ঈদের ছুটির জন্য করণীয়

সাইটের/কোম্পানির পক্ষ থেকে করণীয়

1. কোন নির্মাণ সামগ্রী এলোমেলো বা ছড়ানো ছিটানো রাখা যাবে না, তা সঠিকভাবে পরিমানসহ লিপিবদ্ধ করে তালা বন্ধ করতে হবে।

2. সিমেন্ট, ইলক্ট্রিক সমগ্রী, রঙের সামগ্রী এবং অন্যান্য সামগ্রী যা স্টোরে রক্ষণাবেক্ষণ প্রয়োজন তা রেজিস্টার এ পরিমান সহ লিপিবদ্ধ করে তার সারাংশ এক কপি স্টির কিপার, এক কপি সাইট ইঞ্জিনিয়ার এবং এক কপি নিরাপত্তা প্রদানকারী কোম্পানির নির্ধারিত প্রতিনিধির নিকট হস্তান্তর করবেন এবং সবাই তা সরজমিনে বুঝে নেবার পর স্টোর তালা বন্ধ করা হবে এবং তালা সিল গালা করা হবে।জরুরী কোন প্রয়োজনে স্টোর খোলার প্রয়োজন পড়লে অন্তত (সাইট ইঞ্জিনিয়ার, স্টোর কিপির, নিরাপত্তা প্রতিনিধি) যে কোন দুই জনের উপস্থিতিতে স্টোর খোলা হবে।

3. সাইটে যারা থকবে তাদের নামের তালিকা তৈরি করে এক কপি হেড অফিসে, এক কপি নিরাপত্তাপ্রদানকারী কোম্পানিকে প্রেরণ করবে।

4. সাইটে রড বা বড় যে সব সামগ্রী যা স্টোর এ রাখা সম্ভবপর নয় তা এমনভাবে জড়ো করে রাখতে হবে যাতে করে নিরাপত্তা রক্ষী যেখানে অবস্থান করবেন সেখান থেকে সহজে দৃষ্টিগোচর হয়। এই সকল মালামালের একটি তালিকা তৈরি করে নিরাপত্তা প্রতিনিধির নিকট হস্তান্তর করতে হবে।

5. সাইটে ইঞ্জিনিয়ার অন্তত দিনে একবার নিরাপত্তা প্রতিনিধির সঙ্গে যোগাযোগ করে সাইটের সার্বিক অবস্থা সম্পর্কে তথ্য নিবে।

6. সাইটের নিরাপত্তার স্বার্থে সুর্যাস্তের পর পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা থাকতে হবে।

7. দাহ্য পদার্থের আশেপাশে ধুমপান করা যাবেনা। সম্ভব হলে দাহ্য পদার্থ সমুহ এমন জায়গায় রাখতে হবে যেখানে সহযে কেউ প্রবেশ করবে না।

8. ঈদের ছুটির সময় গেইট সবসময় বন্ধ থাকবে এবং বাহিরের কেউ প্রবেশ করতে পারবে না। কোম্পানী এর কেউ ঢুকতে চাইলে আইডি কার্ড প্রদর্শন এবং সাইট ইঞ্জিনিয়ারের অনুমতিক্রমে প্রবেশ করতে দেওয়া যাবে। 9. কোম্পানির এ্যাডমিন অফিসার জনাব এডমিন আলি (মোবাইল 0100000000) এর সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

 

নিরাপত্তা প্রদানকারী পক্ষ থেকে করণীয়

1. ছুটির পুর্বেই মালামাল কোনটি কোথায় আছে তার কপি কোম্পানি এর সাইট ইঞ্জিনিয়ারের নিকট থেকে সংগ্রহ করে তা যথাযথভাবে বুঝে নিতে হবে

2. ছুটি চলাকালীন সময়ে স্টোর থেকে কোন সামগ্রী বের হলে তা পুঙখানুপুঙ্খ ভাবে নিশ্চিত করে বের করতে হবে।

3. প্রতিদিন এবং প্রতি রাতে প্রতিটি সাইটে, সদর দপ্তরের প্রতিনিধির মাধ্যমে পরিদর্শন নিশ্চিত করা

4. কর্তব্যরত সুপারভাইজার বা নিরাপত্তারক্ষী প্রতিদিন সকালে ও সন্ধ্যায় সমস্ত সাইট এলাকা ঘুরে দেখে সব সঠিক আছে কিনা তা রেজিস্টারে নাম, সময় সহ লিপিবদ্ধ করে স্বাক্ষর করবে

5. জরুরী পরিস্থিতিতে কোম্পানির কর্মকর্তাদের অবহিত করা এবং তড়িৎ প্রতিরোধমুলক ব্যবস্থা নেয়া।

6. বাহিরের কোন ব্যক্তি কোন প্রকার কথা বলতে চাইলে তাকে সাইট এ প্রবেশ করতে না দিয়ে, সাইট এর বাহিরে বরে হবে কথা বলা 7. ছুটি শেষে দ্রব্য সামগ্রী সাইট ইঞ্জিনিয়ারের নিকট বুঝিয়ে দেয়া।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *