে আপনাকে আগে জানতে হবে বিল্ডিং যত উচু হবে তার নিজস্ব ভর ততই বারবে। আর এই নিজস্ব ভরের কারনে ভবনটি একসময় তার বেইজের সাপোর্টিং স্ট্রাকচার ফেইল করবে মানে ধ্বসে পরে যাবে। কিন্তু বিজ্ঞানিরা গবেষনা করে অসাধারন একটা জিনিষ আবিস্কার করেছেন। তারা দেখছেন পৃথিবীর পৃষ্ঠ থেকে যদি কোন কিছুকে ৩৫০০০ বা পয়ত্রিশ হাজার কিলোমিটার উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া যায় তবে সেখানে যাওয়ার পরে এই স্ট্রাকচারটা অন্য আর একটা ফোর্স অনুভব করবে। আর সেটা হচ্ছে টান বল। এই উচ্চতাকে বলা হয় geostationary orbit। এই বলটা এতটাই বেশি হবে যে উক্ত স্ট্রাকচার একদম হঠাৎ করে শুন্য বল দেয়া শুরু করবে পৃথিবীতে অবস্থিত তার বেইজের উপরে।

 

 


মুলত এটাই হচ্ছে স্পেস এলিভেটর বা মহাকাশ লিফট নির্মানের মুল ভিত্তি। যদি কোন ভাবে একটা ক্যাবলকে নিয়ে যদি আপনি এই উচ্চতায় বসিয়ে দিতে পারেন তবে আপনি খুবই সহজভাবে মহাকাশে যাওয়ার জন্য একটা লিফ্ট নির্মান করে ফেলতে পারবেন। এর পরে সেই লিফ্ট দিয়ে উঠে গিয়ে আপনি আপনার ঘর বাড়ি সহ সবকিছু সেখানেই নির্মান করতে পারবেন। মহাকাশে কোন কিছু নির্মানের সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে সেখানে আপনার স্ট্রাকচারের বেইজ বা ভিত্তি নিয়ে ভাবতে হবে না। যাই বানাবেন ভাসতে থাকবে ভরহিন ভাবে। কি মজা তাই না।

 

 


তবে এইধরনের কোন শক্ত ম্যাটেরিয়ালস এখন পযন্ত বানিজ্যিক ভাবে নির্মিত হয়নি। নাসা বিভিন্ন ধরনের ন্যানোটিউব নিয়ে গবেষনা করছে এবং ধারনা করা হচ্ছে এই ন্যানোটিউব টেকনলজির কাজ বা প্রজেক্ট যদি যদি সফলভাবে সম্পন্ন হয় তবে ভবিষ্যতে বা আগামি শতকে আমরা এধরনের একটা লিফ্ট বানিয়ে ফেলতে পারবো। ফলে মহাকাশে যাওয়ার জন্য আর আমাদেরকে রকেট ব্যাবহার করতে হবে না। বরঞ্চ আমরা খুবই সহজ ভাবে অন্যান্য গ্রহে বসতি স্থাপন করতে পারবো।

 

 


এছারাও আরও কিছু সমস্যা আছে। যেমন একটা ক্যাবল যদি পৃথিবী থেকে মহাকাশ পর্যন্ত বিস্তৃত থাকে তবে সেই ক্যাবলটা তো পৃথিবীর সাথে সাথে ২৪ ঘন্টা ঘুরতে থাকবে। এখন মহাকাশে প্রচুর রকমের জঞ্জালে ভর্তি। কারন আমরা গত ৬০ বছরে কমপক্ষে ৪০ হাজার বিভিন্ন ধরনের বস্তু মহাকাশে পাঠিয়েছি। এর মধ্যে বিভিন্ন ধরনের স্যাটেলাইট, মিসাইল সহ অনেক অনেক জিনিষ। এর মধ্যে বেশিরভাগই ধংস্ব প্রাপ্ত হয়ে আবর্জনার মত ভাসছে। এখন স্পেস এলিভেটর নির্মান করার পরে সেটিতো পৃথিবর সাথে সাথে একই স্পিডে ঘুরতে শুরু করবে। তখন এই জঞ্জালগুলো তো নিয়মিত এটাতে আঘাত করবে এবং একসময় ভেঙ্গে ফেলবে। তাই এই সমস্যার সমাধান করতে হবে।

 

 


এর পরের সমস্যা হচ্ছে পৃথিবীতে প্রত্যেকটা দেশের বিমান সংস্থার জন্য কিছু নির্দিস্ট রুট বা গতি পথ থাকে। পৃথিবীর ঘুর্ননের সাথে সাথে এই ক্যাবেলের ঘুর্ননেরও একটা গতি পথ থাকবে। তাই প্রত্যেকটা দেশের বিমান সংস্থাকে এই ক্যাবলের সাথে কলিউশন হয় এমন গতিপথ পরিহার করতে হবে। তবে এই সমস্যার সবচেয়ে দারুন সমাধান হচ্ছে কেবলটা সমুদ্রে মাঝখানে স্থাপন করা। তাহলে আর কোন দেশের কোন সমস্যা হবার কথা না। যদিও আমেরিকার প্রবলেম হবে। সেটা কিভাবে?? সেটা না অন্য একদিন আলোচনা করবো।

 

 


আর একটা সমস্যা আছে। আচ্ছা এটা বোঝার জন্য আবার সেই বলটার কাছে যাই। মনে করেন বলটা পৃথিবী আর সেই পৃথিবীর উপরে আপনি একটা লম্বা কাঠি দার করিয়ে স্পেস এলিভেটর বোঝাচ্ছেন। এখন পৃথিবী নামক বলটাকে যদি আপনি একটা ঘুরনি দেন যার গতি প্রতিঘন্টায় ২ কিলোমিটার তাহলে ওই কাঠির বাহিরের মাথাটার গতি হবে প্রতি ঘন্টায় ৪ কিলোমিটার। একই সিস্টেমে পৃথিবী থেকে মহাকাশে যাওয়ার পরে ওই কেবলের মহাকাশে থাকা মাথার ঘুর্নন গতি এতই ভয়ানক দ্রুহ হবে যে সেটা আপনার আমার কল্পনার বাইরে। বিজ্ঞানিরা হিসাব করেছেন এই হিসাবে যে যদি কোন ক্যাবল পৃথিবীথেকে ৫০ হাজার কিলোমিটার দুরে নিয়ে হয় যেটা অবশ্যই নিতে হবে একটা স্পেস এলিভেটর বানাতে তাবে সেইটার উপরের মাথার ঘুর্নন স্পিড হবে প্রতি সেকেন্টে ১১.২৮ কিলোমিটার। যে স্পিডে আপনি খুবই সজে পৃথিবীর অভিকর্ষ বলকে বা গ্রাভিটিকে ফাকি দিয়ে মহাকাশে চলে যেতে পারবেন।

 

 


তো প্রশ্ন করতে পারেন ঠিক কি সুবিধা পাওয়া যাবে যদি কোন দেশ এধরনের কোন কিছু একটা বানাতে পারে। ঠিক সুবিধা বলেত ওই বলতে পারেন ওই দেশ বা ওই ব্যাক্তি পুরো পৃথিবীর মহাকাশ রিলেটেড যাবতিয় কর্মকান্ড কন্ট্রোল করতে পারবেন। এবং সত্যিকার অর্থে তিনি পৃথিবীর সবচেয়ে ধনি ব্যাক্তি বা দেশে রুপান্তির হবেন। কারন বর্তমানে এক পাউন্ড ওজনের কোন কিছুকে মহাকাশে পাঠাতে খরচ হয় ১১ হাজার ডলার তখন হয়ত এই খরচটা নেমে যাবে মাত্র ১০০ ডলার বা আট হাজার টাকায়। তার মানে যোকোন কোটি পতি মহাকাশে নিজর জন্য একটা আলাদা বাড়ি বানিয়ে সেখানেই বাস করতে পারবেন। অথবা চাইলে একটা হোটেল বানানো যেতে পারে। চাইলে সেখানে বানানো যেতে পারে বিশাল কোন স্পেশশিপ যেটি গ্রহথেকে গ্রহান্তরে ঘুরতে পারবে।

অনেক ধন্যবাদ আমার লেখাটি পরার জন্য। আরো যদি কিছু জানার প্রয়োজন হয় তবে কমেন্টস এ উল্লেখ করুন। সেখানে আলোচনা করে আমরা জেনে নেবো বিষয়টি। ধন্যবাদ।

লেখার তথ্যসুত্র

১) ইউটিউব এর বিখ্যাত মাইকেল ঃ- https://www.youtube.com/watch?v=GJ4Qp2xeRds
২) কিভাবে দুইটা সুর্যাস্ত দেখে সেটাদিয়ে পৃথিবীর ব্যাসার্ধ নির্নয় করবেনঃ-http://www.darylscience.com/downloads/DblSunset.pdf
৩) পয়েন্ট ২ এর একই জিনিষ এখানেও দেখতে পারেঃ- Click This Link
৪) সর্বোচ্চ ভবন এর ইতিহাস জানতে এই লিংকে যানঃ- Click This Link
৫) এটাও ঘুরে আসতে পারেনঃ Click This Link
৬) পরন্ত মানুষ এবং টারমিনাল ভ্যালোসিটি সম্পর্কে জানতে এখানে যানঃ- Click This Link
৭) KWTV রেডিও টাওয়ারটি সম্পর্কে আরো জানতে এখানে যেতে পারেনঃ- Click This Link
৮) রেডিও টাওয়ার কিভাবে ধংস্ব হয়েছিল সেটার ভিডিও দেখতে পারেনঃ- http://www.youtube.com/watch?v=vx4k9gXAZEM
৯) বুর্জ খলিফার ছবি দেখতে এখানে ঃ- http://www.owips.com/burj-khalifa/
১০) রমজানের সময় বুর্জ খলিফার সময় সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুনঃ Click This Link
১১) মহাকাশে থাকা স্পেস শাটল বা স্যাটেলাইট গুলো হাইট জানতে এখানে যানঃ- Click This Link
১২) মহাকাশে অবস্থিত স্যাটালাইট এর পৃথিবীর কক্ষপথ থেকে সুর্যদয় দেখতে এখানে ক্লিক করুনঃ- https://www.youtube.com/watch?v=5nF5RXQxDH4
১৩) XKCD এর সেই হিসাব পত্র দেখতে এই লিংকে যানঃ- Click This Link
১৪) স্পেস এলিভেটর সম্পর্কে আরো জানতে নিচের লিংক গুলোতে যেতে পারেন। আমি এগুলো থেকে তথ্যগুলো নিয়েছি।
http://www.spaceward.org/
http://www.spaceelevatorblog.com/
https://en.wikipedia.org/wiki/Space_elevator
এখাকনে স্পেস এলিভেটর বানানোর আরো একটা সুন্দর উপায় বিশ্লেষন করা হয়েছে
https://en.wikipedia.org/wiki/Space_fountain